php glass

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৩ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নিহত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: প্রতীকী

walton

কক্সবাজার: কক্সবাজারের টেকনাফের হ্নীলা লেদা রোহিঙ্গা শিবির সংলগ্ন পাহাড়ে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী ও শিশু অপহরণকারী নিহত হয়েছেন। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে তিনটি দেশীয় তৈরি বন্দুক, আট রাউন্ড গুলি, ১১ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (০৬ জুন) দিবাগত গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উখিয়ার থাইংখালী ১৩ নম্বর ক্যাম্পের নুর মোহাম্মদের ছেলে শামসু আলম (৩৫), মোক্তার আহম্মদের ছেলে নুর আলম (২১) ও টেকনাফ হ্নীলা লেদা ক্যাম্পের আজিজুর রহমানের ছেলে হাবিব (২০)।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বাংলানিউজকে বলেন, পুলিশের হাতে আটক হওয়ার পর এ তিন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীর স্বীকারোক্তি মতে লেদা রোহিঙ্গা শিবিরের পেছনের পাহাড়ে অস্ত্র উদ্ধারে যাই আমরা। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অন্যান্য সন্ত্রাসী ও তাদের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। এসময় পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়।

তিনি বলেন, একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা পিছু হটলে ঘটনাস্থল থেকে তিনজনের মরদেহ, তিনটি দেশীয় তৈরি বন্দুক, আট রাউন্ড গুলি, ১১ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি।

ওসি বলেন, বন্দুকযুদ্ধে নিহত তিনজনই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী ও অপহরণকারী। কিছুদিন আগে তারা তিন বছরের এক শিশুকে অপহরণের পর পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন। পরে পুলিশের অভিযানের মুখে অপহরণকারীরা শিশুটিকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়।

নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১০৩৭ ঘণ্টা, জুন ০৭, ২০১৯
এসবি/টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: কক্সবাজার বন্দুকযুদ্ধ রোহিঙ্গা
সোনার স্বপ্ন জাগিয়েও পারলেন না আঁখি
ঘটছে দুর্ঘটনা, তবুও উল্টো পথে চলছে গাড়ি
কাতারকে হারিয়ে গালফ কাপের ফাইনালে সৌদি আরব
লন্ডনের বাতাসে নিশ্বাস ১৬০টি সিগারেট গ্রহণের সমান!
আড়াইহাজারে দেশীয় অস্ত্রসহ ৫ ডাকাত আটক


কাউখালীতে খামারে আগুন, ২ হাজার মুরগি পুড়ে ছাই
হাই হিল জুতায় হতে পারে যেসব ক্ষতি
বিকল্প শক্তি গড়তে সাংস্কৃতিক কর্মীদের এগিয়ে আসতে হবে
‘সরকার দেখে না, আর গিরস্থি করতাম না’
ফাওয়াদ আমলা না কী ফাওয়াদ আলম?