ঢাকা, শনিবার, ৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০ সফর ১৪৪২

জাতীয়

সিংড়ার বিলদহরে বাঁধ নির্মাণের দাবি

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮২৯ ঘণ্টা, আগস্ট ১২, ২০২০
সিংড়ার বিলদহরে বাঁধ নির্মাণের দাবি সিংড়ার বিলদহরে বাঁধ নির্মাণের দাবি

নাটোর: নাটোরের সিংড়া উপজেলার চামারী ইউনিয়নের বিলদহর বাজার সংলগ্ন নদীর পাড়ে বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দা ও ব্যবসায়ীরা।

অপরদিকে, কলম ইউনিয়নের পার সাঔল স্কুল সংলগ্ন ও চামারী ইউনিয়নের হোলাইগাড়ি বাজার সংলগ্ন নদী তীরবর্তী এলাকা রয়েছে হুমকির মুখে।

এসব স্থানেও বাঁধ নির্মাণের দাবি স্থানীয়দের।

স্থানীয়রা জানান, প্রতি বছর বন্যা এবং ভাঙনে নদী গর্ভে চলে যাচ্ছে বিলদহর বাজার। অনেক বসতভিটা এবং জমি নদীতে বিলীন হয়ে সর্বস্ব হয়েছেন অনেকে। এই পরিস্থিতি উত্তরণে পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপির সুদৃষ্টি কামনা করেন স্থানীয়রা।  

ঐতিহ্যবাহী বিলদহর হাট। প্রতি রোববার ও বৃহস্পতিবার এখানে হাট বসে। দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ এ হাটে আসে। এ হাট কেন্দ্রিক গড়ে উঠেছে বড় বাজার। সপ্তাহে প্রতিদিন বাজারে বিপুল পরিমাণ মানুষের সমাগম হয়। বর্ষার সময় নৌকায় অনেকে আসেন বিলদহর বাজার ও হাটে। সরকারের বিপুল রাজস্ব আয় হয় এ হাট থেকে। হাটের সঙ্গে রয়েছে পোস্ট অফিস, মসজিদ, ব্যাংক এবং বড় বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। নদী তীরবর্তী রয়েছে কয়েকটি গ্রাম।  

স্থানীয় হাট ইজারাদার মমিন মণ্ডল বাংলানিউজকে জানান, চলনবিলের বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ ছুটে আসে এখানে। বর্ষায় শত শত মানুষ প্রতিদিন নৌকায় এ হাটে আসেন। প্রতিবছর ভেঙে নদীতে চলে যাচ্ছে। ভাঙনের কারণে বিলদহরের ঐতিহ্য বিলীন হতে চলেছে। এই ঐতিহ্য ফিরে আনতে নদীর পারে বাঁধ নির্মাণ করা দরকার।  

স্থানীয় বাসিন্দা ও ব্যবসায়ী রুহুল আমিন বাংলানিউজকে জানান, বিলদহর একটি প্রাচীন গ্রাম। এ হাটের বেশ সুনাম রয়েছে। কিন্তু প্রতিবছর ভেঙে যাওয়ায় সৌন্দর্য হারাচ্ছে। এছাড়া বাঁধ না থাকায় নদীর পারে নোংরা আবর্জনায় পরিবেশ দূষণ ঘটছে। এজন্য তিনি বাঁধ নির্মাণ এবং বাজারে ড্রেনেজ ব্যবস্থার দাবি জানান।

নাটোর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী শামিম আল মামুন জানান, সিংড়া উপজেলা চারটি নদীতে ঘেরা। নদী তীরবর্তী এলাকা বিধায় বন্যার সময় পাউবো সার্বক্ষণিক মানুষের পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা করে আসছে। এবারো বন্যায় কয়েকটি বাঁধ ভেঙে ক্ষতি হয়েছে। ইতোমধ্যে তারা বিলদহর, হোলাইগাড়ি, সাঔল স্কুল পরিদর্শন করেছেন। সেখানে ব্লক দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করা দরকার। এজন্য তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাবেন বলে জানান।  

চামারী ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান রশিদুল ইসলাম মৃধা বাংলানিউজকে জানান, বিলদহর হাট ঐতিহ্যের হাট। ভাঙন রোধ এবং হাটের প্রাণ ফিরে আনতে হলে বাঁধ নির্মাণ খুবই জরুরি। এ ব্যাপারে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপির মাধ্যমে কার্যকরী সমাধান হবে বলে তারা আশাবাদী।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৪ ঘণ্টা, জুলাই ১২, ২০২০
এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa