ঢাকা, রবিবার, ১০ কার্তিক ১৪২৭, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

আগরতলা

করোনা আবহের মধ্যে আগরতলায় শারদ উৎসবের প্রস্তুতি চলছে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৫৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ৮, ২০২০
করোনা আবহের মধ্যে আগরতলায় শারদ উৎসবের প্রস্তুতি চলছে

আগরতলা(ত্রিপুরা): করোনা মহামারি আবহের মধ্যেও ত্রিপুরা রাজ্যে শারদ উৎসবের প্রস্তুতি চলছে।

শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) থেকে শুরু হচ্ছে বাঙালির অন্যতম বড় দুর্গোৎসব।

প্রতি বছরের মতো এবছরও ত্রিপুরা রাজ্যের রাজধানী আগরতলার অন্যতম বড় দুর্গোৎসব কমিটি ঊষাবাজার এলাকার ভারতরত্ন সংঘ প্যান্ডেল ও প্রতিমা তৈরির কাজ শুরু করেছে। ক্লাবের প্যান্ডেল ও প্রতিমা নির্মাণের দায়িত্বে রয়েছেন আগরতলা সরকারি আর্ট কলেজের ছাত্র ভাস্কর দত্ত।

তিনি বাংলানিউজকে জানান, করোনা মহামারির কারণে ত্রিপুরা সরকারের তরফে কিছু নীতিমালা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। তারা সরকারি এইসকল নীতিমালা মেনে প্যান্ডেল ও প্রতিমা তৈরির কাজ করছেন।

গত বছরের তুলনায় এবছর অনেক কম সংখ্যক শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। প্যান্ডেল তৈরির ক্ষেত্রে প্রতিদিন ১০থেকে ১২জনের বেশি শ্রমিককে কাজে লাগানো হচ্ছে না। এই সকল শ্রমিকদের ক্লাবের তরফে মাস্ক, স্যানিটাইজার দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি হাত ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি ও সাবানের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। শ্রমিকরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কাজ করছেন। একই ভাবে প্রতিমা তৈরিতেও সরকারের নীতিমালা পালন করা হচ্ছে।

প্রতিবছর ভারতরত্ন সংঘ বিশাল আকারের প্যান্ডেল তৈরি করে থাকে, এবছর কত বড় প্যান্ডেল তৈরি করা হবে? এর উত্তরে ভাস্কর দত্ত জানান প্যান্ডেল ৪০থেকে ৪৫ফুটের বেশি উঁচু করা হবে না এ বছর। প্রথমে আরো ছোট আকারের প্যান্ডেল তৈরি করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল, কিন্তু ছোট আকারের প্যান্ডেল তৈরি করা হলে তা দূর থেকে দেখা যাবে না। তাই দর্শনার্থীরা কাছে আসতে বাধ্য হবে এবং এর ফলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হবে না। এই সকল বিষয় চিন্তা করে প্যান্ডেলের উচ্চতা ৪৫ফুট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই উচ্চতায় মানুষ ১০০ফুটের বেশি দূর থেকে প্যান্ডেল দেখতে পাবেন তাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হবে।

এছাড়াও উৎসব চলাকালীন সময়ে ত্রিপুরা সরকারের তরফে এ বছর নতুন করে যে সকল নীতিমালা দেওয়া হয়েছে তা পালন করা হবে বলেও জানান তিনি।

দুর্গোৎসবের সময় যাতে করোনা সংক্রমণ না ঘটে তার জন্য আগাম বেশ কিছু নীতিমালা ঘোষণা করেছে ত্রিপুরা সরকার। এই নীতিমালার বিষয়ে সরকারের তরফে সার্বজনীন উৎসব কমিটি গুলোকে জানানো হয়েছে। শারদ উৎসব সম্পর্কিত নীতিমালা গুলির মধ্যে কয়েকটি হলো- যাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকে তা উৎসব কমিটিকে নিশ্চিত করতে হবে। দর্শনার্থীদের জন্য প্যান্ডেলের বাইরে ন্যূনতম দুই ফুট দূরে দূরে চিহ্ন এঁকে দিতে হবে, দর্শকরা এই সকল চিহ্নের মধ্যে দাঁড়িয়ে প্যান্ডেল ও প্রতিমা দর্শন। সামাজিক দূরত্ব সঠিকভাবে বজায় রাখার জন্য উৎসব কমিটি গুলিকে পর্যাপ্ত সংখ্যক স্বেচ্ছা সেবক নিয়োগ করতে হবে। প্যান্ডেলে দর্শকদের জন্য স্যানিটাইজার রাখতে হবে। প্রতিটি প্যান্ডেল কে দিনে অন্তত কম করেও তিনবার স্যানিটাইজ করতে হবে। প্যান্ডেল গুলি সামনের দিক খোলা রাখতে হবে, যাতে করে দর্শকরা বাইরে দাঁড়িয়ে প্রতিমা দর্শন করতে পারেন ইত্যাদি।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫৪ ঘন্টা, সেপ্টেম্বর ০৮, ২০২০
এসসিএন/এমএমএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa