php glass

‘সৃষ্টিকর্তা’ যা দিয়েছেন তাতেই খুশি মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বিশ্বকাপ না জিতলেও বার্সার হয়ে মেসির অর্জন অসংখ্য/ছবি: সংগৃহীত

walton

অবিশ্বাস্য ক্যারিয়ারে অসংখ্য সাফল্যের পালক যুক্ত হয়েছে লিওনেল মেসির মুকুটে। তবে এতসব অর্জনের মাঝেও তার সবচেয়ে বড় অপূর্ণতা বিশ্বকাপ না জিততে পারা। কিন্তু এ নিয়ে তার মধ্যে কোনো হতাশা কাজ করে না। বরং ‘সৃষ্টিকর্তা’ যা দিয়েছেন তাই নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে চান তিনি।

আর্জেন্টিনার হয়ে সবচেয়ে বেশি গোলের মালিক হয়েও এখন পর্যন্ত সিনিয়র দলের হয়ে কোনো শিরোপা জেতার স্বাদ পাননি মেসি। আন্তর্জাতিক ফুটবলে তার সবচেয়ে বড় অর্জন বলতে ২০০৫ সালে জেতা অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপ আর ২০০৮ অলিম্পিকে স্বর্ণপদক।

২০১৪ বিশ্বকাপ আর কোপা আমেরিকার দুই ফাইনালে হেরে যাওয়ার পর আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শেষ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মেসি। অবসরের ঘোষণাও দিয়েছিলেন। পরে অবশ্য সমর্থকদের চাপে ফিরে এসেছেন।

জাতীয় দলের জার্সিতে বিবর্ণ মেসি ক্লাব ফুটবলের জীবন্ত কিংবদন্তি। ক্লাব পর্যায়ে সম্ভাব্য সবই জেতা হয়ে গেছে তার। কাতালানদের হয়ে ক্লাব রেকর্ড ৩৪টি শিরোপা জেতার স্বাদ পেয়েছেন তিনি। এর মধ্যে লা লিগায় ১০টি আর ৪টি আছে চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা।

ক্লাব ফুটবলে এতসব শিরোপার বিনিময়ে বিশ্বকাপ জিততে চান কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মেসির সাফ জবাব, ক্যারিয়ারের কোনোকিছুই বদলাতে চান না তিনি। ‘টিওয়াইসি স্পোর্টস’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বার্সা অধিনায়ক বলেন, ‘বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হতে পারাটা হতো দারুণ কিছু। কিন্তু আমি মনে করি না আমার ক্যারিয়ারের কোনোকিছু এজন্য বদলাতে চাইবো। এসব আমি পেয়েছি, যা আমাকে সৃষ্টিকর্তা দিয়েছেন।’

ক্লাবের জার্সিতে পাওয়া সফলতা জাতীয় দলে অনূদিত করতে না পারায় নিজ দেশে প্রায়ই সমালোচনার মুখে পড়তে হয় মেসিকে। অনেকের অভিযোগ, মেসি তার সেরা পারফরম্যান্স বার্সার জন্য জমিয়ে রাখেন। সমর্থকদের সঙ্গে খারাপ সম্পর্কের পরও ২০১১ সাল থেকে জাতীয় দলের নেতৃত্বভার বহন করছেন তিনি। 

২০১৪ সালের বিশ্বকাপটাই বেশি পোড়ায় মেসিকে। কারণ সেবার ফাইনালে ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ের গোলে শিরোপা স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়ে যায় আর্জেন্টিনার। তবে দলের ব্যর্থতার মাঝেও আসরের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার গোল্ডেন বল যায় মেসির ঝুলিতে। 

এরপর কোপা আমেরিকায় টানা দুই ফাইনালে চিলির কাছে হারের ধাক্কা সামলানো সত্যি কঠিন কাজ। শেষবার তথা ২০১৬ সালে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ইতি টানেন। তবে দলের প্রয়োজনে তথা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে অংশ নিতে অবসর ভেঙে ফিরে আসেন তিনি এবং দলকে রাশিয়ায় নিয়ে যান।

২০১৮ বিশ্বকাপটাও হতাশ করেছে মেসিকে। দুর্বল দল নিয়ে লড়াই করতে হয়েছে তাকে। দলও বিদায় নেয় শেষ ষোলো থেকেই। আবারও বিশাল চাপ আর প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হওয়ার পর স্বেচ্ছা অবসরে চলে যান মেসি। 

এরপর আবার চলতি বছরের কোপা আমেরিকার আগে দলের সঙ্গে যুক্ত হন মেসি। কিন্তু এবারও দলীয় ব্যর্থতা সঙ্গী হয় তার। শুধু তাই না, চিলির বিপক্ষে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে তাকে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয়। এর আগে ব্রাজিলের বিপক্ষে সেমিফাইনালে রেফারি আর কনমেবলের সমালোচনা করায় তিন ম্যাচ নিষিদ্ধ হন তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৪১১ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৬, ২০১৯
এমএইচএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ফুটবল বার্সেলোনা মেসি আর্জেন্টিনা
সাড়ে ৫শ’ যাত্রী নিয়ে কালীগঞ্জের চরে আটকা লঞ্চ 
অরগ্যানিক পদ্ধতিতে চাষে গুরুত্ব দিচ্ছে ত্রিপুরা সরকার
বাহুবলে দুইজনকে কুপিয়ে মালামাল লুট, অস্ত্রসহ ডাকাত আটক
একা বেড়ে ওঠা বাচ্চাদের ওজন বেশি হয়!
আশুগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত নিহত


সাংবাদিক পরিচয়েও রক্ষা পেলেন না মাদকবিক্রেতা
টানা দুই জয়ে কাবাডি চ্যাম্পিয়নশিপের কোয়ার্টারে বাংলাদেশ
আশুলিয়ায় মাদক মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার
আগরতলায় বন সংরক্ষণ বিষয়ক ৩ দিনের কর্মশালা
সেই কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছিলেন হাফেজ মুজিবুল