বসেছে পদ্মাসেতুর ২৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান ৪ হাজার ৫০ মিটার 

সাজ্জাদ হোসেন, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

পদ্মাসেতু। ছবি: বাংলানিউজ

walton

মুন্সিগঞ্জ: শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে পদ্মাসেতুর ২৭তম স্প্যান বসানোর মাধ্যমে দৃশ্যমান হলো সেতুর চার হাজার ৫০ মিটার। ২৬তম স্প্যান বসানোর ১০ দিনের মাথায় বসানো হচ্ছে ২৭তম স্প্যানটি। 

করোনা ভাইরাস আতঙ্কের মধ্যেই দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীদের চেষ্টায় ২৭ ও ২৮ নম্বর পিলারের উপর স্প্যানটি বসানো সম্ভব হয়। আর ১৪টি স্প্যান বসিয়ে ২.১ কিলোমিটার দৃশ্যমান বাকি পদ্মাসেতুর। 

শনিবার (২৮ মার্চ) সকাল ৯টা ২৩ মিনিটে ২৭ ও ২৮ নম্বর পিলারের উপর স্প্যানটি বসানো হয় বলে নিশ্চিত করেছেন মূল সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আবদুল কাদের। 

এর আগে শুক্রবার (২৭ মার্চ) সকালে মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে ভাসমান ক্রেন দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় স্প্যানটিকে। আবহাওয়া ও কারিগরি কোনো জটিলতা দেখা না দেওয়ায় অল্প সময়ের মধ্যেই স্প্যানটি স্থাপন করা সম্ভব হয়।

প্রকৌশল সূত্রে জানা গেছে, পদ্মাসেতুতে বসানোর জন্য স্প্যান প্রস্তুত আছে পাঁচটি। এপ্রিল মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে আরো দুইটি স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা আছে প্রকৌশলীদের। সারাদেশে করোনা ভাইরাস আতঙ্কের মধ্যে কাজের গতিতে প্রভাব পড়েছে। দেশি শ্রমিকের বড় একটি অংশ ছুটি নিয়েছে। 

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো। 

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে পদ্মাসেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদীশাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৪৪ ঘণ্টা, মার্চ ২৮, ২০২০
আরএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: পদ্মাসেতু মুন্সিগঞ্জ
বেসরকারি খাতকে সহায়তা করতে অর্থায়ন বাড়িয়েছে এডিবি
তাদের কণ্ঠে করোনাকালীন গান ‘যখন যুদ্ধে আছি’
নীলফামারীতে নতুন করোনা পজেটিভ ১৭ জন
মালিঙ্গাকে পাশে পেলেন নিষিদ্ধ লঙ্কান পেসার মাদুশঙ্কা
সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতায় পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে


ওয়ালটন এসিতে বিদ্যুৎ খরচ ঘণ্টায় মাত্র ৩.৭৪ টাকা
করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে একজনের মৃত্যু
কোভিড-১৯ থেকে বাঁচতে নিকোটিন!
লিফট-সিড়ি থেকেও হতে পারে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ!
করোনায় চলচ্চিত্র প্রযোজক মোজাম্মেল হক সরকারের মৃত্যু