ওজিলের বর্ণবাদের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান জার্মানির

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মেসুত ওজিল-ছবি: সংগৃহীত

রাগে, ক্ষোভে, দুঃখে জার্মানি জাতীয় দল থেকে অবসরই নিয়ে নিলেন মেসুত ওজিল। তারকা এ মিডফিল্ডারের অভিযোগ ছিল খোদ নিজ দলের সংস্থা জার্মান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (ডিএফবি) ওপরই। যেখানে তারা নাকি ‘বর্ণবাদী’ আচরণ করেছে তার সঙ্গে। তবে এমন অভিযোগ সরাসরি অস্বীকার করে নিল জার্মান এফএ।

এ ব্যাপারটি স্পষ্টভাবে প্রত্যাখ্যান করার পাশাপাশি জার্মান এফএ অবশ্য জানিয়েছে, অবমাননা থেকে তাকে রক্ষা করতে আরও কিছু করতে পারতো তারা।

এর আগে জার্মান ফুটবলের ওপর ‘বর্ণবাদ ও অসৌজন্যমূলক’ আচরণের অভিযোগ তুলে ওজিল সোমবার অবসর প্রসঙ্গে বলেন, ‘জার্মানির হয়ে আর খেলতে চাই না।’

২৯ বছর বয়সী এ মিডফিল্ডার জানান, বিশ্বকাপে জার্মানির ভরাডুবির পর থেকে তিনি হুমকি ও বাজে ই-মেইল পেয়ে আসছেন। তবে ওজিলের অবসরের পর ডিএফবি আনুষ্ঠানিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করেছে।

এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা বর্ণবাদের ব্যাপারটি পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করছি। ডিএফবি বহু বছর ধরে জার্মানির জাতীগত ঐক্য তৈরিতে কাজ করে আসছে।’এরদোগানের সঙ্গে এই ছবিটি তুলেই যতো সমালোচনাওজিলের সঙ্গে জার্মানি ফুটবল থেকে শুরু করে সমর্থকদের মধ্যে ঝামেলাটি শুরু হয় মূলত রাশিয়া বিশ্বকাপের আগে থেকেই। যেখানে লন্ডনে তার্কিস প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাকে আর্সেনালের জার্সি উপহার দেন তুরস্ক বংশদ্ভুত ওজিল।

সে সময় উপস্থিত ছিলেন জার্মানির আরেক তার্কিস ফুটবলার ইকলে গুন্ডোগান। কিন্তু তিনি পরে দুঃখ প্রকাশ করেন। তবে ওজিলের কাছে এই সাক্ষাতের সুস্পষ্ট ব্যখ্যা চায় ডিএফবি। যেখানে রাজনৈতিক কারণে জার্মানির সঙ্গে তুরস্কের বৈরিতা রয়েছে।

পরবর্তীতে রাশিয়া বিশ্বকাপে জার্মানি ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হয়েও গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয়। আর দলের এই বিদায়ে জার্মান সমর্থকরা ওজিলকেই দায়ী করেন।

বাংলাদেশ সময়: ০৮৫৬ ঘণ্টা, ২৪ জুলাই, ২০১৮
এমএমএস

মেসির হ্যাটট্রিকে বার্সার জয়
ডিজিটাল কেওয়াইসি চালু করলো নগদ
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে দুই ডাকটিকিট
চকবাজারে ফের আগুন আতঙ্ক, ছোটাছুটিতে আহত ৭
চকবাজার ট্র্যাজেডি: কারণ অনুসন্ধানে আইইবি’র কমিটি


‘সংস্কৃতিচর্চা জাতিকে অশুভ শক্তি থেকে বিরত রাখে’ 
শেষ ছুটির দিনে প্রাণবন্ত বইমেলা
উত্তরায় বাসের ধাক্কায় কিশোরের মৃত্যু
চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আব্বাস, সম্পাদক ফরিদ
‘ঢাকাকে সুন্দর-আধুনিক শহরে পরিণত করবো’