ঢাকা, বুধবার, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ১২ আগস্ট ২০২০, ২১ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলবে না’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৪৯ ঘণ্টা, জুলাই ৫, ২০২০
‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলবে না’ বেরুবাড়ী আবাসন এলাকায় বন্যা দুর্গতদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন।

কুড়িগ্রাম: প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেছেন, ‘বর্তমান করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দিয়ে আমাদের আগামী প্রজন্ম শিক্ষার্থীদের তো আর ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিতে পারি না। প্রধানমন্ত্রী যতদিন পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছেন, ততদিন অপেক্ষা করতে হবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে না। আর এজন্য আমাদের সরকার ইতোমধ্যে ঘরে বসে শিক্ষার্থীদের জন্য সংসদ টিভির মাধ্যমে তাদের পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা নিয়েছে।’

রোববার (৫ জুলাই) দুপুরে কুড়িগ্রাম শহর লাগোয়া ধরলা ব্রিজের পাশে সড়কের ওপর আশ্রিত দেড় শতাধিক বানভাসী মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণকালে এবং এর আগে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে বন্যা ও করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘সারা বিশ্ব করোনা নিয়ে যখন আতঙ্কিত তখন আমাদের প্রধানমন্ত্রী কিন্তু এ নিয়ে আতঙ্কিত নন।

তিনি করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় মানুষের জন্য হাজার হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। ’

এসময় উপস্থিত ছিলেন কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. রেজাউল করিম, পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান, সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান, সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. জাকিরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শামছুল আলম, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম ও প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান বিপ্লব প্রমুখ।

পরে প্রতিমন্ত্রী নাগেশ্বরী উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে মতবিনিময় এবং উপজেলার বেরুবাড়ী আবাসন এলাকায় বন্যা দুর্গতদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন।

ত্রাণ বিতরণকালে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যতদিন ক্ষমতায় আছেন ততদিন এদেশের একজন মানুষেরও ভয় নেই। কেউ না খেয়ে মারা যাবে না। বানভাসীদের মধ্যে খাবার পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি এসব এলাকায় গো-খাদ্যও পৌঁছে দেওয়া হবে। আমি কুড়িগ্রাম জেলার সন্তান। সুখে দুঃখে আমি আপনাদের পাশে আছি। ’

এসময় উপস্থিত ছিলেন কুড়িগ্রাম-১ আসনের সংসদ সদস্য আছলাম হোসেন সওদাগড়, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আমান উদ্দীন আহমেদ মঞ্জু, নাগেশ্বরী উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা জামান, নাগেশ্বরী ইউএনও নুর আহমেদ মাছুম, নাগেশ্বরী থানার ওসি রওশন কবীর প্রমুখ।

বাংলাদশে সময়: ১৮৪৮ ঘণ্টা, জুলাই ০৫, ২০২০
এফইএস/এফএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa