এখন জটলা করবেন না

রিয়াজুল হক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

রিয়াজুল হক।

walton

১। বিকেলে কিংবা সন্ধ্যার সময় চা-সিগারেট খাওয়ার জন্য কেউ কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা একটা বেঞ্চের উপর ৪/৫ জন করে বসে গল্প করছে আর চা-সিগারেট খাচ্ছে। সবাই যেন গল্পের ঝাঁপি নিয়ে একসঙ্গে বসেছে। ৮/৯ ঘণ্টা ঘরে থেকে যেন যুদ্ধ জয় করে ফেলেছে। যে কারণে তাদের গল্পও শেষ হয় না।

২। পাড়ার মোড়গুলোতে, অলি-গলিতে অল্প বয়সী ছেলেগুলো একসঙ্গে মিলিত হচ্ছে। একসঙ্গে বসে মোবাইলে গেম খেলা কিংবা চ্যাটিং করা এদের কাজ। কেউ কারও সঙ্গে কথা বলে না। সবাই ব্যস্ত নিজেদের মোবাইল নিয়ে। যে কাজ এরা বাড়ির বাইরে এসে করছে, এটা তো বাড়ি বসে করলেই হয়।

৩।‌ যারা অসহায় মানুষগুলোকে চাল-ডাল-আলু-পেঁয়াজ-তেল-লবণ দিয়ে সহায়তা করছেন, তারা অবশ্যই খুব ভালো কাজ করছেন। তবে সোশ্যাল মিডিয়াসহ বেশ কয়েক জায়গায় দেখলাম, ১৫/২০ জন একসঙ্গে একটি প্যাকেট/বস্তা ধরে একজনকে দিয়ে সহায়তা করছেন। কিন্তু করোনা ভাইরাসের যে ধরন, তাতে একসঙ্গে ১৫/২০ জন একত্র হয়ে যে কিছু করবেন, তাতে নিজেদেরই ক্ষতি হবার সম্ভাবনা বেশি।

আর যদি কোনো একজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হন এবং একজোট হয়ে চলাফেরা করেন, তাহলে তার থেকে হাজার হাজার মানুষ কিন্তু আক্রান্ত হতে পারেন।

তাই গরিব, অসহায় মানুষকে সহায়তা করার সময় বাড়তি সর্তকতা অবলম্বন করা উচিত। সম্ভব হলে ওয়ান-টু-ওয়ান প্রথার মাধ্যমে সহায়তার খাদ্যসামগ্রী তাদের হাতে তুলে দিন। কিংবা একটা বড় পরিসরে ফাঁকা ফাঁকা করে খাদ্যের প্যাকেট/বস্তাগুলো সাজিয়ে রাখুন, সেখান থেকে মানুষজন নিয়ে যাবে। এতে নিরাপদ থেকে কাজগুলো করা সম্ভব।

৪। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হলো। বাচ্চারা যেন ঘরে থাকে। আর আমাদের অভিভাবকরা পরিবার নিয়ে পর্যটন এলাকায় ভিড় শুরু করলো। অবস্থাটা এমন যেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ দেওয়া হয়েছে পরিবার নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর জন্য।

সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। সরকারের খুবই সুন্দর একটা উদ্যোগ। উদ্দেশ্য একটাই, সবাই যেন ঘরে থাকে। নিরাপদ থাকে। করোনা ভাইরাস যেন ছড়িয়ে মারাত্মক আকার ধারণ না করতে পারে। আর ছুটি ঘোষণার পর পরই দেখা গেলো ট্রেনের কাউন্টার, বাস, ফেরিতে উপচে পড়া ভিড়। এগুলো বোকামি ছাড়া আর কি হতে পারে?

সবাইকে গ্রামে কিংবা নিজ শহরে এখনই কেন যেতে হলো? এই সাধারণ ছুটি তো আনন্দ উপভোগ করবার জন্য নয়। যারা চলে গেছেন, এখন সেখানে অন্তত যে যার ঘরে থাকি। সেটাই আমাদের জন্য সর্বাপেক্ষা মঙ্গল। শহরের গল্প অন্যদের সামনে করার সময় পরে পাওয়া যাবে।

৫। আমাদের প্রত্যেকের অবশ্যই সচেতন হওয়া উচিত। সময়টা এখন একসঙ্গে বসে গল্প করার নয়। ভালো থাকতে চাইলে সবাইকেই এখন ঘরে থাকতে হবে। কোনটা যে আমাদের জন্য ভালো, কোনটা মন্দ সেটা ভুলে গেলে চলবে কেন? নিজেদের স্বার্থেই সচেতন হতে হবে। সে কারণেই আসুন, কয়েকটা দিন প্রত্যেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখি। নিজেরা ভালো থাকি, অন্যদেরকেও ভালো রাখি।

লেখক: রিয়াজুল হক, যুগ্ম-পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৪, ২০২০

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: করোনা ভাইরাস
সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে ‘নির্বাহী আদেশে সই করবেন ট্রাম্প’
ঝড়ে লালমোহনে শতাধিক ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত
করোনা উপসর্গ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্তের মৃত্যু
উত্তর কোরিয়ার ব্রিটিশ দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা
বিরামপুরে অ্যালকোহল পানে আরও ৪ জনের মৃত্যু


কবে আগের মতন কাজ করতে পারমু?
চিড়িয়াখানায় প্রাণীরা মহানন্দে, বাচ্চা দিয়েছে জিরাফ-জলহস্তী
ঈদের বন্ধেও পর্যটকশূন্য বান্দরবান
খুলনা জেলা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক কাজল আর নেই
শেবাচিম হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে পুলিশ কনস্টেবলের মৃত্যু