ভুটানকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করে ফাইনালে বাংলাদেশের মেয়েরা

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ভুটানের বিপক্ষে জয়ের পর উচ্ছ্বসিত বাংলাদেশের মেয়েরা

স্বাগতিক ভুটানকে তাদের মাটিতেই ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করে সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবল আসরের ফাইনালে পা রেখেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। ফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ ভারত।

ম্যাচের শুরু থেকেই ভুটানকে নিয়ে রীতিমত ছেলেখেলা করেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। খেলা শুরুর ১৮ মিনিটের মাথায় ভুটানের জালে প্রথম গোল দেন সেন্টার ব্যাক আনাই মগিনি। ভুটানের ডিফেন্সকে ফাঁকি দিয়ে করা তার এই গোলের পর ৩৮ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন তারই যমজ বোন আনি চিং মগিনি। এর কিছুক্ষণ পরেই ব্যবধান আরও একধাপ বাড়িয়ে দেন তহুরা খাতুন। ৩-০ ব্যবধান নিয়েই বিরতিতে যায় দুই দল।

ম্যাচের চতুর্থ গোলটি আসে অধিনায়ক মারিয়া মান্ডার পা থেকে। ৬৯ মিনিটে করা তার এই গোলের পর আরও বেশ কয়েকবার আক্রমণে যান মারিয়া মান্ডারা। শেষ পর্যন্ত ৮৬ মিনিটে ভুটানের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন শাহেদা আক্তার রিপা।

মেয়েদের সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে আজ বাংলাদেশ মুখোমুখি হয় স্বাগতিক ভুটানের। চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাতটায় শুরু হয় খেলাটি। 

প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের জালে ১৪ গোল ও দ্বিতীয় ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে ৩-০ গোলের জয় নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে খেলতে নেমে ভুটানকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে বাংলাদেশ। 

দিনের অন্য সেমিফাইনালে নেপালকে ২-১ গোলে হারিয়ে ফাইনালে পা রেখেছে ভারত।

আগামী শনিবার (১৮ আগস্ট) ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশের মেয়েরা।

দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বাংলাদেশের মেয়েদের কাছে কোনো দলই পাত্তা পাচ্ছে না। এখন ফাইনালে ভারতকে হারাতে পারলেই শিরোপা জয়ের উচ্ছ্বাসে ভাসবে মারিয়া মান্ডাবাহিনী, সাথে পুরো বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ সময়: ২০৪৫ ঘণ্টা, আগস্ট ১৬, ২০১৮
এমএইচএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ফুটবল
ভিয়েতনাম মিশনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন 
ময়মনসিংহে ডিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদকবিক্রেতা নিহত
চকবাজারে এখনও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যদের সতর্ক অবস্থান
টিভি ব্যক্তিত্ব স্টিভ আরউইনের জন্ম
চকবাজার ট্র্যাজিডি তদন্তে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কমিটি


চকবাজার ট্র্যাজিডিতে যুক্তরাষ্ট্রের শোক       
ফেরত এলো ভারতে পাচার ২৭ নারী-শিশু
চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের শোক
অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেন ড. কামাল
পুরান ঢাকায় হয় কারখানা থাকবে নয় বাড়িঘর