ঢাবিতে ভর্তি: চান্স না পেলে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গ’ ইউনিটের দুই দফা ফলাফলে মেধাতালিকায় স্থান করে নেওয়া শিক্ষার্থীরা আগামী ৯ ডিসেম্বরের পুনঃভর্তি পরীক্ষায় চান্স না পেলে অন্য যে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে তারা চান্স পেয়েছিলেন সেখানে ভর্তির সুযোগ প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়কে অনুরোধ করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

ঢাকা: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গ’ ইউনিটের দুই দফা ফলাফলে মেধাতালিকায় স্থান করে নেওয়া শিক্ষার্থীরা আগামী ৯ ডিসেম্বরের পুনঃভর্তি পরীক্ষায় চান্স না পেলে অন্য যে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে তারা চান্স পেয়েছিলেন সেখানে ভর্তির সুযোগ প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়কে অনুরোধ করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

সোমবার সন্ধ্যায়  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বাংলানিউজকে এ তথ্য জানান।
 
উপাচার্য বলেন, আমার বিশ্বাস যারা মেধাবী তারা প্রতিবারই মেধাতালিকায় স্থান করে নিতে পারবে। তারপরও যদি বিশেষ কারণে পুনঃভর্তি পরীক্ষায় তারা চান্স না পায় তাহলে তাদের অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে। এর মধ্যে যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধাতালিকায় স্থান পেয়ে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়নি কিংবা ভর্তি বাতিল করেছে তাদের ক্ষতিটা হবে সবচে বেশি। সে কারণে মানবিক দিক বিবেচনা করে তাদের ভর্তি  করার জন্য সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়কে বিশেষ অনুরোধ করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

উপাচার্য আরও বলেন, আমরা আশা করছি অন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও মানবিক দিক বিবেচনা করে আমাদের অনুরোধ রাখবে।

প্রসঙ্গত ২৮ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের আওতায় ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষা হয়। ৩১ অক্টোবর ফল প্রকাশ হয়। প্রত্যাশিত ফল না পেয়ে ১ নভেম্বর অনেক শিক্ষার্থী ব্যাবসা শিক্ষা অনুষদেও ডিন বরারব অভিযোগ করেন।

সেদিন সন্ধায় বাংলানিউজ বিশ্ববিদ্যালয়ের  ‘উত্তর পত্রে’ ভুল শিরোনামে একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সেদিন রাতে ভর্তি কমিটির জরুরী বৈঠকে প্রতিবেকের সংবাদের সত্যতা পাওয়া যায় বলে জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। এরপর সারারাত উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়ন করে ২ নভেম্বর পুনরায় ফল প্রকাশ করা হয়।
 
এরপর কয়েক শ’ শিক্ষার্থী আবারও ফল পুনর্মূল্যায়নের দাবি জানালে ১৯ নভেম্বর ডিনস কমিটির জরুরী সভায় ফল বাতিল করা হয়। সর্বশেষ ২১ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আগামী ৯ ডিসেম্বর ফের ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানায় শিক্ষার্থী ও তাদের অভিবাবকরা। পরে ‘গ’ ইউনিটের পুনর্মূল্যায়িত ফলাফল বাতিলের সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২২ নভেম্বর ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ১২ শিক্ষার্থী হাইকোর্টে রিট করেন। আবেদনের ওপর দুই দিন শুনানি নিয়ে গত বুধবার আদালত আগামী সোমবার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেন।

হাইকোর্ট  ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা সমাধানে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবালের মতামত জানতে চেয়েছেন। বিশেষজ্ঞ মতামত জানাতে ২৮ নভেম্বর তাঁকে আদালতে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪৬ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৭, ২০১১

Nagad
৮ কোটি টাকার গরু নিয়ে প্রস্তুত নাহার ডেইরি ফার্ম
আন্তর্জাতিক অঙ্গনে শেখ হাসিনার যত স্বীকৃতি
আইএস অনলাইনে সন্ত্রাসী নিয়োগের চেষ্টা করছে
সিউলের নিখোঁজ মেয়র পার্কের মরদেহ উদ্ধার
কিশোরীকে ধর্ষণ-গর্ভপাত, নারী চিকিৎসকসহ গ্রেফতার চার


সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে প্রধান বিচারপতির শোক
বেনাপোল বন্দরে রাজস্ব ঘাটতি ১১ কোটি ৬ লাখ টাকা
নলছিটিতে খাল থেকে স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার
ভারতীয় সব টিভি চ্যানেল বন্ধ করে দিয়েছে নেপাল
লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি হত্যা, মানবপাচারকারীর স্বীকারোক্তি