ঢাকা, রবিবার, ১০ কার্তিক ১৪২৭, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জাতীয়

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলের শোক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০
অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলের শোক অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

ঢাকা: বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, জাতীয় সংসদের স্পিকার, রাজনৈতিক দলসহ সংশ্লিষ্ট আরও অনেকে।

রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) পৃথক পৃথক শোকবার্তায় তারা মাহবুবে আলমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

এক শোকাবার্তায় জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ, পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, মৎস্য ও প্রাণী সম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন, পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান, বিজ্ঞান ও প্রযু্ক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শোকাবার্তায় মন্ত্রীরা বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম প্রায় ৪০ বছর ধরে চিনেন ও জানেন। তারা বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলাসহ অনেক মামলা একসঙ্গে পরিচালনা করেছেন। তাই মরহুমের সঙ্গে তার অনেক স্মৃতি রয়েছে। মরহুম মাহবুবে আলম নিজ কর্মগুণেই দেশের মানুষের কাছে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন। মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে দেশের আইন অঙ্গনে এক বিশাল শূন্যতা তৈরি হলো।

এছাড়া পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি, শ্রম প্রতিমন্ত্রী বেগম মুন্নুজান সুফিয়ান, তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, রাজশাহী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) এর মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন শোকবার্তায় বলেন, দীর্ঘ সাড়ে চার দশক প্রাজ্ঞ আইনি সেবাদানকারী মাহবুবে আলম আমৃত্যু দেশসেবার এক অনুসরণীয় উদাহরণ। এই প্রয়াত আইনাজ্ঞের মৃত্যুতে শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান ও বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন।  

রোববার সন্ধ্যা ৭টা ২৫ মিনিটে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান অ্যার্টনি জেনারেল মাহবুবে আলম।

উল্লেখ্য, মাহবুবে আলম ২০০৯ সালের ১৩ জানুয়ারি বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এই পদে বহাল ছিলেন। এর আগে ১৯৯৮ সালের ১৫ নভেম্বর থেকে ২০০১ সালের ৪ অক্টোবর পর্যন্ত অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

মাহবুবে আলম ১৯৪৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি মুন্সিগঞ্জ জেলার বর্তমান লৌহজং উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। আইন বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি নেওয়ার পর ১৯৭৫ সালে হাইকোর্টে আইন পেশায় যুক্ত হন তিনি। এরপর ১৯৮০ সালে আপিল বিভাগের আইনজীবী এবং ১৯৯৯ সালে সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। তিনি ২০০৪-২০০৭ মেয়াদে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হন এবং ১৯৯৩-৯৪ ও ২০০৫-২০০৬ মেয়াদে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির যথাক্রমে সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি নির্বাচিত হন।  

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৭ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০
জিসিজি/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa