কীর্তনখোলায় ডুবে যাওয়া কার্গো সরানোর কার্যক্রম শুরু 

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কীর্তনখোলায় ডুবে যাওয়া কার্গো সরানোর কার্যক্রম শুরু। ছবি- বাংলানিউজ

walton

বরিশাল: বরিশালের কীর্তনখোলা নদীতে দুর্ঘটনায় ডুবে যাওয়া এমভি হাজী মো. দুদু মিয়া (রাঃ)-১ নামের মালবাহী কার্গোটি সরিয়ে নেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ১২টার দিকে বিআইডব্লিউটিএ’র উদ্ধারকারী জাহাজ ‘নির্ভীক’ এ কাজ শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন বরিশাল নদী বন্দর কর্মকর্তা এবং বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিঠু সরকার।

তিনি বাংলানিউজকে জানান, মূলত সিমেন্ট তৈরির কাঁচামালবাহী (ক্লিংকার) ডুবে যাওয়া কার্গোটি এ মুহূর্তে উদ্ধার করা সম্ভব নয়। তবে এটি যেহেতু নৌপথের মূল চ্যানেলে ডুবেছে, ফলে আপাতত এটিকে সরিয়ে তীরবর্তী নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়ার কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে চ্যানেলটি নৌ-চলাচলের জন্য সচল ও  নিরাপদ থাকবে।

দুর্ঘটনার ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে চাইলে আজমল হুদা বলেন, কার্গোর মাস্টারকে পাওয়া গেলেও লঞ্চের মাস্টারের সঙ্গে এখনও যোগাযোগ করা যায়নি। তাদের দুই জনের কাছে তথ্য পেলেই দুর্ঘটনা কেন ঘটেছে তা জানা যাবে। এ ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ঘটনার তদন্তে প্রয়োজনে কমিটি গঠন করা হবে বলেও জানান তিনি।

শনিবার রাতে এমভি শাহরুখ-২ নামে একটি লঞ্চ প্রায় সাড়ে ৩শ’ যাত্রী নিয়ে বরগুনা থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলো। পথে বরিশাল নদীবন্দর সংলগ্ন কীর্তনখোলা নদী দিয়ে যাওয়ার সময় চট্টগ্রাম থেকে রওনা দেওয়া এ্যাংকর সিমেন্টের ১২শ’ মেট্রিক টন ক্লিংকারবাহী এমভি হাজী মো. দুদু মিয়া (রাঃ)-১ নামের একটি কার্গোর সঙ্গে লঞ্চটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে লঞ্চের সামনের অংশের তলা ফেটে যায় ও কার্গোটি নদীতে ডুবে যায়। 

লঞ্চের যাত্রীসহ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুর্ঘটনার সময় নদীতে বাঁক থাকা সত্ত্বেও এমভি শাহরুখ-২ লঞ্চটি দ্রুত  গতিতে চলছিল। অন্যদিকে কার্গোটিও নিয়ম না মেনে নদীর বাম দিক ঘেঁষে যাচ্ছিল। হঠাৎ বিকট শব্দে লঞ্চ ও কার্গোর সংঘর্ষে হয়। মুহূর্তের মধ্যে ডুবতে শুরু করে কার্গোটি। সংঘর্ষে লঞ্চটির সামনের তলার অংশ ফেটে যাওয়ায় যাত্রীদের মধ্যে সে সময় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। 

দুর্ঘটনাকবলিত যাত্রীরা জানান, দুর্ঘটনার সময় অনেকেই ঘুমিয়ে ছিলেন। হঠাৎ জোরে ধাক্কা লাগলে তারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। বিশেষ করে নারী ও শিশু যাত্রীরা সে সময় কান্না জুড়ে দেয়। ঝুঁকি এড়াতে তাৎক্ষণিকভাবে চরকাউয়া খেয়াঘাট সংলগ্ন কীর্তনখোলা নদীতীরে নোঙ্গর করে লঞ্চের যাত্রীদের নামিয়ে দেওয়া হয়। এদিকে স্থানীয় খেয়াঘাট ও স্পিডবোট ঘাট থেকে লোকজন দ্রুত নৌযান নিয়ে ডুবে যাওয়া কার্গোর আরোহীদের উদ্ধারে এগিয়ে যান। এতে করে তাদের তাৎক্ষণিকভাবে উদ্ধার করা সম্ভব হয়।

দুর্ঘটনার ব্যাপারে এমভি শাহরুখ-২ লঞ্চের সুপারভাইজার সেলিম হোসেন মারুফ জানান, নদীর বাঁকে পৌঁছে তারা ডানদিকে টার্নিং নেওয়ার সময় কার্গোর চালক লঞ্চের দিকে চলে এলে দুর্ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে কার্গো জিএম আনসার আলী হাওলাদার বলেন, লঞ্চের ভুলের কারণেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

বাংলাদেশ সময়: ০২৪৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
এমএস/এইচজে 

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: বরিশাল
‘ই-পাসপোর্ট ডিজিটাল জগতে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করবে’
সিএএ স্থগিত করতে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের অস্বীকৃতি
ঝালকাঠিতে ২ ‘মাদক ব্যবসায়ী’ আটক
কাউন্সিলর প্রার্থী সারোয়ারের প্রার্থিতা বাতিল চান তাবিথ
৬ মাসের মধ্যে শেষ হবে বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কাজ


ধানের দামের অজুহাতে ফের বাড়ালো চালের দাম
সিআরবি জোড়াখুন মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার
দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে যা করবেন 
ভিকি কৌশল ও ক্যাটরিনা কাইফের লুকোচুরি
কর বাড়ানো নয়, সমন্বয় করা হবে: তাপস