সোনা জয়ে সেনা চাকরি মুক্তি সনের

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক চাকরি থেকে অব্যাহতি পেলেন সন হিউং-মিন-ছবি: সংগৃহীত

walton

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক চাকরি থেকে অব্যাহতি পেলেন সন হিউং-মিনরা। এশিয়ান গেমস ফুটবলের ফাইনালে জাপানকে ২-১ গোলে হারিয়ে সোনা জয়ের মাধ্যমে এই সুখবর পেলেন দেশটির ফুটবলাররা। বিশেষ করে সনের মতো তারকা স্ট্রাইকারের ফুটবল ক্যারিয়ার বেঁচে রইল।

প্রতিবেশি দেশ উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার দ্বন্দ্ব থাকায়, তাদের সঙ্গে সামরিক শক্তিতে পাল্লা দেয়ার জন্য, দ.কোরিয়ার সংবিধান অনুযায়ী প্রত্যেক পুরুষের ২১ মাসের সামরিক চাকরি বাধ্যতামূলক।

তবে এই ক্ষেত্রে দেশটির অ্যাথলেটদের জন্য কিছুটা শিথিলতা রয়েছে। যেমন এশিয়ান গেমসে স্বর্ণ জয় অথবা অলিম্পিকে যেকোনো পদক জয় তাদের এই চাকরি থেকে মুক্তি দিতে পারে।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের জায়ান্ট দল টটেনহ্যাম হটস্পারে খেলা স্ট্রাইকার সনের জন্য এবারই ছিল শেষ সুযোগ। কেননা ২৮ বছরের আগেই চাকরিতে বহাল হতে হয়। আর সনের বর্তমান বয়স ২৬।

এই বয়সে যদি সনকে সামরিক চাকরিতে যোগ দিতে হতো, তবে তার ফুটবল ক্যারিয়ারে বড় ধরনের ধস আসতে পারতো। প্রায় দু’বছর পর ফিরে আগের মতো ফুটবল দক্ষতা হারিয়ে ফেলতে পারেন তিনি। টটেনহামের মতো ক্লাব তাকে আর চাইবে কিনা রয়েছিল সেই সন্দেহও।

আর্থিক দিক দিয়েও ক্ষতিগ্রস্থ হতেন সন। বর্তমানে ইংলিশ ক্লাবটির সঙ্গে তার ৩০ মিলিয়ন ইউরোর চুক্তি। তবে সামরিক চাকরি করলে সেখান থেকে খুব বেশি আয় করতে পারতেন না।

এশিয়ান গেমসে মূলত অনূর্ধ্ব-২৩ দল নিয়ে খেলা হয়। তবে তিন জন বয়স্ক ফুটবলারকে নেয় যেতে পারে। এই ক্ষেত্রে সনের সঙ্গে আরও দুই সিনিয়র খেলেছেন।

তবে সোনা জিতে সব শঙ্কাকে উড়িয়ে দিলেন সন। এখন থেকে আবারও ফুটবল নিয়েই পড়ে থাকতে পারবেন তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৫০২ ঘণ্টা, ০১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
এমএমএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ফুটবল
উল্লাপাড়ায় ৩০ গণপরিবহনকে জরিমানা
গরীব-অসহায়দের বাড়িতে খাদ্য পৌঁছে দিলেন মন্ত্রী শ ম রেজাউল
ডিএনসিসির পরিচ্ছন্নতা-মশক নিধনকর্মীদের গ্লাভস-জুতা বিতরণ
সিলেটে রাস্তার পাশে পড়ে থাকা বিদেশি নাগরিক আইসোলেশনে
বশেফমুবিপ্রবিতে প্রস্তুত হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ 


নওগাঁয় মেয়েকে হত্যার অভিযোগে মা আটক
করোনা আতঙ্কে কষ্টে দিন কাটছে ছিন্নমূল মানুষের
ট্রাকে যাত্রী বহন করায় ১১ চালককে জরিমানা
করোনা: ডেমরায় পুলিশের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ
হাসপাতালে রাধিকা আপ্তে!