যশোরের ২ মন্দিরে ৬০২ প্রতিমা, ফুটে উঠেছে বৈদিক কাহিনী

উত্তম ঘোষ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

প্রতিমার নান্দনিক শিল্পকর্মে মুগ্ধ ভক্তরা। ছবি: বাংলানিউজ

walton

যশোর: হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজায় যশোরের কেশবপুর ও মণিরামপুর উপজেলার দু’টি মন্দিরে ৬০২ প্রতিমা তৈরি করা হয়েছে। ফলে বৃহত্তর যশোরাঞ্চলের মধ্যে এ দু’টি মণ্ডপে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ভক্তদের সমাগম ঘটছে। ভক্তদের প্রতিমা দর্শনের কথাচিন্তা করে আরও তিনদিন পর প্রতিমা বিসর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মণিরামপুরের মশিয়াহাটি মণ্ডপ পরিচালনা কমিটি।

php glass

মহাষ্টমীর দিন বুধবার (১৭ অক্টোবর) সরেজমিনে দেখা গেছে, যশোরের মণিরামপুর উপজেলার মশিয়াহাটী আঞ্চলিক দুর্গাপূজা মন্দিরে মা দুর্গার প্রতিমার পাশাপাশি আরও ২০১টি প্রতিমার মাধ্যমে পৌরাণিক কাহিনী’র বাস্তব প্রতিবিম্ব ফুঁটিয়ে তোলা হয়েছে।

অন্যদিকে, এ মন্দিরের পার্শ্ববর্তী উপজেলা কেশবপুরের নিমতলা মহাশ্মশান মন্দিরে ৪০১ প্রতিমা তৈরি করা হয়েছে। প্রতিমার নান্দনিক শিল্পকর্মে মুগ্ধ হয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার ভক্তের সমাগম ঘটছে উভয় মন্দিরে। গোটা খুলনা বিভাগের বিভিন্ন এলাকা থেকে রিজার্ভ গাড়ি এবং সাধারণ যানবাহনে উভয় মন্দিরে ভিড় করছেন দর্শনার্থীরা। এছাড়া মন্দির দু’টিতে আসা ভক্তদের যানবাহন রাখার জন্য স্থানীয়রা গ্যারেজ (অল্প খরচে গাড়ি পার্কিং) ও স্টেশনারি, হোটেল ও ফার্ণিচারসহ অন্যান্য পণ্যের অস্থায়ী দোকান বসানো হয়েছে।

মশিয়াহাটি আঞ্চলিক দুর্গাপূজা মন্দিরে পৌরাণিক কাহিনী অনুযায়ী প্রতিমার মধ্যে রয়েছে, এবারে গীতা থেকে বকরাক্ষসবধ, তৃণবর্তা উদ্ধার, শ্রীকৃষ্ণের লীলা, গীরিগোবর্ধন পর্বত উত্তোলন, রামায়ণ থেকে রাবণবধ, সীতাহরণ,মাধব পাটনি, অযোধ্যার সিংহাসনে রাম এবং মহাভারতের ভীষ্মের শরসজ্জা, জরাসিন্দুবধ, খিঁচকবধ, ভীম-দুর্যোধনের যুদ্ধ ইত্যাদি দৃশ্য। এছাড়া রাজা হরিস চন্দ্রের রাজ্য দান এবং শ্মশান ঘাট, মাধব পাটনির খেয়া-ঘাটে রাম-লক্ষণ, বৈতরণী নদী পার, শ্রীকৃষ্ণ কতৃক শিশুপাল বধ, মহাদেব ও অশ্বথমার যুদ্ধ, ভীম কতৃক দুঃশাসনের রক্ত পান, জটায়ু যুদ্ধ, শবরীর আশ্রমে রাম-লক্ষণ, রাম-লক্ষণ কতৃক খর ধুসন বধ, অঘাসুর বধ, ভক্ত হরিদাসকে বাইশ বাজারে বেত্রাঘাত, রামপ্রসাদের বেড়া বাধা, কর্মফলদাতা শনিদেব, মা কালীর প্রতিমা, নারায়ন কতৃক গজরাজ উদ্ধার, দেবকীর ছয়পুত্র আনায়ন প্রভৃতি পৌরাণিক কাহিনী প্রতিমার মধ্যদিয়ে প্রতিবিম্ব ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

মশিয়াহাটি আঞ্চলিক দুর্গাপূজা কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় কুলটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখর চন্দ্র রায় বাংলানিউজকে বলেন, অশুভ শক্তির বিনাশ ও বিশ্বমানবতার শান্তি কামনায় মণিরামপুরের ‘ছিয়ানব্বই’ (হিন্দু অধ্যুষত ৯৬টি গ্রাম) গ্রামের প্রাণকেন্দ্র মশিয়াহাটী অঞ্চলের ১৪টি গ্রামের মানুষের সাধ ও সাধ্য মতো ভিন্ন আড়ম্বরে সাঁজিয়েছে দেবী অর্চনার বরণ ডালা।
প্রতিমার নান্দনিক শিল্পকর্মে মুগ্ধ ভক্তরা। ছবি: বাংলানিউজ
তিনি আরও জানান, ২০১১ সাল থেকে প্রতি বছরের দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে এ ধরণের ভিন্ন আয়োজন করে উৎসবে পরিণত করা হচ্ছে। জাতি-ধর্ম-বর্ণের ভেদাভেদ ভুলে সবাই এ আয়োজনকে সুন্দর করেছে তুলছেন। প্রতিমা বিসর্জন সম্পর্কে তিনি বলেন, যশোরাঞ্চলের অধিকাংশ মন্দির ও মণ্ডপে শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) রাতে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া হবে। তবে ভক্তদের কথা চিন্তা করে এ মন্দিরে আরও অন্তত তিনদিন পরে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিটি।

কেশবপুরের ভেরচি মহাশ্মশান মন্দির কমিটির সভাপতি হরেন্দ্র নাথ বলেন, গত বছরগুলোর ন্যায় এ বছরও ভেরচি মহাশ্মশান মন্দিরে ব্যাপক আয়োজন করা হয়েছে। এ বছর মন্দিরে ৪০২টি প্রতিমা তৈরি করা হয়েছে। এসব প্রতিমার মধ্যদিয়ে পৌরাণিক কাহিনী তুলে ধরা হয়েছে। তবে প্রতিমা বিসর্জন সম্পর্কে তিনি বলেন, অন্য বছর দর্শনার্থীদের কথা বিবেচনা করে অন্তত তিনদিন পরে বিসর্জন দেওয়া হবে, তবে এ বছর এখনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

এ বছর যশোরের ৬৭০টি স্থানে দুর্গাপূজা হচ্ছে। এরমধ্যে যশোর সদরে ১৪৫, ঝিকরগাছায় ৫১, শার্শায় ৪১, চৌগাছায় ৫১, বাঘারপাড়ায় ৮৯, অভয়নগরে ১২৫, কেশবপুরে ৯২ এবং মণিরামপুরে ৯৫টি পূজা মণ্ডপ রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ২৩৩৫ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৭, ২০১৮
ইউজি/ওএইচ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: যশোর দুর্গাপূজা
ভূমধ্যসাগর থেকে ১৪ বাংলাদেশিসহ ২৯০ অভিবাসী উদ্ধার
পিকআপের নিচে চাপা পড়া সেই চালকের মৃত্যু
গ্রিন বন্ডে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে
পেস বোলারদের ভালো করতেই হবে: রুবেল
পুলিশি অভিযানে মৃত্যু, এসআইসহ ৬ পুলিশ প্রত্যাহার


মহাখালীতে ৬ তলা ভবনে আগুন 
টেলিভিশন বিস্ফোরণে স্বামীর পর মারা গেলেন স্ত্রীও
বেকারত্বের কারণে শিক্ষা বিষয়ে শিক্ষার্থীদের আগ্রহ কমছে
আম পাড়া নিয়ে ঝগড়া, বড় ভাইকে কোপালো ছোট ভাই
কাজী নজরুল ইসলামের জন্ম
ইতিহাসের এই দিনে

কাজী নজরুল ইসলামের জন্ম