কুয়েট শিক্ষক সমিতির ক্লাস বর্জন কর্মসূচি চলছে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা মঙ্গলবার সকাল থেকে ক্লাস বর্জন কর্মসূচি শুরু করেছেন।

খুলনা: খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা মঙ্গলবার সকাল থেকে ক্লাস বর্জন কর্মসূচি শুরু করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মদপানে মৃত শিক্ষার্থীর প্রতিকৃতি বেআইনীভাবে স্থাপন করা ও এটি অপসারণের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি মঙ্গলবার থেকে তিনদিনে ক্লাস বর্জন কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

কুয়েট শিক্ষক সমিতির ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. মাসুদ বাংলানিউজকে জানান, মদপানে মারা যাওয়া শিক্ষার্থীর প্রতিকৃতি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বেআইনীভাবে স্থাপন করা হয়েছে। এ প্রতিকৃতি অপসারণের জন্য আমরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে রোববার পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিলাম। এ নিয়ে আমরা কর্মসূচিও পালন করেছি। কিন্তু কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে কোন আমলই দেননি। তাই ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দিতে বাধ্য হয়েছি।

তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস শুরু হয় সকাল ৮টায়, চলে ৫টা পর্যন্ত। এসব রুটিন ক্লাস বন্ধ করে আমাদের কর্মসূচি চলছে।

কুয়েট উপাচার্যের মোবাইল ফোনে বাংলানিউজের পক্ষ থেকে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে, ভিসির পিএস নিমাই চন্দ্র মিস্ত্রী জানান, স্যার (উপাচার্য) শিক্ষক নিয়োগের সিলেকশন বোর্ডে রয়েছেন।

তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছাত্ররাই তাদের সহপাঠীর প্রতিকৃতি নির্মাণ করেছে। ওই প্রতিকৃতি অপসারণের দাবিতে শিক্ষক সমিতি ক্লাস বর্জনের কর্মসূচি দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২২ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারায় এক বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়ে অতিরিক্ত মদপান করে একেএম আহসান উল্লাহ ভূইয়া মেহেদী মারা যান। তিনি কুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের  ছাত্র ও কুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন।

তারই স্মৃতি রক্ষার বেআইনীভাবে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালার বাইরে ক্যাম্পাসে বিশালাকৃতির এক প্রতিকৃতি স্থাপন করা হয়। যা গত বুধবার খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক আনুষ্ঠানিকভাবে উন্মোচন করেন।
 
মদপান করে যে শিক্ষার্থী মারা গেছে তার স্মৃতি রক্ষার নামে ক্যাম্পাসে চলতি বছর অক্টোবর মাসের শেষদিকে ক্যাম্পাসের খান জাহান আলী হলের সামনে তার একটি স্মৃতিফলক স্থাপন করা হয়। ফলকটি স্থাপনের পর থেকে কুয়েটের শিক্ষকরা প্রতিবাদমুখর হয়ে ওঠেন।

শিক্ষক সমিতি চলতি মাসের ২ তারিখে জরুরি সাধারণ সভা করে ১২ নভেম্বরের মধ্যে স্মৃতিফলকটি অপসারণের জন্যে ভার্সিটি কর্তৃপক্ষকে আলটিমেটাম দেয়।

কিন্তু সমিতির দাবি কর্তৃপক্ষ অগ্রাহ্য করলে শিক্ষক সমিতি গত ১৭ নভেম্বরে সাধারণ সভা করে স্মৃতিফলকটি ভেঙ্গে ফেলার দাবিতে আন্দোলন কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নেন। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত মঙ্গলবার থেকে সকল শিক্ষক ক্লাস ও পরীক্ষা গ্রহণ ব্যতীত সকল প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন থেকে বিরত থাকার তিনদিনের কর্মসূচি শুরু করেন।

সে কর্মসূচি রোববার শেষ হলে আবারও তিনদিনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১০২৬ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৯, ২০১১

Nagad
বন্যা মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ চায় ন্যাপ
খুলনায় অপহৃত শিশু উদ্ধার, গ্রেফতার ২
প্রযোজক-পরিচালকদের সম্মান করেন না জায়েদ খান, বয়কটের ঘোষণা
নওফেলকে নিয়ে মানহানিকর স্ট্যাটাস, আটক যুবক
‘লাখ টাকার গরুর চামড়া বিক্রি হচ্ছে দুই থেকে তিনশ’ টাকায়’


২৬ তরুণের স্বেচ্ছাশ্রমে ঘরে বসেই মিলছে নমুনা প্রতিবেদন
২৫ জুলাইয়ের মধ্যে বোনাস-বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবি
সুনামগ‌ঞ্জে কমেছে সুরমার পা‌নি
সাহেদ বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
বিজয়নগরে পিকআপ ভ্যান উল্টে চালক নিহত