বছরের সেরা শব্দ ‘ক্লাইমেট ইমার্জেন্সি’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

‘ক্লাইমেট ইমার্জেন্সি’ আন্দোলন, ছবি: সংগৃহীত

walton

ছবির মতো একটি শব্দও অনেক সময় হাজার কথার জবাব দিতে সক্ষম। শুধু তা-ই নয়, এমনও শব্দ আছে, যেগুলো বড় বড় ঘটনার, প্রতিকূল পরিস্থিতির স্পষ্ট প্রতিনিধিত্ব করে। এমনই একটি বিশাল শব্দ- ‘ক্লাইমেট ইমার্জেন্সি’। বাংলায় যাকে বলা যায় ‘জলবায়ুর জরুরি অবস্থা’।

যে শব্দটি বিশ্বব্যাপী উষ্ণায়ণের কারণে এ বছরের সেরা শব্দ নির্বাচিত হয়েছে অক্সফোর্ড ইংলিশ ডিকশনারির জরিপে। প্রতিষ্ঠানটির সম্পাদকমণ্ডলীরা বলেছেন, ২০১৯ সালের পরিস্থিতির প্রতিনিধিত্ব করে এমন একটি শব্দ ক্লাইমেট ইমার্জেন্সি। যাকে আমরা এ বছরের সেরা শব্দ হিসেবে বেছে নিয়েছি।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, ২০১৯ সালে ক্লাইমেট বা জলবায়ু শব্দটির সঙ্গে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত শব্দ হলো ইমার্জেন্সি বা জরুরি অবস্থা। এই ‘দুটি শব্দ’ মিলে ‘একটি হয়ে’ বিশ্ব জলবায়ু পরিস্থিতির ব্যাখ্যায় বিপুল ব্যবহৃত হয়েছে। এমনকি বছরটিতে হেলথ ইমার্জেন্সির চেয়েও দ্বিগুণের বেশি অনুসন্ধানে ছিল ক্লাইমেট ইমার্জেন্সি।

অক্সফোর্ড ডিকশনারির কর্মকর্তাদের মতে, কয়েক কোটি লিখিত ইংরেজি শব্দের ভাণ্ডারে ক্লাইমেট ইমার্জেন্সির ব্যবহার ২০১৯ সালে এসে ব্যাপক বৃদ্ধি পায়। বিশেষ করে গত সেপ্টেম্বরে এটি আগের তুলনায় একশ গুণেরও বেশি ব্যবহার হয়।

ক্লাইমেন্ট ইমার্জেন্সি শব্দটির ব্যাখ্যায় অক্সফোর্ড বলছে, এটি এমন একটি পরিস্থিতি, যা জলবায়ু পরিবর্তন, হ্রাস বা বন্ধ, পরিবর্তনের ফলে পরিবেশের ক্ষতি এবং তা মোকাবিলায় কী কী করণীয়, এসবের ব্যাখ্যা দেয়। নির্দেশনা দেয় জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার। সচেতন করে সংশ্লিষ্টদের।

অক্সফোর্ড ডিকশনারি ২০০৪ সাল থেকে প্রতিবছর সেরা শব্দ বা অভিব্যক্তি নির্বাচন করে আসছে। ১২ মাস যে শব্দটি সবচেয়ে বেশি দৃষ্টি আকর্ষণ করে, বছরের শেষে সেটিই তাদের সেরা অভিব্যক্তি। তবে একটি শব্দের ব্যবহারের পরিমাণ ও সাংস্কৃতিক প্রভাবের অন্যান্য সূচকের ভিত্তিতেও সেরা শব্দটি নির্বাচন করা হয়।

‌এর আগে ২০১৮ সালে অক্সফোর্ডের সেরা শব্দ ছিল ‘টক্সিক’। তখন কর্তৃপক্ষ বলেছিল, ‘টক্সিক’ শব্দটি বিভিন্ন ঘটনা, অবস্থান ও পরিস্থিতিতে বিপুল ব্যবহার হয়েছে। বিশেষ করে এ শব্দটি সমাজে একটা ইতিবাচক বার্তা বহন করছে। স্বাস্থ্য ও পরিবেশ সতর্কতায় শব্দটি বহুবার ব্যবহার হয়েছে। এছাড়া ক্রমাগত প্লাস্টিক দূষণ বৃদ্ধি পাওয়ায় ‘টক্সিক প্লাস্টিক’ নামে শব্দবন্ধ তৈরি হয়।

ওই বছর টক্সিক শব্দটির পাশাপাশি ‘মি-টু’ শব্দের ব্যবহার এবং জনপ্রিয়তাও তুঙ্গে ছিল। বিভিন্ন ক্ষেত্রে শ্লীলতাহানির অভিযোগে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা মি-টু শব্দবন্ধে জড়িয়েছিলেন।

২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠানটির সেরা শব্দ ছিল ‘ইয়ুথকোয়েক’ বা ‘যুবকম্প’। সংস্কৃতি, রাজনীতি ও সমাজ পরিবর্তনে এ শব্দটির বিপুল ব্যবহার হয়।

বৈশ্বিক জনসংখ্যার ২৭ শতাংশকে বলা হচ্ছে, মিলেনিয়াল জেনারেশন বা সহস্রাব্দ প্রজন্ম। এরা ওই বছর বিশ্ব রাজনীতি, সংস্কৃতি ও সামাজিক ক্ষেত্রে যে পরিবর্তনের ধারা সূচনা করেছিল, সেটাই শব্দটির সেরা হওয়ার কারণ।

এরও আগে কান্না-হাসির ইমোজি, সেলফি, সিম্পল অ্যান্ড আনফ্রেন্ডের মতো শব্দ অক্সফোর্ড ডিকশনারিতে বর্ষসেরা সেরা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ০৭৫০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৯
টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: জলবায়ু আন্তর্জাতিক
গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি না মানার অভিযোগও এসেছে: কাদের
চাষিদের জন্য বিনা ভাড়ায় আম পরিবহন শুরু 
ইএসপিএন ক্রিকইনফোর স্বপ্নের ওয়ানডে একাদশে সাকিব
রামেক হাসপাতালের আইসিইউতে করোনা রোগীর মৃত্যু
কুড়িগ্রামে বাসের ধাক্কায় পথচারী নিহত


সারা দেশ কি সরকার গোরস্থান বানাতে চায়: রিজভী
পঞ্চগড়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইজিবাইকচালকের মৃত্যু
সাইকেলের ধাক্কায় পড়ে গেলেন বাইকের চালক
যাত্রী স্বল্পতায় মঙ্গলবারের সব ফ্লাইট বাতিল বিমানের
আসামে ভূমিধসে ২০ জন নিহত