বিমানবন্দর থেকে ঢাকা- চট্টগ্রাম মহাসড়ক পর্যন্ত উড়ালসেতুর প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

রাজধানীর যানজট দূর করতে উড়াল সেতু নির্মাণের প্রস্তাব (ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে) সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন হয়েছে। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে শুরু করে কুড়িল-বনানী, তেজগাঁও, সাতরাস্তা, মগবাজার রেল কড়িডোর-খিলগাঁও-কমলাপুর-গোপালবাগ হয়ে কুতুবখালীর আগ পর্যন্ত চট্টগ্রাম মহাসড়ক পর্যন্ত রুটে এই উড়াল সেতু নির্মাণ করা হবে।

ঢাকা: রাজধানীর যানজট দূর করতে উড়াল সেতু নির্মাণের প্রস্তাব (ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে) সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন হয়েছে।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে শুরু করে কুড়িল-বনানী, তেজগাঁও, সাতরাস্তা, মগবাজার রেল কড়িডোর-খিলগাঁও-কমলাপুর-গোপালবাগ হয়ে কুতুবখালীর আগ হয়ে চট্টগ্রাম মহাসড়ক পর্যন্ত রুটে এই উড়াল সেতু নির্মাণ করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সম্মেলন কক্ষে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘ঢাকার যানজট ও ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষুদ্ধ। যানজট থেকে উত্তরনে সোমবারের বৈঠকে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পটি নির্মাণের প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে। এছাড়া এই ধরনের আরও প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য তিনি বলেছেন।’

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব আরও জানান, সোমবারের বৈঠকে প্রবাসীদের ভোটাধিকার প্রদানে ভোটার তালিকা (সংশোধন) আইন, ২০১০ প্রণয়নের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ভোটার আইন সংশোধন করে প্রবাসীদের ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করাই সংশোধনের উদ্দেশ্য। সংশোধিত আইন অনুযায়ী, প্রবাসীরা নাগরিক সনদপত্র অনুযায়ী নিজ এলাকায় ভোটার হতে পারবেন।

এছাড়া সার্ক এগ্রিমেন্ট অন ট্রেড ইন সার্ভিসেস (সাটিস) চুক্তি অনুসমর্থনের প্রস্তাব অনুমোদন করে মন্ত্রিসভা। এ অনুসমর্থনের ফলে বাংলাদেশ সার্কভূক্ত দেশগুলো থেকে বাণিজ্যিক, শিক্ষা ও জ্বালানি ক্ষেত্রে বিভিন্ন সহায়তা পাবে।

উড়াল সেতু সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব জানান, নির্মাণ কাজ আগামী বছর শুরু হয়ে তা ২০১৩ সালের মধ্যে শেষ হবে। এতে দুই হাজার কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে বেসরকারি অর্থায়নে এটি বাস্তবায়ণ করা হবে।

উড়াল সেতু নির্মাণে প্রাক-যোগ্যতাসম্পন্ন বিনিয়োগকারি হিসেবে ৪ টি প্রতিষ্ঠানকে নির্বাচন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। কোম্পানিগুলো হলো, ইতালিয়ান - থাই ডেভেলপমেন্ট পাবলিক কোম্পানী লিমিটেড (থাইল্যান্ড), সিকদার রিয়েল এস্টেট - কেসিসি জেভি (বাংলাদেশ-কোরিয়া), গ্যামন ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রজেক্ট লিমিটেড- ব্যায়োগাস ট্রাভক্স পাবলিকস এসএ কনসর্টিয়াম (ভারত-ফ্রান্স), চায়না রেলওয়ে ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড (চীন)।

বাংলাদেশ সময় : ১৬৫৫ ঘণ্টা, ২৩ আগস্ট, ২০১০।

শিক্ষককে মারধর, ভালুকা উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা
বগুড়ায় দুদকের মামলায় পৌর মেয়রসহ পাঁচজন কারাগারে
নগরবাসী পরিবর্তন চায়: হাজী মিলন
রাজধানীতে বাসের ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যু
ইসলামিক ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু করল এনআরবিসি ব্যাংক


বুধবার নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করবেন তাবিথ
মৌসুমের বাইরে লবণ চাষিদের বিকল্প পেশার ব্যবস্থা করা হবে
পঞ্চগড়ে তাপমাত্রা ৯.২ ডিগ্রি, ঠাণ্ডায় কাহিল জনজীবন
বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে চবি ছাত্রীকে মারধরের অভিযোগ
পরীবাগে দুই সাংবাদিককে মারধর, হুমকি পুলিশের