php glass

তিস্তার পানি বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার উপরে

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

তিস্তা ব্যারেজের ফাইল ছবি

walton

নীলফামারী: উজানে ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীর পানি বেড়েছে। বৃস্পতিবার (১১ জুলাই) সকাল থেকে পানি বেড়ে দুপুরে ১২টা থেকে তিস্তা ব্যারাজের নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। 

কিন্তু তিন ঘণ্টার ব্যাবধানে আরও ১৩ সেন্টিমিটার বেড়ে বিকেল ৩টা থেকে ২০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিস্তা ব্যারাজের নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে নদীর বিপদসীমা ৫২ মিটার ৬০ সেন্টিমিটার।

তিস্তার পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় নদী তীরবর্তী নীলফামারী জেলার ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের অন্তত ১৫টি চরগ্রামের পাঁচ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। 

পড়ুন>> তিস্তার পানি বিপদসীমার ২০ সে.মি. উপরে, বড় বন্যার আশঙ্কা

পানি উন্নয়ন বোর্ড নীলফামারীর ডালিয়া ডিভিশনের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র সূত্র জানায়, উজানে বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢলে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে তিস্তা নদীর পানি বাড়তে থাকে। যা সকাল ৬টায় তিস্তা ব্যারাজের নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে বিপদসীরা দুই সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রাবহিত হয়। সকাল ৯টায় দুই সেন্টিমিটার  কমে বিপদসীমা বরাবর প্রবাহিত হলেও  বেলা ১২টা থেকে পানি বেড়ে বিকেল ৩টা থেকে বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
তিস্তার পানি বাড়ায় ডিমলা উপজেলার পূর্বছাতনাই, খগাখড়িবাড়ি, টেপাখড়িবাড়ি, খালিশাচাঁপানী, ঝুনাগাছ চাঁপানী, গয়াবাড়ি ও জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা ইউনিয়নের ১৫টি চরগ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে এসব গ্রামের পাঁচ সহস্রাধিক পরিবার হাঁটু সমান পানিতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানেরা।
 
নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খাঁন বাংলানিউজকে বলেন, বুধবার দিনগত রাত থেকে তিস্তা নদীর পানি বাড়তে শুরু করে। যা বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ইউনিয়নের ঝাড়সিংহেরশ্বর ও পূর্ব ছাতনাই মৌজার প্রায় ৯শ’ পরিবারের ঘরবাড়িতে পানি প্রবেশ করে। দুপুরের দিকে এসব পরিবারগুলোর বাড়ি ঘরে হাঁটু সমান পানি হয়ে পড়ে।

উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্দেশনা অনুযায়ী পনিবন্দি মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরে আসতে বলা হচ্ছে বলে জানান তিনি। 

একই উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের  দুইটি মৌজা  চরখড়িবাড়ি ও পূর্বখড়িবাড়ি মৌজা প্লাবিত হয়ে দুই হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। পানি যেভাবে বাড়ছে তাতে যেকোনো সময় চরখড়িবাড়ি মৌজায় স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত দুই কিলোমিটার বালুর বাঁধটি ভেঙে যেতে পারে। যেকোনো সময় বাঁধটি বিধ্বস্ত হয়ে অনেক মানুষের প্রাণহানির আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। 

খালিশা চাপনী ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, ইউনিয়নের ছোটখাতা ও বাইশপুকুর গ্রামের প্রায় সাড়ে চার’শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা ইউপি চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হোসেইন বলেন, তার ইউনিয়নের হলদিবাড়ি ও ভবনচুর গ্রামের প্রায় দুই শতাধিক পরিবার পানিবন্দি। 

পানি উন্নয়ন বোর্ড নীলফামারীর ডালিয়া ডিভিশনের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই নদীর পানি বাড়তে থাকে। বেলা ১২টায় বিপদসীমার ৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়। ৩টায় ১৩ সেন্টিমিটার বেড়ে বর্তমানে বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তিনি জানান, পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে তিস্তা ব্যারেজের সব কয়টি (৪৪টি) জলকপাট খুলে দিয়ে সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। এছাড়া বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের দুর্বল স্থানগুলো শক্তিশালী করণে জরুরি রক্ষণা-বেক্ষণ কাজ করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৪১৩ ঘণ্টা, জুলাই ১২, ২০১৯
এমএ/

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: বন্যা নীলফামারী তিস্তা নদী
উদ্যোক্তা হয়ে অন্যকে চাকরি দিন: ইউজিসি চেয়ারম্যান
খুলনা বিভাগীয় সমাবেশের অনুমতি পেলো বিএনপি
বগুড়ায় স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রী হত্যার অভিযোগ
নুসরাত হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দিতে আদালতে ৪ সাক্ষী
আগৈলঝাড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবক নিহত


হালিশহর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজে নিয়োগ
‘থর’র হাতুড়ি যাচ্ছে নাতালি পোর্টমানের হাতে
শাবিপ্রবিতে ৯০ গার্বেজ বিন উদ্বোধন
‘ছেলেধরা সন্দেহভাজনদের মারধর না করে পুলিশে দিন’
ঢাকা-চট্টগ্রামে নদী-দূষণরোধে মাস্টারপ্ল্যান জমা কমিটিতে