ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৪ আগস্ট ২০২০, ১৩ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

বান্দরবানে ৬ জনকে হত্যার ঘটনায় মামলা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৭-০৮ ০৮:৫০:০৯ পিএম
বান্দরবানে ৬ জনকে হত্যার ঘটনায় মামলা .

বান্দরবান: বান্দরবানে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) গ্রুপের ছয়জনকে হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বুধবার (৮ জুলাই) সন্ধ্যা ৭টায় বান্দরবান সদর থানায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) গ্রুপের বান্দরবান জেলার সেক্রেটারি উবামং মারমা বাদী হয়ে মামলাটি মামলা দায়ের করেন।

>>>আরও পড়ুন...বান্দরবানে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড, ‘দায়’ সন্তু লারমার

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম চৌধুরী বাংলানিউজকে জানান, পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) গ্রুপের বান্দরবান জেলার সেক্রেটারি উবামং মারমা বাদী হয়ে ১০ জনের নামে ও অজ্ঞাত আরও ১০ জন মিলে সর্বমোট ২০ জনকে হত্যা মামলার আসামি হিসেবে মামলা দায়ের করেছে। বাদীর মামলার পরিপ্রেক্ষিতে ৩২৬, ৩০৭, ৩০২, ও ৩৪ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।  

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম চৌধুরী বাংলানিউজকে জানান, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

এদিকে, সন্ধ্যায় ৬ জনের মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এসময় বান্দরবান সদর হাসপাতালের মর্গের সামনে নিহত পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) গ্রুপের বান্দরবান জেলা কমিটির সভাপতি রতন তঞ্চংগ্যার মরদেহ তার ছেলে কিতন তঞ্চংগ্যা ও সহধর্মীনি মিনি প্রু মারমা গ্রহণ করে। অন্যদিকে, বাকি পাঁচজনের মরদেহ নিতে খাগড়াছড়ি থেকে কেউ বান্দরবানে না আসায় নেতাদের পক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) গ্রুপের বান্দরবান জেলার সেক্রেটারি উবামং মারমার কাছে হস্তান্তর করেন বান্দরবানের রাজবিলা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. শফিকুর রহমান।

>>>আরও পড়ুন...জেএসএস লারমার বান্দরবানের সভাপতিসহ ৬ জনকে গুলি করে হত্যা

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার (৭ জুলাই) সকালে বান্দরবান সদর উপজেলার রাজবিলা ইউনিয়নের বাঘমারা বাজার পাড়ায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে বান্দরবানে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) গ্রুপের ছয়জনকে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) গ্রুপের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি বিমল কান্তি চাকমা (প্রজিৎ) ৬৮, খাগড়াছড়ি উপদেষ্টা কমিটির সদস্য চিং থোয়াইঅং মারমা ডেভিড ৫৬ , বান্দরবান জেলা কমিটির সভাপতি রতন তঞ্চংগ্যা ৫০, পার্বত্য চট্টগ্রাম যুব সমিতির খাগড়াছড়ির সদস্য রবীন্দ্র চাকমা (মিলন) ৫০, পার্বত্য চট্টগ্রাম যুব সমিতির খাগড়াছড়ির সদস্য রিপন ত্রিপুরা জয় ৩৫ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম যুব সমিতির খাগড়াছড়ির সদস্য জ্ঞান ত্রিপুরা দিপেন (৩২) । আহত হয়েছে নিরু চাকমা,বিদ্যুৎ ত্রিপুরা,প্রু বা চিং মারমা।

বাংলাদেশ সময়: ২০৪৫ ঘণ্টা, জুলাই ০৮, ২০২০
এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa