ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭, ০২ মার্চ ২০২১, ১৭ রজব ১৪৪২

জাতীয়

বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌবন্দর ব্যবহারে আগ্রহী ভারত

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৪৮ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১
বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌবন্দর ব্যবহারে আগ্রহী ভারত

ঢাকা: বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌবন্দর ব্যবহারে ভারত অত্যন্ত আগ্রহী বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী।

তবে এ জন্য বিদ্যমান নৌপথের বেশকিছু জায়গায় নাব্যতা বৃদ্ধিতে ড্রেজিং করা খুবই জরুরি এবং সংশ্লিষ্ট কিছু নীতিমালার সংস্কার প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) কার্যালয়ে সংগঠনের সভাপতি রিজওয়ান রাহমানের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় ভারতীয় হাইকমিশনার এসব কথা বলেন। সভায় ডিসিসিআইর পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় দোরাইস্বামী কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় ভারতীয় বিনিয়োগ বাংলাদেশে আকর্ষণ এবং এ দেশের বিনিয়োগ সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর জন্য উভয় দেশের ব্যবসায়ীদের একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান।

ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, বেনাপোল এবং পেট্রপোলসহ বাংলাদেশের সকল স্থলবন্দর সমূহের ভৌত অবকাঠামো এবং প্রযুক্তিগত সুযোগ-সুবিধার উন্নয়ন আবশ্যক। কারণ, এ ধরনের সেবার অনুপস্থিতির কারণে পণ্য পরিবহনে দীর্ঘসূত্রিতার ফলে ব্যবসা পরিচালন ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে।

পণ্য পরিবহনে রেলপথ ব্যয় সাশ্রয়ী হওয়ায় বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার পণ্য আমদানি-রপ্তানিতে রেল পথের ব্যবহার বাড়ানোর ওপর জোরারোপ করেন তিনি। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশের রেল ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা বাড়ানোর আহ্বান জানানোর পাশাপাশি সিরাজগঞ্জে রেলওয়ের একটি কনন্টেইনার ডিপো স্থাপনেরও প্রস্তাব করেন দোরাইস্বামী।

ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশে উৎপাদিত ভোজ্যতেল অথবা আমাদানিকৃত ভোজ্যতেলের কমপক্ষে ২০ শতাংশ মূল্য সংযোজন করা সম্ভব হলে, তা ভারতে রপ্তানি করতে কোনো বাধা নেই।

তিনি বলেন, বিশেষ করে বাংলাদেশের ভোগ্যপণ্য সহ অন্যান্য পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে বিএসটিআইর সনদের সত্যয়ন যেন ভারতে গ্রহণযোগ্য হয়, তা নিয়ে ভারত সরকার কাজ করছে এবং এ বিষয়ে ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া সম্ভব হবে।

সমুদ্র পথে ঢাকা থেকে দিল্লিতে পণ্য পরিবহনের খরচ অত্যন্ত বেশি, যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় জানিয়ে তা কমিয়ে আনতে উভয় দেশের ব্যবসায়ী সমাজকে নিজ নিজ দেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনার পরামর্শ দেন ভারতের হাইকমিশনার।

ভারতের দিল্লিতে বাংলাদেশের রপ্তানিমুখী পণ্য সমুদ্র পথে পরিবহনের খরচ যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশসমূহের চেয়ে তুলনামূলক বেশি, যা উভয় দেশের বাণিজ্য সম্প্রারণের অন্যতম প্রতিবন্ধকতা হিসেবে উল্লেখ করেন ডিসিসিআই সভাপতি রিজওয়ান রাহমান। একই সাথে তিনি স্থলবন্দর সমূহের অবকাঠমো উন্নয়নে জোরারোপ করেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৭১০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১
এসই/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa