ঢাকা, শনিবার, ৯ কার্তিক ১৪২৭, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জাতীয়

ভোলায় জোয়ারের পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, দুর্ভোগে মানুষ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭১৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০
ভোলায় জোয়ারের পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, দুর্ভোগে মানুষ পানিবন্দি এলাকা। ছবি: বাংলানিউজ

ভোলা: ভোলার মেঘনায় অতি জোয়ারে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ফলে পানিবন্দি হয়ে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন নদীর উপকূলবর্তী হাজারো মানুষ।

উজান থেকে নেমে আসা ঢল ও আমবশ্যার প্রভাবে পানি বেড়েছে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। যে কারণে বাঁধের বাইরের নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

রোববার (২০ সেপ্টম্বর) বিকেলে মেঘনার পানি বিপৎসীমার ৫৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। এতে ২য় দিনের মত তলিয়ে গেছে বিস্তীর্ণ জনপদ। অতি জোয়ারে জেলার সদর, মনপুরা, চরফ্যাশন, তজুমদ্দিন ও লালমোহন উপজেলার অন্তত ১৫টি নিচু এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে।

জোয়ারের পানিতে ফসলের ক্ষেত, রাস্তা-ঘাট, বসতভিটা ও পুকুর ঘেরসহ বিভিন্ন স্থাপনা তলিয়ে গেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন উপকূলের বিস্তীর্ণ জনপদের মানুষ।
 
ভোলা সদরের ধনিয়া ইউনিয়নের গঙ্গাকীর্তি ও কালাসুরা গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে বাঁধের বাইরের দুই গ্রামের পাঁচ শতাধিক মানুষ পানিবন্দি। জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে পুকুর, ঘের, রাস্তাঘাট ও ঘরবাড়ি। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন ওই সব মানুষ।
পানিবন্দি সাহেলা বলেন, দুই দিন ধরে পানিবন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছি। ঘরের আসবাপপত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আবু সায়েদ ও মহিউদ্দিন বলেন, দুটি গ্রামের বেশিরভাগ এলাকা ডুবে আছে। প্রতিদিন বিকেল ও রাতে পানি ওঠে। জোয়ার ভাটায় দিন কাটছে আমাদের।  

ভোলা পানি উন্নয়ন বোর্ড ডিভিশন-১ (পাউবো) উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান খান জানান, দুপুরের পর থেকে মেঘনার পানি বিপৎসীমার ৫৪ সেন্টিমিটার উপরে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে বাঁধের বাইরের বেশকিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭১০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa