php glass

কেন্দুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৩৫, আটক ১৭

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কেন্দুয়ায় সংঘর্ষে আহত কয়েকজন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন

walton

নেত্রকোণা: আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নেত্রকোণার কেন্দুয়ায় দু’পক্ষের মধ্যে কয়েক দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পথচারী নারীসহ উভয়পক্ষের অন্তত ৩৫ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (১১ জুন) সকালে নওপাড়া ইউনিয়নের দুর্গাপুর মোড় থেকে শুরু হয়ে দুপুর পর্যন্ত থেমে থেমে চলে এ সংঘর্ষ। পরে কেন্দুয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় উভয়পক্ষের ১৭ জনকে আটক করা হয়েছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্র বাংলানিউজকে জানায়, নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম ও একই ইউনিয়নের আ’লীগ সভাপতি ওসমান গণি গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। তবে সম্প্রতি ধান কাটার টাকা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে আবারো উত্তেজনা দেখা দেয়। এরই জের ধরে মঙ্গলবার উভয়পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সংঘর্ষে আহত হয়ে ওসমান গণির গ্রুপের মজিদ ও সালাম নামে দু’জন চিকিৎসা নিতে আদমপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যায়। পরে সেখানেও দু’পক্ষের লোকজনের মধ্যে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষ বাধে। এসময় পুরো হাসপাতালে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এবং কর্তব্যরত চিকিৎসক, নার্স ও রোগীরা ভয়ে ছোটাছুটি শুরু করেন। 

সংঘর্ষের ঘটনায় শফিক গ্রুপের সুমন নামে একজনের চোখে গুরুতর জখম হয়েছে। আহতদের মধ্যে ১৭ জনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। অন্যদের স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ওসমান গণি বাংলানিউজকে বলেন, নওপাড়া ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামের মহিউদ্দিনের কাছ থেকে মাসকা ইউনিয়নের কান্দাপাড়া গ্রামের হাছু মিয়া জমির ধান কেটে দেওয়ার কথা বলে ১০ হাজার টাকা নেন। পরে ধান কেটে না দিয়ে উল্টো টাকা দিতে গড়িমসি শুরু করে। টাকা ফেরত চাইতে গেলে হুমকি-ধামকিও দিয়ে আসছিল। এ নিয়ে সোমবার (১০ জুন) সন্ধ্যায় ও রাতে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়।

এর জের ধরে চেয়ারম্যান শফিকুলের নির্দেশে মহিউদ্দিনের লোকজনের ওপর দেশীয় অস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা করা হয়। পরে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এতে গুরুতর আহত হয়ে সভাপতির ফুফাতো ভাই মজিদ মেম্বার মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। এর আগেও চেয়ারম্যান সভাপতির জায়গায় ফসলের বীজতলা তৈরি করে দখলে নিতে চেয়েছিলে বলেও জানিয়েছেন সভাপতি ওসমান।

তবে এ ঘটনার বিষয়ে জানতে চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

সংঘর্ষের পর নেত্রকোণার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) শাহ্জাহান মিয়া, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কেন্দুয়া সার্কেল) মাহমুদুল হাসান ও কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহ্জাহান মিয়া বাংলানিউজকে জানান, দু’পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিরোধ চলছিল। আজ সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। পরে উভয়পক্ষের ১৭ জনকে আটক করা হয়। 

বাংলাদেশ সময়: ২০২৪ ঘণ্টা, জুন ১১, ২০১৯
এসএইচ

বরিশালে যুবককে কুপিয়ে জখম
যশোরে গণপিটুনিতে সন্ত্রাসী নিহত
নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রির অপরাধে ২ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
বগুড়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আহত সন্ত্রাসী রনির মৃত্যু
জান্নাতি হত্যা: অভিযুক্ত ৪জনকে নাটোর থেকে গ্রেফতার 


ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট ধরলেন আসল ম্যাজিস্ট্রেট
ডুমুরিয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী এজাজ চেয়ারম্যান নির্বাচিত
দেওয়াল-গাছে বিজ্ঞাপন দিলেই জরিমানা
যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মার্ক
বিজয়নগরে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাছিমা বিজয়ী