ঢাকা, রবিবার, ১০ কার্তিক ১৪২৭, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জাতীয়

ভুয়া চাকরিদাতা ১৪ প্রতারক আটক, ৪৪ চাকরিপ্রার্থী উদ্ধার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০২২০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০
ভুয়া চাকরিদাতা ১৪ প্রতারক আটক, ৪৪ চাকরিপ্রার্থী উদ্ধার

ঢাকা: রাজধানীর মিরপুর ও মোহাম্মদপুর এলাকায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেওয়ার নাম করে প্রতারণার ফাঁদ পেতে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেওয়া ভুয়া চাকরিদাতা তিন প্রতিষ্ঠানের ১৪ প্রতারককে আটক করেছে র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব-৪)। এছাড়াও চাকরিপ্রার্থী ৪৪ জন ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে র্যাব-৪ এর সহকারী পরিচালক সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) জিয়াউর রহমান চৌধুরী বিষয়টি বাংলানিউজকে নিশ্চিত করেন।

আটকরা হলে, মামুন হোসেন বিল্লাল (৩৬), মো. উজ্জল মিয়া (২৫), মো. শরিফুল ইসলাম (২২), মো. সোহাগ খাঁন (২২), মো. আমানুল ইসলাম (২২), মো. জাকির হোসেন (২৪), মো. রায়হান (২০), ফোরকান উদ্দীন (৩০), মনিরুল ইসলাম (২৪), মো. রাহাত হাওলাদার (২৪), মো. আহাদ (২৫), মো. আবু রায়হান (২২), মো. সাহিবুর রহমান (২২) ও মো. আলিফ হোসেন (২০)।

জিয়াউর রহমান চৌধুরী জানান, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ও গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেল থেকে রাত সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত ‘দিকরা সিকিউরিটি এন্ড লজিস্টিক সার্ভিসেস লিমিটেড’ নামক একটি কোম্পানি চাকরিপ্রার্থী মানুষের কাছ থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেওয়ার নাম করে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে জেনে র্যাব-৪ এর একটি বিশেষ দল অভিযান চালায়।  

অভিযানে পল্লবীর দিকরা সিকিউরিটি এন্ড লজিস্টিক সার্ভিসেস লিমিটেড, কাজীপাড়ার আনোয়ারা লজিস্টিক এন্ড সিকিউরিটি সার্ভিসেস লিমিটেড ও আদাবরের আনোয়ার লজিস্টিক এন্ড সিকিউরিটি সার্ভিসেস লিমিটেড এ তিনটি শাখা থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ভুয়া চাকরিদাতা প্রতারক চক্রের ১৪ সক্রিয় সদস্যকে আটক করা হয়। এছাড়া ৪৪ জন ভুক্তভোগী চাকরিপ্রার্থী উদ্ধার করা হয়। এ সময়  আসামিদের কাছ থেকে ২৪টি ভর্তি ফরম বই, ১০টি ভিডিটিং কার্ডের বক্স, ৭০ পাতার  চাকুরির নিয়োগ ফরম, ৭টি ভুয়া নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, ৯৭ হাজার টাকা, ৫টি রেজিস্টার, একটি নোট বুক, একটি খাতা, ৫২ সেট চাকরীপ্রার্থীর জীবন বৃত্তান্ত, ৮টি সিল, দুটি পরিচয়পত্র, ৫টি ভুয়া পোস্টিং ফরম জব্দ করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে তিনি জানান, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অফিস ভাড়া করে বিভিন্ন নামে প্রতিষ্ঠান খুলে দেশের বিভিন্ন জায়গায় মধ্যশিক্ষিত বেকার ও নিরীহ যুবকদের চাকরি দেয়ার নাম করে ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে দীর্ঘদিন থেকে প্রতারক চক্রটি ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে লাখ-লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে। প্রতারক চক্রের মূল হোতা মামুন হোসেন বিল্লাল (৩৬)। তার তত্ত্বাবধানে উপরোক্ত ৩টি ভুয়া প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হতো। মামুন ছাড়াও পলাতক আরও ৪/৫ জন এই প্রতারণার কাজে জড়িত। পলাতকদের আটকের জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ০২১৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০
এমএমআই/এমকেআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa