php glass

বসুন্ধরা কিংসের লক্ষ্য এবার এএফসি কাপ 

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বসুন্ধরা কিংসের লক্ষ্য এবার এএফসি কাপ 

walton

বিদায়টা এত তাড়াতাড়ি হবে হয়ত আগে ভাবতে পারেনি বসুন্ধরা কিংস। শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের অন্যতম ফেবারিট ছিল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু তাদের বিদায়টা হলো গ্রুপ পর্বেই এবং সবাইকে আশ্চর্য করে দিয়ে।

অবশ্য তাদের টুর্নামেন্টের শুরুটা হয়েছিল গোকুলাম কেরালার বিপক্ষে হেরে। তবে পরে বাঁচা-মরার ম্যাচে ৩-২ গোলের জয় তুলে নিয়ে সেমিফাইনালের আশা বাঁচিয়ে রাখেন দেনিয়েল কলিন্দ্রেসরা। কিন্তু সেই ম্যাচে বড় কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যেতে হয় বসুন্ধরাকে। ‘বিতর্কিত’ ম্যাচটিতে লাল কার্ড দেখেন তাদের স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রজন।

শনিবার (২৬ অক্টোবর) শেষ চারে যাওয়ার লড়াইয়ে বসুন্ধরা মুখোমুখি হয় মালেয়শিয়ার ক্লাব তেরেঙ্গানু এফসি’র। কিন্তু এগিয়ে যাওয়ার পরও আরেকটি অঘটনের জন্ম দিয়ে সেমির স্বপ্ন বিসর্জন দেয় তারা। সেই ম্যাচে কোচ ব্রুজনের পরিবর্তে ডাগআউটে দাঁড়িয়েছিলেন সহকারী কোচ মাহবুব হোসেন রস্কি। এমন একটি লড়াইয়ে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হওয়ায় স্বাভাবিকভাবে হতাশ তিনি।

ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনেও রস্কি এলেন বিরস মুখে। এবারও আসেননি কোচ ব্রুজন। সেই ‘লাল কার্ড’ ঘটনার পর সাংবাদিকদের সামনে একবারের জন্যও আসেননি  ব্রুজন ও অধিনায়ক দেনিয়েল কলিন্দ্রেস। যার কারণে সাংবাদিকদের প্রশ্ন একাই সামাল দিলেন রস্কি। সেমিতে যেতে না পারার কারণ হিসেবে অনুশীলনে সময় কম পাওয়া, দলের নতুন খেলোয়াড়দের মধ্যে এখনো বোঝাপড়া তৈরি না হওয়া, সঙ্গে রক্ষণভাগকে কিছুটা দায়ি করলেন তিনি। তবে এই ম্যাচ থেকে শিক্ষা নিয়ে রক্ষণভাগে শক্তি বাড়ানোর ব্যাপারে রক্সি বলেন, ‘এই পরীক্ষামূলক  ম্যাচ থেকে যেটা শিক্ষনীয় তা হলো আমাদের ডিফেন্সে কাজ করতে হবে বেশি।’

তবে হারলেও হতাশ নন রক্সি। এখান থেকে শিখেই এগিয়ে যেতে চান তিনি, ‘এই ফল মেনে নিতে হবে। রেজাল্ট আসলে, হার থেকেও শিখতে হয়। এটা ইন্টারন্যাশনাল ফুটবল। যেহেতু আমরা ঘরোয়া লিগে ভালো করেছি এবং সামনে এএফসি কাপ খেলতে যাচ্ছি।’

এবার প্রথমবারের মতো এএফসি ক্লাবে খেলতে যাবে বসুন্ধরা কিংস। আসন্ন সেই আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টকে পাখির চোখ করছেন রক্সি। অবশ্য ইতোমধ্যে প্রতিপক্ষকে চেনা হয়ে গেছে তার। কারণ একই গ্রুপে বসুন্ধরা কিংস পাচ্ছে চেন্নাই সিটি ও টিসি স্পোর্টসকে। এই ব্যাপারেই কথা বললেন রক্সি, ‘গোকুলাম কেরালা, চেন্নাই এফসি, টিসি স্পোর্টস তারা আমাদের গ্রুপে আছে। তিনটা দল অলরেডি আছে। আরেকটি দল আসবে প্রাক-বাছাই খেলে। সেটা ভারতের বা বাংলাদেশেরও হতে পারে। হতে পারে নেপালের কোনো দল। সেক্ষেত্রে আমাদের প্রতিপক্ষ চেনা হয়ে গেছে। তাদের খেলার অবস্থান আমরা বুঝতে পারছি।  তারা কতটুকু শক্তিশালী এবং কীভাবে খেলে, তা আমাদের জন্য অনেক বেশি শিক্ষনীয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘ফুটবলকে সময় দিতে হবে এবং দল গোছানোর জন্য সময় দিতে হয়। যদি একমাস অনুশীলন করি তবে আমি কথা বলতে পারবো। তিন দিনের অনুশীলন নিয়ে এই লেভেলের ম্যাচ খেলা যায় না। বিভিন্ন দল থেকে আমাদের দলে নতুন খেলোয়াড় এসেছে। তাদেরকে দলের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার জন্য সময় দিতে হবে। 


বাংলাদেশ সময়: ০১৪৭ ঘন্টা, অক্টোবর ২৭, ২০১৯
ইউবি/
এসআই‌এস 

কুবিতে ভর্তির সাক্ষাৎকার শুরু ২৪ নভেম্বর
গোল্ডেন ফুট অ্যাওয়ার্ড জিতলেন মদ্রিচ
শীত আসছে ড্রাই শ্যাম্পুর রেসিপিটা মনে আছে তো!
১০ বছরে ২ হাজার রেল দুর্ঘটনা, মৃত্যু ২৬৩ জনের   
নির্বাচনের আগে পরপর ২ বার সাইবার হামলায় লেবার পার্টি


১৬ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা
সঙ্গীর জন্য ২ পেঙ্গুইনের মারামারি
মহানবী (সা.)-এর প্রিয় ফল জয়তুন
হুমায়ূন আহমেদ স্মরণে শিল্পকলার মঞ্চে ‘দেবী’
প্রবাসে এনআইডি: দুবাইয়ে কার্যক্রম শুরু ১৮ নভেম্বর