জলমহালে দুদকের অভিযান, রক্ষা পেল ৭০ একর জমির ফসল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

দুর্নীতি দমন কমিশন

ঢাকা: এবার হাওরের জলমহাল রক্ষায় কৃষকের পাশে দাঁড়ালো দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এতে একদিকে যেমন জলমহালে কৃষকের অধিকার প্রতিষ্ঠা পেয়েছে, তেমনি রক্ষা পেয়েছে ৭০ একর জমির ফসল।

php glass

দুদকের উপ-পরিচালক প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য বাংলানিউজকে বলেন, দুদকের হস্তক্ষেপে সরকারি জলমহালে কৃষকদের অধিকার প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। দুর্নীতির মাধ্যমে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলায় ৭০ একর আয়তনের সরকারি জলমহালে পাম্প মেশিন দিয়ে জোরপূর্বক পানি সেচে মাছ ধরা হচ্ছে। এতে কৃষকদের সেচ সুবিধা বন্ধ হচ্ছে। এমন এক অভিযোগ আসে দুদকের হটলাইনে (১০৬)।

এ অভিযোগের ভিত্তিতে দুর্নীতি দমন কমিশনের নির্দেশে ১৬ ফেব্রুয়ারি (শনিবার) এবং ১৭ ফেব্রুয়ারি (রোববার) সকালে অভিযান চালিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশের একটি সমন্বিত টিম। 

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যনগর থানার চামরদানী ইউনিয়নের বিশারা মৌজায় শ্যালো মেশিন দিয়ে মাছ ধরার করণে জমির ফসল সেচের অভাবে শুকিয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও বিলের আশেপাশের বিভিন্ন গ্রামের জমির ধানের চারা ধ্বংস হচ্ছে।

প্রণব কুমার বলেন, এ ঘটনা জানার পর দুদক মহাপরিচালক মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরীর নির্দেশে ওই উপজেলা প্রশাসন স্থানীয় পুলিশের সহায়তায় অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানে ওই অঞ্চলে শ্যালো মেশিন বসানোর উদ্যোগটি বন্ধ হয়। এলাকাবাসীকে   এ ধরনের অপতৎপরতার বিরুদ্ধে সচেতন করা হয়।

 এ ব্যাপারে দুদক এনফোর্সমেন্ট অভিযানের প্রধান, মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, সরকারি জলমহাল ও নদ-নদী দখল এবং অবৈধভাবে   পানি বা সম্পদ আহরণ নিঃসন্দেহে দুর্নীতি। তাই জনস্বার্থে দুদক এখানে হস্তক্ষেপ করেছে।

বাংলাদেশ সময়: ২২৪৮ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৯
আরএম/জিপি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: দুদক
বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ-এ নিয়োগ
সৈয়দপুর-ঢাকা রুটে প্রতিদিন ১৪ ফ্লাইট 
বিএসএমএমইউ’র সঙ্গে টাটা মেমোরিয়ালের চুক্তি
পাথরঘাটায় আওয়ামী লীগ নেতা বহিষ্কার
পেকুয়ার দু’পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৩


জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাসের নকশা উপস্থাপন
বিএসইসির সংবাদ সম্মেলন সোমবার
এবি ব্যাংকের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ
উখিয়ায় ৩ ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভোট বর্জন
‘বঙ্গবন্ধু হত্যার রাতে মার্কিন ও পাক দূতাবাস খোলা ছিল’