ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, ১১ আগস্ট ২০২০, ২০ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

শরীয়তপুরে স্বামীর বাড়ি থেকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২২১ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯
শরীয়তপুরে স্বামীর বাড়ি থেকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

শরীয়তপুর: শরীয়তপুর সদর উপজেলার বাহের চন্দ্রপুর গ্রামে স্বামীর বাড়ি থেকে বিথি আক্তার (২৬) নামে এক গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। 

রোববার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়না-তদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। বিথি আক্তার বাহের চন্দ্রপুর গ্রামের মৃত মইজদ্দিন বেপারীর ছেলে সাহাবুদ্দিন বেপারীর স্ত্রী।

বিথির স্বজনদের দাবি পরকীয়া নিয়ে বিরোধের জেরে স্বামী সাহাবুদ্দিন বিথিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। এদিকে সাহাবুদ্দিনের দাবি বিথি আত্মহত্যা করেছে।  

বিথির বড় ভাই ইমরান হাওলাদার বলেন, ভোরে সাহাবুদ্দিন ফোন করে আমাদের জানায় বিথির অবস্থা ভালো না। আপনারা তাড়াতাড়ি চলে আসেন। আমরা এসে দেখি ঘরের খাটের ওপর বিথির মরদেহ পড়ে রয়েছে। বিথির কি হয়েছে জানতে চাইলে সাহাবুদ্দিন বলে, বিথি ভোর রাতে বাড়ির পাশের গাছের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু আশপাশের কেউ গাছের সঙ্গে মরদেহ ঝুলতে দেখেনি। এর কিছুক্ষণ পর সাহাবুদ্দিন বাড়িতে মরদেহ রেখে পালিয়ে যায়।  

ইমরান হাওলাদার অভিযোগ করে বলেন, সাহাবুদ্দিনের সঙ্গে একটি মেয়ের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বিবাদ হয়। এর জেরে সাহাবুদ্দিন বিথিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। আমরা এর সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার চাই। আমরা মামলা দায়ের করবো।  

এদিকে সাহাবুদ্দিন বলেন, বিথির সঙ্গে এলাকার একটি ছেলের অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। এ ব্যাপারে অনেকবার তাকে নিষেধ করার পরেও সে কথা শোনেনি। এ নিয়ে কথা বলার জন্য রাতে ফোন দিয়ে তার মা, ভাই ও আত্মীয় স্বজনকে আসতে বলি। এরপর রাতের খাবার খেয়ে আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। ফজরের আজানের কিছুক্ষণ আগে বিথি ঘর থেকে বাইরে যায়। অনেকক্ষণ হয়ে গেলেও বিথি ঘরে ফিরে না আসায় তাকে খুঁজতে বের হই। পরে বাড়ির পাশের জাম গাছের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় ঝুলতে দেখে দ্রুত তাকে উদ্ধার করি। ততক্ষণে সে মারা যায়। পরে ফোন করে তার পরিবারকে ঘটনা জানাই। তারা আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছে তা মিথ্যা ভিত্তিহীন। আমি বিথিকে মারিনি। বিথি গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।  

পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসলাম উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে বসতঘরের খাটের ওপর থেকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে ময়না-তদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছি। এসময় স্বামী সাহাবুদ্দিন ও তার আত্মীয় স্বজনকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা করা হয়েছে। ময়না-তদন্তের প্রতিবেদন অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৮২০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa