php glass

আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদাকে মুক্ত করা সম্ভব নয়

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

প্রেসক্লাবে বক্তব্য রাখছেন খন্দকার মাহবুব হোসেন/ছবি: জি এম মুজিবুর

walton

ঢাকা: খালেদা জিয়াকে কোনো রাজনৈতিক মামলায় গ্রেফতার করা হয়নি। তার গ্রেফতার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার। তাই আইনি প্রক্রিয়া যতই আমরা বলি না কেন, সরকারের সদিচ্ছা ছাড়া তাকে মুক্ত করা যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন।

শুক্রবার (১ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবের মওলানা আকরাম খাঁ হলে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের আয়োজনে ‘খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে নাগরিক প্রতিবাদ’ সভায় তিনি এসব মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, তাকে (খালেদা) মুক্ত করতে হলে একমাত্র উপায় রাজপথ উত্তপ্ত করা। যতদিন পর্যন্ত রাজপথ উত্তপ্ত না হবে ততোদিন খালেদা জিয়াকে আইনি প্রক্রিয়ায় জেল থেকে বের করা যাবে না। 

খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আজকে সময় এসেছে, জাতি উপলব্ধি করেছে। খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে আমরা নির্বাচন করেছি, সে নির্বাচন করা কতটা সঠিক হয়েছে আমাদের নেতারা তার একদিন জবাব দেবেন। এবং ইতিহাসও সে কথা বলবে।

তিনি বলেন, গণতন্ত্র ও প্রহসনের নির্বাচন সব কিছুই বলা হবে কিন্তু সবার আগে থাকবে খালেদা জিয়াকে মুক্তির আন্দোলন। তার মুক্তির বিনিময়ে যা কিছু দরকার রাজপথ উত্তপ্ত করে, আন্দোলন করে, সবকিছু করে তার মুক্তির ব্যবস্থা আমাদের করতে হবে। ঐক্যফ্রন্ট এবং বিএনপি নেতাদের প্রতি অনুরোধ করবো আপনারা একটিমাত্র ইস্যুতে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করুন, সেটা হল খালেদা জিয়ার মুক্তি।

বিএনপির এ নেতা বলেন, আজকের সরকার প্রতারণা করে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং প্রশাসনের সহায়তায় ক্ষমতায় এসেছে। বঙ্গবন্ধু বাকশাল করেছিলেন, আইন করে একদল করেছিলেন। এবার শেখ হাসিনা প্রহসনের ভোটে দ্বারা একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করেছেন। আগামী নির্বাচন অতি শিগগিরই হবে। জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা থেকে বঞ্চিত করে কোনো সরকার বা দল ক্ষমতায় থাকতে পারবে না। এ সরকারকেও সরে যেতে হবে।

মাহবুব হোসেন আরও বলেন, দাবি ছিলো মানুষের গণতন্ত্রকে হত্যা করে যে দল ঐক্যবদ্ধভাবে একটি নিরপেক্ষ নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে। সে দাবি বাদ দিয়ে মানুষের অধিকার আদায়ে, ভোটের অধিকার আদায়ের জন্য একটি নির্বাচনে গিয়েছিল। তাদের প্রতারিত করা হয়েছে এবং জনসম্মুখে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়েছে। কারণ, মানুষ অনেক আশা নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের আহ্বানে ভোট দিতে গিয়েছিল। তা থেকে তারা বঞ্চিত হয়েছিল। আর আজকে সেই দলকেই আপনারা চা-চক্রে আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন, এর চেয়ে বড় পরিহাস আর হতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, আইনের সাধারণ প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা কঠিন হবে। কারণ বর্তমান সরকার সমস্ত প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তাই, আইনের শাসন প্রক্রিয়ার উপর নির্ভর করে খালেদা জিয়াকে আইনি প্রক্রিয়ায় বের করতে পারবো বলে আমি আগেও বিশ্বাস করতাম না, এখনও বিশ্বাস করছি না।

প্রতিবাদ সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, নাগরিক আন্দোলন ফোরামের উপদেষ্টা সাঈদ আহমেদ আসলাম প্রমুখ।

নাগরিক প্রতিবাদ সভা সঞ্চালনা করেন নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এম জাহাঙ্গীর আলম।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৩২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০১, ২০১৯
ডিএসএস/এসএইচ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: বিএনপি
নানা আয়োজনে যশোরে হানাদারমুক্ত দিবস পালন
বিএনপি আইন-আদালত মানে না: নাসিম
ডিসি হিল সংস্কৃতিচর্চার জন্য উন্মুক্ত করার দাবি
বিশ্বকাপ নয়, আপাতত বিপিএল নিয়েই ভাবছেন সানি
ধরে নিয়ে যাওয়া ২ জেলেকে ফেরত দিলো বিএসএফ


মৌসুমের শুরুতেই ভোলায় জেঁকে বসেছে শীত
মঞ্চ প্রস্তুত, উদ্বোধনের অপেক্ষা
চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন মাহফুজুর রহমান খান
ঢাকায় তেল-গ্যাস রক্ষা কমিটির মহাসমাবেশ ৩ এপ্রিল
সন্তানকে বাঁচাতে পারলেও মারা গেলেন বাবা