php glass

এক বছরে ছয় হারের বাজে রেকর্ড জার্মানির

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

টানা ছয় ম্যাচে হার হজম করেছে জোয়াকিম লো'র শিষ্যরা-ছবি: সংগৃহীত

walton

বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে লজ্জাজনক বিদায়ের পরও হারের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না জার্মানি। সর্বশেষ বর্তমান বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের বিপক্ষে হেরে লজ্জার এক রেকর্ডও গড়েছে জোয়াকিম লো’র শিষ্যরা। এক পঞ্জিকা বর্ষে ৬ হার হজম করে এই রেকর্ডে নাম লিখিয়েছে দলটি।

২০১৮ সাল জার্মানির জাতীয় দলের জন্য সবচেয়ে বাজে মৌসুম হিসেবে সাব্যস্ত হয়েছে, অন্তত হারের হিসাবে। মঙ্গলবার (১৬ অক্টোবর) উয়েফা ন্যাশনস লিগে ফরাসিদের কাছে ২-১ গোলে হেরে গেছে জার্মানি। এই নিয়ে এক পঞ্জিকা বর্ষে প্রথমবারের মতো ৬ ম্যাচে হারের মুখ দেখল সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

২০১৮ সালে জার্মানি ব্রাজিল, অস্ট্রিয়া, মেক্সিকো, দক্ষিণ কোরিয়া, নেদারল্যান্ডস এবং ফ্রান্সের কাছে হেরেছে।

ফরাসিদের বিপক্ষে প্রথমার্ধে পেনাল্টি থেকে গোল করে জার্মানিকে এগিয়ে দিয়েছিলেন রিয়াল তারকা টনি ক্রুস। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ তারকা আঁতোয়া গ্রিজমানের জোড়া গোলে ইতিহাস গড়া পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন জোয়াকিম লো’র শিষ্যরা।

ক্রুস অন্তত জার্মানির গোল খরা সামালা দিতে সক্ষম হয়েছেন। এর আগের তিন ম্যাচে গোলের দেখাই পাননি মুলাররা। কিন্তু এটাই ওই ম্যাচ থেকে জার্মানির একমাত্র প্রাপ্তি। ম্যাচ শেষে সেই প্রাপ্তির আলো নিভে লজ্জার আঁধার সঙ্গী হয়েছে তাদের।

টানা চার প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে জয়ের দেখা পায়নি জার্মানি। প্রায় ২০ বছরের মধ্যে যা প্রথমবার ঘটেছে। সর্বশেষ অক্টোবর ১৯৯৯ থেকে জুন ২০০০ সাল পর্যন্ত এমন পরিস্তিতির মুখোমুখি হয়েছিল তারা। এছাড়া মঙ্গলবারের পরাজয়টি ২০০০ সালের পর প্রথমবারের মতো প্রতিযোগিতামূলক আসরে জার্মানির টানা দুই পরাজয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৮ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৭, ২০১৮
এমএইচএম/এমএমএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ফুটবল জার্মানি
বনায়নের নামে শতবর্ষী গাছ কাটার পাঁয়তারা!
আট লাখ ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৪ মাদকব্যবসায়ী
কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ 
নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে কলকাতায় পালন হবে বিজয় দিবস
খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বরিশালে ছাত্রদলের মশাল মিছিল


রিয়াদে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস পালিত
১৩ ডিসেম্বর বগুড়া হানাদারমুক্ত দিবস
ঝালকাঠিতে দুই আওয়ামী লীগ নেতার সমর্থকদের সংঘর্ষ
মানিকগঞ্জ হানাদার মুক্ত হয় ১৩ ডিসেম্বর
পাহাড়ে শান্তি চুক্তি হলেও বন্ধ হয়নি অবৈধ অস্ত্রের ঝনঝনানি