ডিসেম্বরেই মিয়ানমারের সঙ্গে বিনিয়োগ চুক্তি : বাণিজ্যমন্ত্রী

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

দ্বিপক্ষীয় অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করতে খুব শিগগিরই মিয়ানমারের সঙ্গে বিনিয়োগ সংক্রান্ত একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে। আগামী ৫ থেকে ৭ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মিয়ানমার সফরের কথা রয়েছে।

ঢাকাঃ দ্বিপক্ষীয় অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করতে খুব শিগগিরই মিয়ানমারের সঙ্গে বিনিয়োগ সংক্রান্ত একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে। আগামী ৫ থেকে ৭ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মিয়ানমার সফরের কথা রয়েছে।

সে সময় এ চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হতে পারে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী মুহাম্মদ ফারুক খান। মিয়ানমার সফর শেষে দেশে ফিরে সোমবার বিকেলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী এ কথা জানান।

এ সফর ফলপ্রসূ হয়েছে দাবি করে মন্ত্রী জানান, মিয়ানমারের বাণিজ্যমন্ত্রীর আমন্ত্রণে সম্প্রতি ২৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি সরকারি-বেসরকারি প্রতিনিধিদল তার নেতৃত্বে মিয়ানমার সফরে গিয়েছিল। সফরকালে মিয়ানমারের অর্থমন্ত্রী, বাণিজ্যমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ সে দেশের অন্যান্য সরকারি উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা এবং বেসরকারি উদ্যোক্তাদের সঙ্গে তার বৈঠক হয়েছে  বলে জানান তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের দ্বি-পক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়ানোর যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। বর্তমানে দু’দেশের মোট বাণিজ্যের পরিমাণ ২শ’ মিলিয়ন ডলার।

এরমধ্যে মিয়ানমারে রফতানির পরিমাণ ১৮০ মিলিয়ন ডলার এবং বাংলাদেশ ২০ মিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি করে থাকে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশ চাল, ডাল, ছোলাসহ প্রচুর পরিমাণে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির কারণে বাণিজ্য পরিস্থিতি মিয়ানমারের অনুকূলে রয়েছে বলে জানান তিনি।

মন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে বাংলাদেশ থেকে ওষুধ, সিমেন্ট, রড, বৈদ্যুতিক তার, ক্যাবল, কনডেন্সড মিল্ক ও আলু আমদানির জন্য সে দেশের সরকারের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে।   তারা বাংলাদেশ থেকে আলু আমদানিতে বিশেষ আগ্রহ দেখিয়েছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী আরো বলেন, এছাড়া মিয়ানমার সফরে এশিয়ান হাইওয়ে, বাংলাদেশ-মিয়ানমার সরাসরি বিমান চালু, দু’দেশের মধ্যে সড়ক-রেল ও নৌ যোগাযাগের উন্নয়ন, মিয়ানমারে কৃষি জমি লিজ নিয়ে সেখানে চাষাবাদ ইত্যাদি বিষয় যথেষ্ট গুরুত্ব পেয়েছে।

এসব বিষয়ে সে দেশের সরকার যথেষ্ট আগ্রহ দেখিয়েছে। অন্যদিকে প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধানে বাংলাদেশের সহযোগিতা চেয়েছে মিয়ানমার।

এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বাড়ানোর ক্ষেত্রে একটি বড় অন্তরায় হচ্ছে সেখানে ব্যাংকিং সুবিধা তথা এলসি সুবিধা না থাকা।

বিষয়টি বোঝার জন্য সেদেশের একটি প্রতিনিধিদল শিগগিরই ঢাকায় আসবে। তবে এ সফরে দু’দেশের ব্যবসায়ীদের আর্থিক লেনদেনের সুবিধার্থে রাষ্ট্রায়াত্ত সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে সে দেশের তিনটি ব্যাংকের একটি সমঝোতা হয়েছে। এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের মাধ্যমে এ লেনদেন পরিশোধ করা হবে।  

বাংলাদেশ সময় : ১৭২৫ ঘণ্টা , ২৮ নভেম্বর , ২০১১

Nagad
‘পাটশিল্পের সঙ্গে জড়িতরা অভিশপ্ত জীবনের দিকে ধাবিত হচ্ছেন’
দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করে অর্থ-সম্পদ বাড়ালে ছাড় নয় 
ঢাকা উত্তরে ‘স্মার্ট ল্যাম্প পোল’ চালু করলো ইডটকো
বাড়িভাড়া জুলাই থেকে ৫০ শতাংশ করার দাবি
দিরাইয়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে বৃদ্ধার মৃত্যু


কমলনগরে নদী ভাঙন রোধের দাবিতে মানববন্ধন
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৯ মৃত্যু, শনাক্ত ৩০৯৯
ঈদুল আজহার ছুটি বাড়ানো হবে না: মন্ত্রিপরিষদ সচিব
সিলেটে ৫ উপজেলার ৩৭ ইউনিয়ন বন্যা কবলিত
রাজশাহীতে দেরি হচ্ছে ফ্লাইট চালু