php glass

পর্যটনকেন্দ্র হতে পারে লালপুর বেড়িবাঁধ!

মনি আচার্য্য, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

লালপুর বেড়িবাঁধ- ছবি: বাংলানিউজ

walton

লালাপুর (নাটোর) থেকে: সামনে ধূসর বালির চরা আর চরা। এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত দেখা যায় না বলেই চলে। চরের চারদিকে রয়েছে সর্বনাশা নদী বলে খ্যাতি পাওয়া পদ্মা। আর নদীর পাড় ঘিরে গড়ে উঠেছে প্রায় ২.৫ কিলোমিটারের বেড়িবাঁধ। বেড়িবাঁধে দাঁড়িয়ে এক মুহূর্তের জন্য মনে হতে পারে এ যেন বালির মরুভূমি। প্রকৃতির এই অপরুপ সৌন্দর্য আপনার মনেকে সহজেই পুলকিত করতে পারে।

নাটোর সদর উপজেলা থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত লালপুর উপজেলা। লালপুর উপজেলাশহর থেকে ৪ কিলোমিটার দূরেই পদ্মার বেড়িবাঁধ । ২.৫ কিলোমিটার বিস্তৃত এই বেড়িবাঁধের একটি অংশ পড়েছে পাবনার ঈশ্বরদীতে। বেড়িবাঁধের সামনে রয়েছে পদ্মা নদী ও কুষ্টিয়ার দৌলতপুর, পাবনার ঈশ্বরদী ও সুজানগর এবং নাটোর জেলার লালপুরে পদ্মার বিস্তীর্ণ চর।

সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলেই পদ্মার চর ও লালপুর বেড়িবাঁধ হয়ে উঠতে পারে পর্যটকদের কাছে অন্যতম আকর্ষণের কেন্দ্র। কেননা লালপুর বেড়িবাঁধ ও পদ্মার এই চর-এলাকায় পর্যটক আকর্ষণের মতো সবকিছুই রয়েছে। রয়েছে পদ্মার স্বচ্ছ পানি, বিশাল এলাকাজুড়ে বিস্তীর্ণ বালির চর ও ২.৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মার বেড়িবাঁধ। এছাড়া মাঝে মধ্যে দেখা মিলতে পারে ধূলিঝড়ের; এমনটা সব সময় মরুভূমির দেশগুলোতেই হয়ে বলে সবাই জানে। এটি সহজেই পর্যটক আকর্ষণের উপাদান হতে পারে।
লালপুর বেড়িবাঁধ- ছবি: বাংলানিউজ
তবে স্থানীয়দের কাছে এখনই লালপুর বেড়িবাঁধ এলাকা পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে খ্যাতি পেয়ে গেছে। সরকারি সাপ্তহিক ছুটির দিনগুলো ছাড়া দুই ঈদে স্থানীয় লোকজন ও দেশি পর্যটকদের সমাগম ঘটে। কিন্তু থাকা খাওয়ার সুব্যবস্থা ও প্রচার প্রচারণা না থাকায় দেশের প্রকৃতিপ্রেমীদের জন্য এখনো স্থানটি অজানাই রয়ে গেছে।

স্থানীয়রা বলছেন, নাটোর সদর থেকে ৩৬ কিলোমিটার দূরে হওয়ায় লালপুরে থাকা-খাওয়ার সুব্যবস্থা তেমন একটা নেই। তাছাড়া যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো থাকলেও পর্যাপ্ত পরিবহন-সুবিধা নেই। এই কারণে পর্যটকদের কাছে আগ্রহ পাচ্ছে না লালপুর বেড়িবাঁধ ও পদ্মার চর-এলাকা। প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা ও পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা গেলে দেশের যে কোনো পর্যটনকেন্দ্রের মতো জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারে লালপুর বেড়িবাঁধ ও পদ্মার চর।

এ সম্পর্কে স্থানীয় বাসিন্দা সুনীলচন্দ্র দাস বাংলানিউজকে বলেন, প্রতিদিনই পাবনা এবং নাটোর থেকে বিভিন্ন শ্রেণির পর্যটকরা বেড়াতে আসনে এই এলাকায়। কিন্তু সুযোগ সুবিধা কম থাকায় অন্য এলাকার মানুষরা তেমন একটা আসা যাওয়া করেন না।  সরকার যদি এ ব্যাপারে উদ্যোগ গ্রহণ করতো তাহলে ভ্রমণপ্রেমীরা যেমন একটি আকর্ষণীয় প্রাকৃতিক পরিবেশ দেখার সুযোগ পেতো, তেমনি এলাকাবাসীরও অর্থনৈতিক উন্নয়ন হতো।

আশেপাশের এলাকায় তেমন প্রাকৃতিক পরিবেশ নিয়ে গড়া ওঠা পর্যটনকেন্দ্র না থাকায় এই এলাকাটি সহজেই জনপ্রিয় হয়ে ওঠার বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া বনলতা সেনের ঐতিহাসিক নাটোর শহর দেখতে প্রায় সারা বছরই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকরা আসেন। জেলা শহরের কাছাকাছি একটি পর্যটককেন্দ্র গড়ে উঠলে এই পর্যটকরাও লালপুর বেড়িবাঁধ দেখতে ছুটে আসবেন।    
     
বাংলাদেশ সময়: ১৩৩৬ ঘণ্টা মে ২৮, ২০১৭
এমএ /জেএম

আশুলিয়ায় ভ্যানচালকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
তুহিনের কণ্ঠে ‘রং তুলি’
ইউজিসি চেয়ারম্যানের সঙ্গে সাক্ষাতে সিআইইউর উপাচার্য
চামড়া খাতে ব্রিটিশ বাঙালিদের বিনিয়োগের আহ্বান 
মন্ত্রী ব্যবসায়ী হলে বাজেট দিতে পারবেন না, এটা ঠিক না


বাজেটে রেমিটেন্স প্রণোদনা, অনুপ্রেরণা পাবেন প্রবাসীরা
কালিহাতীতে যুবকের মরদেহ উদ্ধার
শুরুতেই উইকেট হারালো পাকিস্তান
টাঙ্গাইলকে দু’টি সাংগঠনিক জেলা করছে বিএনপি
ওসি মোয়াজ্জেম গ্রেফতারে নুসরাতের পরিবারে স্বস্তি