আল্লাহর অশেষ নৈকট্য লাভের ইবাদত ই’তিকাফ

মুহাম্মাদ জহিরুল আমিন, অতিথি লেখক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মসজিদ। ছবি: বাংলানিউজ

walton

পার্থিব জীবন যে হঠাৎ থমকে যেতে পারে কোনো রকম নোটিফিকেশন ছাড়াই বর্তমান পরিস্থিতি আমাদের সেই বাস্তবতা হাড়ে হাড়ে শিখিয়েছে। চলে যেতে হবে, আমার প্রয়োজন ফুরাবে। ব্যস্ততা চিরদিনের জন্য শেষ হবে। সেই সময়ের আগেই প্রত্যেক মানুষের উচিত তার রবের কাছে রুজু করা। তার কাছে ফিরে যাওয়া। আর সেই ফিরে যাওয়া সময়ের উত্তম মৌসুম চলছে। রমাদান মাস। নিজেকে পরিশুদ্ধ করে নতুন করে ঈমানি সজীবতায় জেগে উঠার মাস। রমাদানের শেষ দশ দিনে সেই সজীবতা ফিরে পাওয়ার অন্যতম মাধ্যম হলো ই’তিকাফ। নিজেকে শুধুমাত্র আল্লাহর জন্য বেধে ফেলা হলো ই’তিকাফ।

বলতে হয়, আমরা নিজেকে অনেক ব্যস্ত মনে করি। ই’তিকাফ করার জন্য বয়স্কদের কথা ভেবে থাকি। যদিও এখন পরিস্থিতি পাল্টে যাচ্ছে আলহামদুলিল্লাহ। আমাদের মনে রাখতে হবে রাসূল (সা.) ছিলেন রাষ্ট্রপ্রধান ও সেনাপতি। ছিলেন আরও অনেক কিছুরই দায়িত্বশীল। তিনি কখনোই ই’তিকাফ থেকে বিরত থাকতেন না। সুতরাং ব্যস্ততা যেন আমাদের আল্লাহ থেকে দূরে না সরাতে পারে।

আল-কুরআনের সূরা বাকারার ১২৫ নম্বর আয়াতে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআলা ইতেকাফ সম্পর্কে ইরশাদ ফারমান, ‘আর আমি ইবরাহিম ও ইসমাঈলকে আদেশ করলাম, তোমরা আমার গৃহকে তাওয়াফকারী, ইতেকাফকারী ও রুকু-সিজদাকারীদের জন্য পবিত্র রাখো।’

মদীনায় অবস্থানকালীন সময়ে রাসূলুল্লাহ (সা.) প্রতিবছরই ইতেকাফ পালন করেছেন। শত ব্যস্ততা সত্ত্বেও তিনি ইতেকাফ ছাড়েননি। ইতেকাফের ফযিলত সম্পর্কে মহানবী মুহাম্মদ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি রমজানের শেষ দশদিন ইতেকাফ করবে, সে ব্যক্তি দু’টি হজ ও দু’টি ওমরার সমপরিমাণ সাওয়াব পাবে।

ই’তিকাফের পরিচয়

ই’তিকাফের শাব্দিক অর্থ হলো নিজেকে আবদ্ধ করে রাখা, নিজের উপর কোনকিছু আবশ্যক করে নেওয়া। আর পরিভাষায় তা হলো, ‘দুনিয়াবী কর্ম থেকে অবসর গ্রহণ করে কেবল আল্লাহর জন্য রমাদানের শেষ দশ দিন মাসজিদে অবস্থান করা এবং লাইলাতুল কদর তালাশ করা।’

সাধারণত শেষ দশ দিনে রাসূলুল্লাহ (সা.) ই’তিকাফ করেছেন। তবে যে বছর তিনি ইন্তিকাল করেছেন সে বছর বিশদিন ই’তিকাফ করেছেন। (সহীহ বুখারী, কিতাবুল ই’তিকাফ বা ই’তিকাফ অধ্যায়)

ই’তিকাফের উদ্দেশ্য

ই’তিকাফের উদ্দেশ্য হলো, আল্লাহ তায়ালার নৈকট্য অর্জন। নিজের সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করিয়ে নেওয়ার বড় মাধ্যম এটি। ই’তিকাফের আলাদা কোনো মর্যাদা নেই। সর্বশ্রেষ্ঠ রাত লাইলাতুল ক্বদর খোঁজ করাই এটার মূল উদ্দেশ্য।

ই’তিকাফের স্থান ও নিষিদ্ধ কাজ

আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালা বলেন, আর যতক্ষণ তোমরা ই’তিকাফ অবস্থায় মাসজিদে অবস্থান করো, ততক্ষণ পর্যন্ত স্ত্রীদের সঙ্গে মেলামেশা করো না। (সুরা বাকারা, আয়াত-১৮৭)

সুনানু আবি দাউদের কিতাবুস সওম বা রোজা অধ্যায়ে আয়েশা (রা) থেকে হাদিস বর্নিত হয়েছে যার অনুবাদ হলো, ‘ই’তিকাফকারীর জন্য সুন্নাত হচ্ছে, সে কোনো রোগীর সেবা করতে মসজিদ থেকে বের হবে না। কোনো জানাযায় উপস্থিত হবে না। স্ত্রীর সঙ্গে সহবাস করবে না। (শরয়ী) প্রয়োজন ব্যতীত মসজিদ থেকে বের হবে না। সিয়াম ব্যতীত কোন ই’তিকাফ নেই। জামে মসজিদ ব্যতীত কোনো ই’তিকাফ নেই।’

তবে ইসলামী বিদ্বানদের মতে, খাওয়া ও পান করা, প্রস্রাব পায়খানা এবং শরিয়ত সমর্থিত কোনো কাজে বের হওয়া যাবে। তাছাড়া ই’তিকাফ অবস্থায় স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলা যাবে এবং স্ত্রী মাসজিদে এসে দেখা করতে পারবে (সহীহ বুখারী, কিতাবুল ই’তিকাফ বা ই’তিকাফ অধ্যায়)।

তাছাড়া ই’তিকাফকারীর জন্য বিছানা বা তাবুর ব্যবস্থা করা। সহীহ বুখারীর একই অধ্যায়ে রয়েছে যে, রাসূল (সা.) মাসজিদ থেকে মাথা বের করে দিতেন আর আয়েশা (রা.) পানি দিয়ে দিতেন অথচ আয়েশা (রা) তখন হায়েজ অবস্থায় ছিলেন।

পুরুষদের ন্যায় নারীদের জন্য ই’তিকাফ সুন্নত। কিন্তু তারা ঘরে ই’তিকাফ করবে। ই’তিকাফের জন্য ঘরের নির্দিষ্ট নামাজঘরকে ব্যবহার করা যেতে পারে। কারো নামাজের জন্য নির্দিষ্ট নামাজঘর না থাকলে নামাজের নির্দিষ্ট স্থানকে কাপড় দিয়ে ঘেরাও করে নেওয়া যেতে পারে।

হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) রমজানের শেষের দশ দিন ই’তিকাফ করেছেন ইন্তেকাল পর্যন্ত। এরপর তাঁর স্ত্রীরা ই’তিকাফ করেছেন।’ (বুখারি, হাদিস : ১৮৬৮, মুসলিম, হাদিস : ২০০৬)।

ই’তিকাফকারী অন্যকে সচরাচর সালাম দেবেন না, তবে কেউ তাকে সালাম দিলে তিনি তার উত্তর দিতে পারবেন। ই’তিকাফকারী ই’তিকাফরত অবস্থায় ইলম ও কুরআন শিক্ষা দিতে পারবেন। শরীয়তের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরও দিতে পারবেন। তবে এগুলো যেন এত বেশি না হয় যে, এতে ই’তিকাফের উদ্দেশ্য ছুটে যায়। ই’তিকাফকারী সবসময় নফল নামাজ, কুরআন তেলাওয়াত ও জিকিরের মধ্যে মশগুল থাকবেন।

...লেখক: প্রিন্সিপাল, মাদরাসাতুল ইত্তিহাদ, খুলনা।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪৮ ঘণ্টা, মে ১৩, ২০২০
এইচএডি/

করোনা উপসর্গে মৃত্যু: পরিবার পিছুহটায় দাফন করলো প্রশাসন
বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল বিশ্ব
ভার্চ্যুয়াল আদালতে সারাদেশে সাড়ে ২৭ হাজার আসামির জামিন
ভোলার মেঘনায় মিলছে না ইলিশ, কষ্টে দিন কাটছে জেলেদের
ছোটপর্দায় আজকের খেলা


কাশিমপুর কারাগারে হাজতির মৃত্যু
করোনা প্রমাণ করলো, পুলিশ জনগণের বন্ধু
গাজীপুরে কমেছে বায়ু দূষণ, বেড়েছে ফল-শাক-সবজির ফলন
‘পোলাডারে লইয়া বাঁচতে চাই’
উপকূলের জীবন-জীবিকা

‘পোলাডারে লইয়া বাঁচতে চাই’

বরিশালে ৮ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা