php glass

শীতে মজা খেজুর রস ও নলেন গুড়

সুদীপ চন্দ্র নাথ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি:বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

শীতকালের অন্যতম মজার খাবারের নাম খেজুরের রস ও খেজুরের রস দিয়ে তৈরি নলেন গুড়। নতুন ধানের চাল ও নলেন গুড় দিয়ে তৈরি পায়েস ও পিঠ‍াপুলির স্বাদ যেন ভোলাই যায় না।

আগরতলা: শীতকালের অন্যতম মজার খাবারের নাম খেজুরের রস ও খেজুরের রস দিয়ে তৈরি নলেন গুড়। নতুন ধানের চাল ও নলেন গুড় দিয়ে তৈরি পায়েস ও পিঠ‍াপুলির স্বাদ যেন ভোলাই যায় না।

তবে খেজুরের গাছ কমে যাওয়ায়, এসব খাবার গ্রাম-গঞ্জে আগের মতো তৈরি হয় না। আগে ভারতের ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলাসহ বিভিন্ন শহরের রাস্তার পাশে, খেতের আলে, খালি জায়গায় সারি-সারি খেজুর গাছ দেখা যেতো। এখন আর এ দৃশ্য খুব একটা চোখে পড়ে না।

তবে এখনও ত্রিপুরা রাজ্যের সিপাহীজলা জেলার সোনামুড়া মহকুমার মোহনভোগ, চন্দুল, কুকিয়াছড়াসহ বেশ কিছু এলাকায় খেজুর গাছ দেখা যায়। শীত এলেই এসব এলাকার গাছিরা খেজুর গাছ কেটে রস সংগ্রহ শুরু করেন। এ বছরও তারা রস সংগ্রহ ও সেই রস দিয়ে গাছিরা নলেন গুড় তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন।

চন্দুল এলাকার মজিদ মিয়া বাংলানিউজকে জানান, ২২ বছর ধরে তিনি খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে নলেন গুড় তৈরি করছেন। তিনি যখন প্রথমে নলেন গুড় বিক্রি শুরু করেন, তখন প্রতিকেজি গুড় ৬ রুপি কেজি করে সোনামুড়া মহকুমার বিভিন্ন বাজারে বসে বিক্রি করতেন।

তিনি এখন খুচরা বিক্রি বন্ধ করে পাইকারি বিক্রি শুরু করেছেন। পাইকাররা এ বছর কেজিপ্রতি ৯০ রুপি দিয়ে বাড়ি থেকে গুড় নিয়ে যাচ্ছেন। আর এই নলেন গুড় আগরতলাসহ রাজ্যের অন্যান্য বাজারে দেড়শ’ রুপি কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এ বছর মজিদ মিয়া মোট ৬০টি খেজুর গাছ কেটেছেন।

শীতের সকালে যখন কেউ লেপের উষ্ণতা ছেড়ে বের হতে চান না, তখন শীত উপেক্ষা করে গাছিরা ব্যস্ত হয়ে পড়েন রস সংগ্রহ করার কাজে। রস সংগ্রহ করার পর গাছি ও তাদের পরিবারের সদস্যরা মিলে এই রস একটি বড় কড়াইতে ঢেলে আগুনে জ্বাল দেন। দুই থেকে আড়ই ঘণ্টা ধরে আগুনে জ্বাল দিলেই তৈরি হয় নলেন গুড়।

অপর এক গাছি আনোয়ার হোসেন বাংলানিউজকে জানান, তিনি গত ৮ বছর ধরে খেজুর গাছ কাটার সঙ্গে যুক্ত। মূলত শীতকালের তিন মাস ধরে চলে এই কাজ। গত বছর শীতের মৌসুমে খরচ বাদ দিয়ে প্রায় ৫০ হাজার রুপি লাভ হয় তার।

এ বছর এখনও কাঁপিয়ে শীত পড়েনি। আগামী কিছু দিনের মধ্যে শীত বেশি করে পড়লে রসের পরিমাণও বাড়বে বলে আশা করছেন গাছিরা।

বাংলাদেশ সময়: ১০৩৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৬

এসসিএন/টিআই

খুলনায় পেঁয়াজ ক্রয়-গুজব প্রতিরোধের দাবি
চট্টগ্রামে কর্মকর্তাদের জন্য সরকারের ২৪৯৬ ফ্ল্যাট
পাবনায় ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে ২ জনের ফাঁসি
বরিশালে দিনে দুপুরে বাসায় চুরি
আগুন নিয়ন্ত্রণের পর চলছে ডাম্পিং


আসছে ‘মিশন এক্সট্রিম’র প্রথম পোস্টার
কুষ্টিয়ায় পৃথক মামলায় একজনের ফাঁসি, তিনজনের যাবজ্জীবন
দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত রেমিট্যান্সে কাগজপত্র ছাড়াই প্রণোদনা
সাক্ষী নিয়ে হাইকোর্টে ওসি মোয়াজ্জেমের আবেদন খারিজ
‘মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের ব্যবস্থাপনায় দুর্বলতা রয়েছে’