ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ আশ্বিন ১৪২৭, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩ সফর ১৪৪২

জাতীয়

জোয়ারের পানিতে প্লাবিত ১৫ গ্রাম, পানিবন্দি ২০ হাজার মানুষ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬৩১ ঘণ্টা, আগস্ট ৬, ২০২০
জোয়ারের পানিতে প্লাবিত ১৫ গ্রাম, পানিবন্দি ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি বাড়ি থেকে ছাগল উদ্ধার করে আনছেন এক ব্যক্তি। ছবি: বাংলানিউজ

নোয়াখালী: অস্বাভাবিক জোয়ার এলেই ভেসে যায় হাতিয়ার নিম্নাঞ্চল। ঘূর্ণিঝড় আম্পান পরবর্তী সময়ে তৃতীয় দফায় পূণিমার প্রভাবে সৃষ্ট অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার নিম্নাঞ্চলের ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

এতে ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

বুধবার (৫ আগস্ট) দুপুরে জোয়ারের পানি বাড়তে থাকায় এসব এলাকা প্লাবিত হয়। এতে উপজেলার নলচিরা, সুখচর, চরঈশ্বর, তমরদ্দি, সোনাদিয়া, নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়ন এবং নলেরচর ও বয়ারচরের নিম্নাঞ্চলের বসতঘরসহ আশপাশের এলাকা জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়।
  
স্থানীয়রা জানায়, ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ মেরামত না করায় এসব এলাকা জোয়ারের পানিতে সহজেই প্লাবিত হয়।  

বুধবার দুপরের পর থেকে শুরু হওয়া জোয়ারের পানিতে অনেকের বসতবাড়ি ডুবে যায়। নলচিরা ঘাটের প্রায় ২০টি দোকানঘর পানিতে ডুবে যায়। জোয়ারের পানিতে অনেকের পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। এসব এলাকার প্রায় ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

হাাতিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রেজাউল করিম জানান, বেঁড়িবাধ মেরামতের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করে কোনো ফল পাওয়া যায়নি। তবে জোয়ারের পানিতে ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতা করা হবে।    

বাংলাদেশ সময়: ০৬২৫ ঘণ্টা, আগস্ট ০৬, ২০২০
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa