ভর্তি পরীক্ষা না নিয়ে পুনর্মূল্যায়ন সম্ভব: হাইকোর্টে ড. জাফর ইকবাল

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গ’ ইউনিটের পুনর্মূল্যায়িত ফল বাতিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিটের শুনানিতে  শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল বলেন, বিষয়টি খুবই সহজ। গ ইউনিটের পুনরায় ভর্তি পরীক্ষা না নিয়ে পুনর্মূল্যায়ন সম্ভব।

ঢাকা: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গ’ ইউনিটের পুনর্মূল্যায়িত ফল বাতিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিটের শুনানিতে  শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল বলেন, `বিষয়টি খুবই সহজ। গ ইউনিটের পুনরায় ভর্তি পরীক্ষা না নিয়ে পুনর্মূল্যায়ন সম্ভব।`

এ বক্তব্যের পরে আদালত অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে বলেন, ড. ইকবালকে নিয়ে ঢাবি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আগামীকাল মঙ্গলবার পরামর্শ করে একটি গ্রহণযোগ্য সিদ্ধান্ত নিয়ে তা বুধবার আদালতকে জানাবেন। আর এ সিদ্ধান্ত আমলে নিয়ে আদালত আদেশ দেবেন।

এছাড়া আগামী বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেনকে আদালতে হাজির হতে বলেছেন।

সোমবার বিচারপতি এইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেনের আদালতে তিনি ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে এ মত দেন।

আদালতে রিটকরীদের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ, ঢাবির পক্ষে এ এফ এম মেজবাহ উদ্দিন ও রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

প্রসঙ্গত ড. জাফর ইকবালকে গত বুধবার আদালতের সামনে উপস্থিত হয়ে ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে মতামত দিতে বলেন বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন।

শুনানিতে আদালত ড. জাফর ইকবালকে বলেন, `আপনি একজন আইটি বিশেষজ্ঞ ও অধ্যাপক। ঢাবির এ সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে কি করা যায়?`

জবাবে ড. জাফর ইকবাল বলেন, `আমি আইনগত বিষয়ে বেশি কিছু জানি না। নিয়ম কানুনও তেমন একটা জানি না।`

তখন আদালত বলেন, `কোন নিয়মের দরকার নেই আপনি এমনিতে বলেন।`

জাফর ইকবাল বলেন, `আমি এখানে শিক্ষক হিসেবে বলবো। বিষয়টি পত্রপত্রিকা দেখে যা বুঝলাম। এটা তেমন একটা বড় সমস্যা নয়। খবুই সহজ। কেননা যে ওএমআর শিটে উত্তর আছে সেগুলো ধবংস করা হয়নি। সুতরাং ভুল উত্তরগুলোকে শুদ্ধ করে আবার পুনর্মূল্যায়ন করা যায়। আর যে প্রশ্নের সঠিক উত্তর নেই সেগুলো বাদ দিলে হয়। সুতরাং পুনরায় পরীক্ষা নেওয়ার দরকার নেই। নতুন করে পরীক্ষা নিলে শিক্ষার্থীদের অনেক সমস্যা হবে।`

তিনি বলেন, এভাবে পুনর্মূল্যায়নের পর অনেক শিক্ষার্থী বাদ পড়ে যাবে। এজন্য এবার জন্য প্রত্যেক বিষয়ে ১০ জন বেশি শিক্ষার্থী ভর্তি করা যেতে পারে। এছাড়াও যারা এবার ২য় বারের মতো পরীক্ষার্থী তাদের আগামী বছর ৩য়বারের মতো সময় দেওয়া যেতে পারে।`

তিনি উত্তরপত্র মূল্যায়নের জন্য প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানকে দায়িত্ব দেওয়া দুঃখজনক উল্লেখ করে বলেন, `ঢাবিতে কম্পিউটার সয়েন্স ইনস্টিটিউট আছে। তাদেরকে এ দায়িত্ব দেওয়া যেতো। কেননা প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান টাকার বিনিময়ে কাজ করে চলে যায়। তারা হাজার হাজার শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ সম্পর্কে বেশি সতর্ক থাকবে না। তাই নিজস্ব ইনস্টিটিউটকে এ দায়িত্ব দিতে হবে।`

তিনি আরও বলেন, `যদি আমাদের দায়িত্ব দেন তাহলে বিষয়টি আধা ঘণ্টার মধ্যে সমাধান করা যাবে। কারণ উত্তরপত্র তো আগুনে পুড়ে যায়নি। অথবা ধবংস হয়ে যায়নি। সুতরাং পুরো প্রক্রিয়া সমাধান করতে ১২ থেকে ১৪ ঘণ্টা লাগতে পারে।`
 
এরপর আদালত বলেন, `এ ভুলের দায় কার? এখানে সংশ্লিষ্ট ডিনের দায় দায়িত্ব কতটুকু?`

জবাবে ড. ইকবাল বলেন, `সব মানুষেরই ভুল হতে পারে। তবে ভুল হলে তার সংশোধন করার জন্য একটি সিস্টেম থাকতে হবে।`

ভর্তি পরীক্ষায় ঘটে যাওয়া ভুলকে তিনি পরীক্ষা কমিটির অবহেলা বলে মন্তব্য করেন। ডিনসহ ভর্তি পরীক্ষা কমিটির ১৮ জনকে এর দায় নিতে হবে।

এরপর আদালত ড. জাফর ইকবালকে নিয়ে ঢাবি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পরামর্শ করার জন্য অ্যাটর্নি জেনারেলকে বলেন। পরামর্শের পর একটি গ্রহণযোগ্য সিদ্ধান্ত নিয়ে বুধবার আদালতে আসতে বলেন। যে সিদ্ধান্তের ওপর ভিত্তি করে আদালত এ বিষয়ে আদেশ দেবেন।   

এর আগে বুধবার এ সংক্রান্ত রিটের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ফলাফলের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে না বলে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আদালতকে আশ্বস্ত করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গ’ ইউনিটের (ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ) পুনর্মূল্যায়িত ফলাফল বাতিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত মঙ্গলবার হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়। আবেদনে নতুন করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্তের বৈধতাও চ্যালেঞ্জ করা হয়।

‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ আরিফুল ইসলামসহ ১২ জন শিক্ষার্থী রিট আবেদনটি করেন।

উল্লেখ্য, গত ২৮ অক্টোবর ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা হয়। ৩১ অক্টোবর ফল প্রকাশ করা হয়। এতে আবেদনকারী ১২ জনসহ প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থীকে ভর্তির জন্য নির্বাচিত করা হয়।

ওই ফল প্রকাশের পর প্রশ্নপত্রে ছয়টি ভুল ধরা পড়লে ফলাফল পুনর্মূল্যায়ন করে পুনরায় ফল প্রকাশের পর প্রথমবার উত্তীর্ণদের অনেকে বাদ পড়েন। এরপর আবার হঠাৎ করে পুনর্মূল্যায়িত ফলও বাতিল করে আবারও নতুন করে পরীক্ষা নেওয়ার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭২৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৮, ২০১১

Nagad
নালিতাবাড়ী-ঝিনাইগাতীতে ২৫ গ্রাম প্লাবিত
বিপিও উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের আহ্বান পলকের
বিনিয়োগ আকর্ষণে নীতিমালা সংস্কারের পরামর্শ
ভুয়া চিকিৎসকসহ ৩ জনকে কারাদণ্ড, হাসপাতাল সিলগালা
পশ্চিমবঙ্গে একদিনে করোনা আক্রান্ত ১,৫৬০ জন


নভোএয়ারে ভ্রমণ করলে ফ্রি কাপল টিকিট
‘টাউট’ শহীদুলের আইন পেশা, আছে মানবাধিকার সংগঠন!
সব বিভাগে ভারী বর্ষণের শঙ্কা, বন্যার অবনতি
অর্ধেক দামে মিলবে কৃষি যন্ত্রপাতি, একনেকে প্রকল্প
খুলনায় নতুন করোনা রোগী শনাক্ত ৭৩, মোট ৩১০৮