php glass

খালেদার চিকিৎসা নিয়ে কথা বলার অধিকার কাদেরের নেই: ফখরুল 

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক। ছবি: বাংলানিউজ

walton

ঢাকা: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মনে করেন, তার দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে কথা বলার অধিকার ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেই।

শনিবার (২ নভেম্বর)  রাতে রাজধানীর গুলশানে দলের চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি মত দেন।
 
বিএনপি মহাসচিব জানান, সম্প্রতি ভারতের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার করা সব চুক্তির বিষয়ে জানানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী এবং তথ্য কমিশনের কাছে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

ফখরুল বলেন, (কারাবন্দি) খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা কী আছে, তা নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের কথা বলার কোনো অধিকার নেই। কারণ তিনি ডাক্তার নন। তিনি তার রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে বলছেন। আপনারা রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ বাদ দিয়ে মানবিক হোন। সাধারণ একটা বন্দির অধিকার আছে সুচিকিৎসা পাওয়ার। যেখানে দেশনেত্রী সুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে গেছেন। আর এখন তিনি কারও সাহায্য ছাড়া কিছুই করতে পারেন না। এটাতো বাস্তবতা। এটা কোনো নতুন কথা নয়। তাই আমরা বলি, এসব অসত্য  কথা বলে জনগণকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে এবং জনগণকে প্রকৃত সত্য থেকে দূরে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। এভাবে ধীরে ধীরে তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়ার জন্য এসব মিথ্যা কথা বলা হচ্ছে। ওবায়দুল কাদের সাহেবের কথায় অন্তত আমি বিস্মিত হয়েছি। তিনি যখন অসুস্থ হয়েছেন, আমরা তাকে দেখতে গিয়েছি খোঁজখবর রেখেছি এবং রোগমুক্তি কামনা করেছি। তাই খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে রসিকতা করা রাজনৈতিক শিষ্টাচারের লক্ষণ নয়।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর দিল্লি সফরে ভারতের সঙ্গে হওয়া চুক্তির বিষয় খোলাসা করার আহবান জানিয়ে ফখরুল বলেন, ভারতের সঙ্গে যেসব চুক্তি হয়েছে এসব বিষয়ে জনগণ জানতে চায়। কী কী চুক্তি হয়েছে জনগণের কাছে খোলাসা করুন। বারবার বলা হয়েছে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। কিন্তু আমাদের সমস্যা সমাধানের বিষয়গুলো আমরা লক্ষ্য করছি না। এ বিষয়ে আমরা প্রধানমন্ত্রী এবং তথ্য কমিশন বরাবর চিঠি দেবো।

জাতীয় দুর্নীতি আড়াল করার জন্যই সরকার বর্তমান শুদ্ধি অভিযান চালাচ্ছে অভিযোগ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, সরকার এবং তার মন্ত্রীরা জোরেশোরে বলছেন শুদ্ধি অভিযান চলছে। কিন্তু আমরা মনে করি জাতীয় দুর্নীতি  আড়াল করার জন্যই এসব ছোটখাট অভিযান চালানো হচ্ছে। পুরো জাতি আজ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়ে গেছে। সরকারের লোকেরা সরাসরিভাবেই এই দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। নিরপেক্ষ সংস্থার মাধ্যমে দুর্নীতির তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।      

মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন ও রবিতে সরকারি লোকদের নিয়োগ দেওয়ার যে প্রক্রিয়া চলছে তাতে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ করতে নিরুৎসাহিত হবে বলেও অভিমত দেন ফখরুল।  

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, মির্জা আব্বাস, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

লন্ডন থেকে স্কাইপের মাধ্যমে সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান

বাংলাদেশ সময়: ২১০৪ ঘণ্টা, নভেম্বর ০২, ২০১৯
এমএইচ/এইচএ/

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে কৃত্রিম সংকট তৈরির চেষ্টা!
মাস্টারকার্ডের পেমেন্ট সামিট ও গালা নাইট অনুষ্ঠিত
লন্ডনে বাংলাদেশ বইমেলার কেন্দ্রবিন্দু ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’
প্রাক-প্রাথমিকে পরীক্ষা নিলে ব্যবস্থা


ইউনেস্কো সংস্কৃতি মন্ত্রীদের ফোরামে বাংলাদেশ
বেশি দামে লবণ বিক্রি: ২ ব্যবসায়ীর অর্থদণ্ড
ভূরুঙ্গামারীতে ৩৫ টাকার লবণ বিক্রি ৬০, ব্যবসায়ীকে জরিমানা
বরিশালে বাড়তি দামে লবণ বিক্রি, ৮ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
প্রথমবার শীর্ষ শিকারি রাজ্জাক