ঢাকা, শনিবার, ১১ আশ্বিন ১৪২৭, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭ সফর ১৪৪২

জাতীয়

জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষে ২ দিনব্যাপী ওয়েবিনার শুরু

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৫৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০
জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষে ২ দিনব্যাপী ওয়েবিনার শুরু আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার

ঢাকা: ৭৫তম জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষে দুই দিনব্যাপী এক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার শুরু হয়েছে। ঢাকাস্থ নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর পিস স্টাডিজ এবং জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশনের যৌথ উদ্যোগে এই ওয়েবিনারের আয়োজন করা হয়েছে।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) আনুষ্ঠানিকভাবে এই ওয়েবিনারের কার্যক্রম শুরু হয়। উদ্বোধনী অধিবেশনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সেন্টার ফর পিস স্টাডিজের সমন্বয়ক ড. মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন। অধিবেশনে সূচনা বক্তব্য রাখেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাউথ এশিয়ান ইনস্টিটিউট অব পলিসি অ্যান্ড গভর্নেন্সের পরিচালক অধ্যাপক এস কে তৌফিক এম হক।  

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল ও ৭৫ তম জাতিসংঘ দিবস উদযাপনে জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ উপদেষ্টা ফাব্রিজিও হসচাইল্ড এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এম এ কাশেম।

ওয়েবিনারের দুই দিনে মোট ছয়টি অধিবেশনে বক্তব্য রাখবেন অর্ধ শতাধিক দেশি-বিদেশি বক্তারা। প্রতি দিন তিনটি করে ওয়েবিনার আয়োজিত হবে। ওয়েবিনারের শিরোনাম রাখা হয়েছে ‘মানুষের প্রয়োজনে জাতিসংঘ: বহুপাক্ষিকতার পুনঃর্বিবেচনা’।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাত সাড়ে ৮টায় সমাপনী অধিবেশনের মাধ্যমে শেষ হবে আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারটি। সাবেক পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হকের সঞ্চালনায় সমাপনী অধিবেশনে প্রধান হিসেবে বক্তব্য রাখবেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

‘গেস্ট অব অনার’ হিসেবে বক্তব্য রাখবেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়াল আলম। এছাড়াও আরও বক্তব্য রাখবেন বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি মিয়া সেপ্পো এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম।

ফাব্রিজিও হসচাইল্ড বলেন, এবছর জাতিসংঘ তার ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করতে যাচ্ছে। এটা এমন একটা সময় যখন পৃথিবী করোনা মহামারি মোকাবিলা করছে। আর ঠিক এই সময় বহুপক্ষীয় আলোচনার বিষয়গুলো আমাদের নতুন করে ভাবিয়ে তুলছে। এটা সত্য যে মহামারির এমন সময় আমরা দেখেছি যে বহুপাক্ষিক আলোচনার গতানুগতিক ধারা সবসময়ই কার্যকর হয় না। এর জন্য আমরা জাতিসংঘ থেকে নানামুখী পদক্ষেপ নিচ্ছি। চলতি বছরে আমরা আমাদের অংশীদারগুলোর সঙ্গে সহস্রাধিক বৈঠক করেছি। এর থেকে আমরা মিলিয়ন সংখ্যক পরামর্শ পেয়েছি। মহামারি শেষে এটাই আমাদের কাজ হবে যে আমরা বিষয়গুলো নিয়ে একে অপরের সঙ্গে আরও আন্তরিকতার সঙ্গে কাজগুলো করি। আমাদেরকে একে অপরের সঙ্গে আরও যোগাযোগ রক্ষা করে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। আর এভাবেই জাতিসংঘ মানুষের প্রয়োজনে তাদের পাশে থেকে সাহায্য করতে পারবে বলে আমার বিশ্বাস।  

বাংলাদেশ সময়: ১২৫৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০
এসএইচএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa