php glass

বাংলাদেশ আমার দ্বিতীয় বাড়ি: মাসাকাদজা

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মাসাকাদজাকে গার্ড অব অনার দিচ্ছে জিম্বাবুয়ে ও আফগানিস্তান দল/ছবি: সংগৃহীত

walton

স্মরণীয় এক জয়ের আনন্দ নিয়ে বিদায় বললেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। সেই জয় এলো তারই হাত ধরে। আর বিদায়বেলায় তাকে গার্ড দিল দুই দলই। এর চেয়ে রাজসিক বিদায় আর কী হতে পারে।

বিদায়ের বিষাদ ছাপিয়ে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের সংবাদ সম্মেলনে হাসিমাখা মুখ নিয়ে হাজির হলেন মাসাকাদজা। বললেন, কষ্ট হচ্ছে, তবু কোনো অপূর্ণতা নেই। বরং ১৮ বছরে যা অর্জন করেছেন তা নিয়ে বেশ সন্তুষ্ট তিনি। এখন নতুনদের দায়িত্ব বুঝে নেওয়ার সময়। নিজে সরে দাঁড়িয়ে সেই পথ পরিস্কার করে দিলেন। 

শেষ ম্যাচে বিশেষ জার্সি পরে খেলতে নেমেছিলেন মাসাকাদজা। ম্যাচ শেষে বিসিবি’র কাছ থেকে পেয়েছেন বিশেষ সম্মাননা আর স্মারক উপহার। উপহারে একটি ছিল ফ্রেমে বাঁধানো তার ক্যারিয়ারের স্মরণীয় কিছু মুহূর্ত। ফ্রেমে লেখা ‘থ্যাংকস মুধারা হ্যামি’ (জিম্বাবুয়ের ভাষায় এর অর্থ ‘পরিণত’)। এটা তার ডাক নাম, যা ক্যারিয়ারের শুরুতে পেয়েছিলেন।

উপহার হাতে নিয়েই সংবাদ সম্মেলনে হাজির হলেন মাসাকাদজা। এরপর বিদায় নিয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে বাংলাদেশ নিয়ে নিজের ভালোবাসার কথাও বললেন মাসাকাদজা। জানালেন, তার হৃদয়ে বিশেষ জায়গা দখল করে আছে এই দেশ। বাংলাদেশের ক্রিকেটের সঙ্গে মাসাকাদজার সম্পর্ক অনেক পুরনো। খেলেছেন এদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে। জাতীয় দলের হয়ে সফর করেছেন বহুবার। 

বাংলাদেশ নিয়ে মাসাকাদজার আবেগের আরও একটা কারণ আছে। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ডকে আইসিসি বরখাস্ত করার পর বাংলাদেশ তাদের বিপদে পাশে দাঁড়িয়েছে। আমন্ত্রণ জানিয়েছে ত্রিদেশীয় সিরিজে অংশ নেওয়ার জন্য। ফলে ছন্নছাড়া জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট আশার আলোর দেখা পেয়েছে। আর মাসাকাদজাও পেয়েছেন মাঠ থেকেই বিদায় নেওয়ার সুযোগ।

মাসাকাদজা বলেন, ‘বাংলাদেশ আমার দ্বিতীয় বাড়ি এবং আমার হৃদয়ে বিশেষ জায়গা দখল করে আছে। আমি এখানে অনেক মানুষের সঙ্গে পরিচিত হয়েছি এবং অনেক বন্ধু পেয়েছি। আমি এখান থেকে অনেক কিছু শিখেছি। এখানকার মানুষের ক্রিকেটের প্রতি আবেগকে আমি ভালোবাসি। এটা আমি দারুণ উপভোগ করি। বাংলাদেশে অনেকবার আসতে পারা এবং এখানকার সংস্কৃতি ও মানুষ সম্পর্কে জানতে পারা আমার জন্য অনেক বড় আশীর্বাদ।’

নিজের বিদায়ী ম্যাচে একটা রেকর্ড সঙ্গী করেছেন মাসাকাদজা। আফগানদের ৭ উইকেটে হারিয়ে দেওয়া ম্যাচে ব্যাট হাতে ৪২ বলে ৭১ রান করেছেন তিনি। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের ইতিহাসে বিদায়ী ম্যাচে কোনো ব্যাটসম্যানের সর্বোচ্চ ইনিংস এটা। 

বিদায়বেলায় আরও কিছু কীর্তি যুক্ত হয়েছে তার নামের পাশে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় ১৫তম স্থানে আছেন তিনি। তার ১ হাজার ৬৬২ রান জিম্বাবুয়ের হয়ে সর্বোচ্চ। ৬৬ ম্যাচের ক্যারিয়ারে তার ব্যাটিং গড় প্রায় ২৬। হাফ-সেঞ্চুরি আছে ১১টি। 

মাসাকাদজার ক্যারিয়ার সেরা টি-টোয়েন্টি ইনিংস ৯৩, যা জিম্বাবুয়ের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। হারারেতে জন্মগ্রহণকারী এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান ৩৮টি টেস্ট ম্যাচে রান করেছেন ২ হাজার ২২৩। আর ২০৯টি ওয়ানডে খেলে ৫ হাজার ৬৫৮ রান করেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১২০২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯
এমএইচএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ক্রিকেট
ছাত্র রাজনীতি
কফিনের ভেতর কথা বলে কে!
যুক্তরাষ্ট্রে ভবনে বাড়ি খেয়ে শতাধিক পাখির মৃত্যু
আইয়ুব বাচ্চু নেই, আইয়ুব বাচ্চু আছেন
শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মদিন শুক্রবার


কম্পিউটারের জনক চার্লস ব্যাবেজের প্রয়াণ
উজ্জ্বয়ন্ত প্রাসাদ চত্বরে চালু হলো ইলেকট্রনিক গাড়ি
মদিনায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের প্রতি ড. মোমেনের শোক 
ফেনী ইউনিভার্সিটি ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন 
সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ বাংলাদেশি যুবক নিহত