খালেদার বাড়ির খাবারে নিষেধাজ্ঞা অমানবিক: মির্জা ফখরুল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ব্রিফিং করছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: বাংলানিউজ

walton

ঢাকা: ঈদের দিনে খালেদা জিয়ার জন্য কারাগারে স্বজনদের নেওয়া খাবার দিতে কারা কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘটনা ‘অমানবিক’ অভিহিত করে এর নিন্দা জানিয়েছে বিএনপি।

বুধবার (২২ আগস্ট) রাতে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর একথা জানান। 

তিনি বলেন, ‘আগেই কারা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে তার পরিবারের সদস্যরা দুপুরে খাবার নিয়ে কারাগারে গিয়েছিলেন। এটা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে নিয়েছিলেন তারা (স্বজনরা)। তারপর সেখানে যাওয়ার পরে বলা হয়, ছয়জনের বেশি কেউ দেখা করতে পারবেন না এবং খাবার নিয়ে যেতে পারবেন না। এটা নজিরবিহীন ঘটনা।’

‘দেশনেত্রী খালেদা জিয়া, তিনি তিনবার এই দেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, দুইবার বিরোধী দলের নেতা ছিলেন, তিনি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সবচেয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছেন তার সঙ্গে যে আচরণটা আজকে করা হয়েছে এটা অমানবিক। অতীতে কখনো এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি। আমরা এর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

আরো পড়ুন>>
**
এবারও খালেদার ঈদ কাটছে কারাগারেই
**খালেদা জিয়াকে বাড়ির খাবার দেওয়া হয়নি

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ঈদের দিনে বাসার খাবার কারাগারে নিতে দেওয়া হয়নি। এটা নজিরবিহীন। সেজন্য দেশনেত্রী খালেদা জিয়া না খেয়েই ছিলেন বলে আমরা জানতে পেরেছি।’

‘গত ঈদেও খাবার নিয়ে যাওয়া হয়। এবার কেনো এমন হলো? আর গতকাল (মঙ্গলবার) প্রধানমন্ত্রী যেভাবে কথা বলেছেন সেটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।’
 
অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘কারা কর্তৃপক্ষ দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার স্বজনদের বলেছে যে, এটা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ, সরকারের নির্দেশ।’

’আমাদের দেশের কারাগার চলে জেল কোড অনুযায়ী। এখানে আইজি প্রিজন হচ্ছেন বড় কর্তৃপক্ষ ও সিদ্ধান্ত প্রদানের ব্যক্তি। সেই আইজি প্রিজন যখন বলেন, আমি কিছু করতে পারছি না। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ আছে।’

কারা কর্তৃপক্ষকে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার সঙ্গে জেলকোড অনুযায়ী আচরণের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এ দেশের জনগণ তাদের এই আচরণকে কখনো ক্ষমা করবে না।’

স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, গত ঈদুল ফিতরের দিনে কারাগারে ২০ জনকে দেশনেত্রীর সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয়। বাসা থেকে খাবার নিতে দেওয়া হয়েছে। আড়াই মাসে দেশে আইনের কোনো পরিবর্তন হয়েছে কী?, কারাবিধির কী কোনো পরিবর্তন হয়েছে? কেনো ৬ জনের বেশি যেতে পারবে না, কেনো খাবার দিতে পারবে না?

‘আমরা মনে করি এসব আচরণ নিপীড়ন-নির্যাতনমূলক ও অত্যাচারী আচরণ। এটা কোনোভাবে গ্রহনযোগ্য নয়।’

এর আগে দুপুরে স্বজনরা কারাফটকে যান খালেদা জিয়ার ২০ স্বজন। তবে প্রায় ঘণ্টাখানেক পর অপেক্ষার পর ছয়জনকে দেখা করার অনুমতি দিলেও বাসা থেকে রান্না করা খাবার নিয়ে কারাগারে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। 

তবে এর আগে দুপুরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েও কারা কর্তৃপক্ষের অনুমতি না মেলায় ফিরে যান বিএনপির শীর্ষ নেতারা।   

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ৫ বছরের সাজার পর বিএনপি চেয়ারপারসন নাজিম উদ্দিন রোডের পুরাতন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারগারে বন্দি রয়েছেন খালেদা জিয়া। সঙ্গে রয়েছেন তার গৃহকর্মী ফাতেমা বেগম। 

বাংলাদেশ সময়: ২১৪৮ ঘণ্টা, আগস্ট ২২, ২০১৮
এমএইচ/এমএ

বিনামূল্যে পিপিই সরবরাহ করার ঘোষণা ফর্টিস গ্রুপের
কোভিড-১৯ ঠেকাতে কমলনগরের হাট-বাজারে ‘সামাজিক দূরত্ব চিহ্ন’
বই-টেলিভিশন আর পরিবার নিয়ে কাটছে সময়
বন্ধ কারখানা শ্রমিকদের বাসায় থাকতে হবে, পাবেন বেতন
করোনা: বরিশালের সব চায়ের দোকান বন্ধ


করোনা: ৫০ লাখ ইউরো দান করলেন ডর্টমুন্ড অধিনায়ক রয়েস
করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় 
মিরপুর স্টেডিয়াম চিকিৎসার জন্য দিতে প্রস্তুত বিসিবি
বগুড়ায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু, ১৫ বাড়ি লকডাউন
ভারতীয় নাগরিকদের আতঙ্কিত না হওয়ার অনুরোধ রীভা গাঙ্গুলির