ঢাকা, বুধবার, ২৪ আষাঢ় ১৪২৭, ০৮ জুলাই ২০২০, ১৬ জিলকদ ১৪৪১

জাতীয়

হানাহানি বন্ধ হওয়া উচিত: সৈয়দ আবুল মকসুদ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-২৩-১২ ০৯:০৩:৪৬ পিএম
হানাহানি বন্ধ হওয়া উচিত: সৈয়দ আবুল মকসুদ

ঢাকা: লেখক ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেছেন, এ ধরনের ঘটনা (ডাকসুতে হামলা) অত্যন্ত বেদনাদায়ক। যা একটি গণতান্ত্রিক দেশের জন্য কলঙ্কজনক। ছাত্ররা যার যার মত প্রকাশ করবে, সভা সমাবেশ করবে। বিশ্ববিদ্যালয় একটি উন্মুক্ত জায়গা সেখানে হামলা দুঃখজনক।

সোমবার (২৩ ডিসেম্বর) দুপুরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আহতদের দেখতে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সৈয়দ আবুল মকসুদ এসব কথা বলেন।

আবুল মকসুদ বলেন, এরাই একদিন রাষ্ট্রের এবং সমাজের দায়িত্ব গ্রহণ করবে।

সেই জায়গায় যদি মারামারি, হানাহানি, ঠেলাঠেলি হয় তা অত্যন্ত বেদনাদায়ক। এ ধরনের ঘটনায় মৃত্যুও হতে পারে।

‘ফারাবীকে দেখলাম লাইফ সাপোর্টে ছিল। ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছে সবাই। এখান থেকে বেরিয়ে আসতে গেলে সমাজের ও রাষ্ট্রের উচ্চপর্যায়ে যারা আছে, তাদের ব্যবস্থা নিতে হবে। বিশেষ করে সরকারি দলকে সংযত আচরণ করতে হবে। ’

এ লেখক ও গবেষক আরও বলেন, সরকারি দলের যারা বেশি ক্ষমতা দেখায় তারা যেন অন্য সংগঠনের ওপরে হানাহানি না করে। তারা নিজেরাও তো নিজেদের মধ্যে হানাহানি করছে বিভিন্ন জায়গায়। হানাহানি বন্ধ হওয়া উচিত। কারণ এটা জ্ঞান চর্চার জায়গা, বিদ্যা শিক্ষার জায়গা। এখানে এগুলো হবে কেন?

‘আমাদের সন্তানেরা এখানে আসে জ্ঞান চর্চার জন্য। তারা দেশকে অনেক কিছু দেবে। যদি তারা এখানে মারামারি করে তাহলে কেমন করে তাদের কাছ থেকে ভালো কিছু আশা করবো? সরকারের এ দিকটাতে দৃষ্টি দিতে হবে। ’

রোববার (২২ ডিসেম্বর) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি নুরুল হক নুরের রুমসহ ডাকসু ভবনে ভাঙচুর চালায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। এসময় নুরসহ আহত হয়েছেন প্রায় ১৫ থেকে ২০ জন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে ২২ ডিসেম্বর সন্ধ্যার পরে তুহিন ফারাবীকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জেনারেল আইসিইউতে রাখা হয়েছিল। ২৩ ডিসেম্বর ফারাবীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় তাকে ওয়ার্ডে স্থানান্তর করার প্রক্রিয়া চলছিল।

তুহিন ফারাবী বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক।  তিনি একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।

সোমবার (২৩ ডিসেম্বর) সকালে ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, রোববার (২২ ডিসেম্বর) সবমিলিয়ে ২৮ জনের মতো হাসপাতালে এসেছিলেন চিকিৎসা নিতে। এখনো পাঁচজন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ফারাবী ঢামেক হাসপাতালের আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। সকালে তার ভেন্টিলেটর খুলে দেওয়া হয়েছে। তাকে নিউরোলজি বিভাগের কেবিন বা ওয়ার্ডে শিফট করা হবে। বাকি চারজনের মাইনর ইনজুরি। আমাদের এক্সপার্টরা তাদের দেখে পরে সিদ্ধান্ত নেবেন। নুরুল হক নুরের সিরিয়াস ইনজুরি ছিল না। তার কিছু ট্রমা ছিল। তবে এখন তিনি স্ট্যাবল ও ভালো আছেন।  

এদিকে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন ও ঢাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক ইয়াসির আরাফাত তূর্যকে আটক করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৯
এজেডএস/এইচএডি/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa