ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ আশ্বিন ১৪২৭, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩ সফর ১৪৪২

জাতীয়

ভোলায় জোয়ারে নিচু এলাকা প্লাবিত, ঝুঁকিতে শহর রক্ষা বাঁধ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬০৯ ঘণ্টা, আগস্ট ৬, ২০২০
ভোলায় জোয়ারে নিচু এলাকা প্লাবিত, ঝুঁকিতে শহর রক্ষা বাঁধ ভোলায় ভাঙন আতঙ্কে রয়েছেন জনগণ, ছবি: বাংলানিউজ

ভোলা: উজান থেকে নেমে আসা ঢল ও পূর্ণিমার জোয়ারের প্রভাবে ভোলার মেঘনা ও তেতুলিয়া নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।  

এতে তলিয়ে গেছে ভোলার নিম্নাঞ্চল।

পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন বাঁধের বাইরের অন্তত ৩০ হাজার মানুষ।

এদিকে ইলিশা, রাজাপুর ও ধনিয়া ইউনিয়নের বেশ কিছু পয়েন্ট দিয়ে ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে শহর রক্ষা বাঁধ। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নদীর তীরবর্তী মানুষ। যে কোনো সময় তলিয়ে যেতে পারে বসতঘর ও ফসলি জমি।  

স্থানীয়রা জানান, উজান থেকে নেমে আসা আকস্মিক ঢল আর জোয়ারের প্রভাবে গত দু’দিন ধরে (বুধ (৫ আগস্ট) ও বৃহস্পতিবার) ভোলায় মেঘনার পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে সদরের ইলিশা, তুলাতলী ও নাছির মাঝি পয়েন্টের বাঁধ। এছাড়াও পানিতে প্লাবিত হয়েছে বাঁধ সংলগ্ন নিচু এলাকা। ভাঙন আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন বাঁধ এলাকার মানুষ।

দ্রুত ভাঙন রোধে বাঁধ মেরামতের দাবি জানিয়েছেন তারা।

জানা গেছে, সদরের রাজাপুর, নাছির মাঝি, তুলাতলী, বোরহানউদ্দিনের হাকিমুদ্দিন, মির্জাকালু, তজুমদ্দিনের চর জদিরউদ্দিন, সোনাপুর, চর মোজাম্মেল, মনপুরার কলাতরীর চর, চরফ্যাশনের ঢালচর, কুকরী-মুকরী, চর পাতিলা, লালমোহনের চর কচুয়াখালীসহ বেশ কিছু দুর্গম জনপদ প্লাবিত হয়েছে। অনেকের মাছের ঘের, ফসলি জমি ও বসতভিটার ক্ষতি হয়েছে। ভোলায় ভাঙন আতঙ্কে রয়েছেন জনগণ, ছবি: বাংলানিউজ

পানি উন্নয়ন বোর্ডের হিসাবে, বুধবার মেঘনার পানি বিপৎসীমার ১১৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। যা বিগত কয়েক বছরের মধ্যে রেকর্ড। যে কারণে বাঁধ ঝুঁকিতে পড়েছে।

তবে বাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা দ্রুত মেরামতের কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন ভোলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হাসানুজ্জামান।  

তিনি বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা বাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ পয়েন্টগুলো পরিদর্শন করে দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছেন। ভোলায় নিচু এলাকা প্লাবিত, ছবি: বাংলানিউজ

এদিকে ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল দৌলতখানে দুর্গত এলাকা পরিদর্শন করে হাজিপুর চরবাসীর জন্য বৃহস্পতিবার সকালে এক টন চিড়া, প্রয়োজনীয় পরিমাণ গুড়, মোমবাতি, দিয়াশলাই ও অন্যান্য গৃহসামগ্রী পাঠিয়েছেন।  

অপর দিকে ভোলার লালমোহন ও তজুমদ্দিনে জোয়ারের পানির প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ পরিদর্শন করেছেন ভোলা-৩ আসনের এমপি নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন। এসময় এমপি শাওন দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ মেরামতের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৫ ঘণ্টা, আগস্ট ৬, ২০২০
এসআই


 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa