ঢাকা, বুধবার, ১৩ মাঘ ১৪২৭, ২৭ জানুয়ারি ২০২১, ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

জাতীয়

নারী-শিশুর প্রতি সহিংসতা বেড়ে যাওয়ায় টিআইবির উদ্বেগ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫২ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৬, ২০২০
নারী-শিশুর প্রতি সহিংসতা বেড়ে যাওয়ায় টিআইবির উদ্বেগ প্রতীকী ছবি

ঢাকা: করোনা সংকটকালে স্বাস্থ্য খাতে সংঘটিত অনিয়ম ও দুর্নীতি, নারী ও শিশুর প্রতি ক্রমশ সহিংসতা বৃদ্ধি এবং গণমাধ্যমের ওপর প্রাতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক চাপ বৃদ্ধিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)-এর বার্ষিক সভায় অংশ নেওয়া সদস্যরা। একইসঙ্গে, কোভিড-১৯ এর ন্যায় বৈশ্বিক বিপর্যয় মোকাবিলা ও টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় তরুণদের কার্যকর অংশগ্রহণ নিশ্চিত, কার্যকর, জবাবদিহিমূলক ও স্বচ্ছ প্রতিষ্ঠানের বিকাশ, ব্যাংকিং খাতের প্রতি সাধারণের আস্থা ফেরাতে সুস্থ ও নিরাপদ ব্যাংকিং ব্যবস্থা এবং দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে একটি সুশাসিত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নের আহ্বান জানানো হয়।

বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ভার্চ্যুয়াল সভায় টিআইবির সঙ্গে স্বেচ্ছাসেবারভিত্তিতে দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনে সম্পৃক্ত বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার ৪৪ জন সদস্য অংশ নেন।  

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এর সঞ্চালনায় সভায় সভাপতিত্ব করেন টিআইবির সাধারণ পর্ষদে সদস্যদের নির্বাচিত প্রতিনিধি কাজী মো. মোরতুজা আলী।  
সভায় উপস্থাপিত ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে টিআইবি পরিচালিত গবেষণা, অধিপরামর্শমূলক ও প্রচারণাসহ বিভিন্ন কার্যক্রম এবং সংশ্লিষ্ট আর্থিক হিসাবের সর্বোচ্চ মানসম্পন্ন নিরীক্ষা প্রতিবেদন সম্পর্কে সদস্যরা ইতিবাচক মন্তব্যের পাশাপাশি সার্বিক কার্যক্রমের বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।


বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দেশে বিদ্যমান দুর্নীতির মহোৎসব নিয়ন্ত্রণে দুর্নীতি দমন কমিশন ও অন্যান্য সংস্থার যথেষ্ট আইনগতভিত্তি থাকা সত্ত্বেও তারা সে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হওয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অংশগ্রহণকারীগণ। সদস্যরা মনে করেন, বিভিন্ন সময়ে টিআইবির কার্যক্রম ও গবেষণা প্রতিবেদন সম্পর্কে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বিরূপ মন্তব্য করা হয়, যা প্রকারান্তরে দায় এড়ানোর অপচেষ্টা বলে প্রতিয়মান হয়।

সভা শেষে এক ঘোষণাপত্রে উপস্থিত সদস্যরা সারা বিশ্বের ন্যায় করোনাকালে বাংলাদেশেও নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়ে যাওয়া এবং ন্যায় বিচার নিশ্চিতের অভাবে ধর্ষণের মতো ঘৃণ্য অপরাধ মহামারির মতো ছড়িয়ে পড়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা ও ধর্ষণ বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ হিসেবে অপরাধীর যথাযোগ্য শাস্তি নিশ্চিত করার জোরালো আহ্বান জানান। একইসঙ্গে, দুর্নীতিগ্রস্ত স্বাস্থ্য খাতের সংকট কোভিড-১৯ মহামারির কারণে আরও গভীরতর হয়েছে বলে মন্তব্য করার পাশাপাশি করোনা পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে দুর্নীতির নতুন সুযোগ তৈরি হয়েছে এবং তা ব্যবহার করে নিজেদের আখের গোছাতে সুযোগসন্ধানী, দুর্নীতিবাজ, দুর্নীতির সুবিধাভোগীরা পরস্পর যোগসাজশে দুর্নীতির মহোৎসবে নেমেছে। সরকার করোনা ভাইরাস মোকাবিলার বদলে এ সংক্রান্ত কার্যক্রম নিজ নিয়ন্ত্রণে রাখাটাকে বেশি প্রাধান্য দিয়েছে এবং এক ধরনের সংকোচনমূলক নীতি অবলম্বন করেছে। ফলে, তথ্য নিয়ন্ত্রিত হয়েছে এবং স্বাস্থ্যখাতে জনগণের অভিগম্যতা কমে গেছে বলে মন্তব্য করেন তারা।

দেশে মৌখিকভাবে স্বাধীন সাংবাদিকতা, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা এবং মুক্ত গণমাধ্যমের প্রচার থাকলেও বাস্তবে প্রাতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক উভয় পদ্ধতিতেই গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণের সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের যথেচ্ছ ব্যবহার জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে অত্যন্ত উদ্বেগের বিষয়ে পরিণত হয়েছে।  

তাই অবিলম্বে মুক্ত সাংবাদিকতার পথ উন্মুক্ত করতে সরকার ও সংশ্লিষ্ট সব মহলের কাছে জোর আহ্বান জানান সদস্যরা।

বাংলাদেশে দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনের কার্যক্রমে জনসম্পৃক্ততা বৃদ্ধিতে আগ্রহী বিভিন্ন পেশাজীবী ও সাধারণ নাগরিককে টিআইবি সদস্যভুক্ত করে আসছে। পাশাপাশি সারাদেশে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) ও ইয়ুথ এনগেজমেন্ট অ্যান্ড সাপোর্ট (ইয়েস) প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে স্বেচ্ছাসেবারভিত্তিতে যুক্ত রয়েছেন প্রায় সাত হাজার নাগরিক যাদের বেশির ভাগই হচ্ছেন তরুণ।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫২ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৬, ২০২০
এসই/এইচএডি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa