যানজটমুক্তির জন্য চাই পরিকল্পিত নগর আর আইন মেনে চলা: বিআরটিএ চেয়ারম্যান

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

‘সড়ক নির্মাণের জন্য একটি আদর্শ নগরীর মোট আয়তনের ২৫ ভাগ জায়গা রাখতে হয়। অথচ ঢাকার সড়ক আর অলিগলি মিলিয়ে বড়জোর আছে সাত ভাগ জায়গা। ফলে ক্রমবর্ধমান জনবসতির এই রাজধানী ধীরে ধীরে দমবন্ধ হওয়া যানজটের নগরীতে পরিণত হওয়াই স্বাভাবিক।’ 

ঢাকা: ‘সড়ক নির্মাণের জন্য একটি আদর্শ নগরীর মোট আয়তনের ২৫ ভাগ জায়গা রাখতে হয়। অথচ ঢাকার সড়ক আর অলিগলি মিলিয়ে বড়জোর আছে সাত ভাগ জায়গা। ফলে ক্রমবর্ধমান জনবসতির এই রাজধানী ধীরে ধীরে দমবন্ধ হওয়া যানজটের নগরীতে পরিণত হওয়াই স্বাভাবিক।’  

রাজধানীর দুঃসহ যানজট পরিস্থিতি নিয়ে বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডি’র সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান আয়ুবুর রহমান খান এসব কথা বলেছেন।

রাজধানীর যানজট নিরসনে সরকারের আন্তরিক চেষ্টার কথা উল্লেখ করে বিআরটিএ চেয়ারম্যান বলেন, যানজট নিরসনে সরকারের নানা পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ চলছে। এরই মধ্যে রাজধানীতে বিআরটিসি’র একশ’ বাস নামানো হয়েছে। আগামি দুই মাসের মধ্যে আনা হচ্ছে আরও ২শ’ বাস।

পর্যায়ক্রমে খুব শিগগিরই রাজধানীতে বিআরটিসির ৯শ’ বাস নামানোর প্রক্রিয়া চুড়ান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আয়াুবুর রহমান খান জানালেন রাজধানীর যানজট সমস্যা একদিনের নয়। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আগে যেসব বহুতল ভবন নির্মিত হয়েছে সেখানে কারপার্কিং ব্যবস্থা রাখা হয়নি।

উদাহরণ হিসেবে তিনি মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকার বিভিন্ন পুরনো ভবনের প্রসঙ্গে বলেন, সেখানে গাড়ি চলাচল তো দূরের কথা, গাড়ি পার্কিং করার মতো জায়গাও পাওয়া যায় না। মূল রাস্তায় অপ্রশস্ত একটি লেন বাদ রেখে পুরোটাই গাড়ির জটলায় আটকে থাকে সব সময়।

বর্তমানে বহুতল ভবন নির্মাণে নিজস্ব গাড়ি  পার্কিং ব্যবস্থা না থাকলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এমনকি এ ক্ষেত্রে ভবন নির্মাণের উপর নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি ।

এক প্রশ্নের জবাবে বিআরটিএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘মূল্যবান তেল সম্পদ বাঁচাতে, সাশ্রয়ী হওয়ার চিন্তায় গাড়িতে সিএনজি ব্যবহারের ব্যাপারে উৎসাহী করা হল। এরপর শুধুমাত্র ব্যাংকগুলোকে ঢালাওভাবে গাড়ি কেনার ঋণ দেওয়ার জন্য দোষী করা হল। কিন্তু গাড়ি কেনা এবং গাড়ির খরচের ব্যাপারে সাশ্রয়ের কথা চিন্তা করা হল অথচ গাড়িগুলো কোথায় চলবে একবারও সেই চিন্তা করা হল না।’

ফিটনেসবিহীন অবৈধ ও পুরোনো গাড়ি  উচ্ছেদ অভিযান প্রসঙ্গে বিআরটিএ চেয়ারম্যান বলেন, ২০ বছরের পুরোনো বাস ও ২৫ বছরের পুরোনো ট্রাকসহ ফিটনেসবিহীন অবৈধ গাড়ি উচ্ছেদে গত ১৫ জুলাই হতে শুরু হওয়া অভিযান সফলভাবেই চলছে। রাজধানীতে এখন লক্কড়ঝক্কড় মার্কা যানবাহন নেই বললেই চলে।

রং পাল্টে পুরনো গাড়ি রাস্তায় নেমে পড়া বিষয়ে তিনি বলেন, ইঞ্জিন তৈরির সাল দেখে একটি গাড়ির ফিটনেস পরীক্ষা করা হয়। বাইরে থেকে একনজরে এগুলোকে ফিটনেসবিহীন যানবাহন মনে হলেও গাড়ির ইঞ্জিন মূলত ফিটনেসবিহীন নয়।

এখন ভূয়া ড্রাইভিং লাইসেন্সধারী চালক আর ভূয়া কাগজপত্রের গাড়ি আটকের ব্যাপারেই অধিক মনোযোগ দেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

তিনি জানান, গাড়ি  এবং চালক উভয়ের ভূয়া কাগজপত্র আটকের ব্যাপারে বিআরটিএ’র পক্ষ থেকে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। যোগাযোগ মন্ত্রণালয় থেকে সংস্থাপণ মন্ত্রণালয়ের সুপারিশে দেশের সকল জেলা প্রশাসকদের নিকট এই ব্যাপারে নোটিশ পাঠানোর বিষয়টি বিবেচনাধীন রয়েছে। ঈদের পরপরই এই কার্যক্রম শুরু হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

তবে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে যত উদ্যোগই নেওয়া হোক না কেন অসহনীয় যানজট থেকে মুক্তি পেতে পরিকল্পিত নগর ব্যবস্থাপনা আর কঠোরভাবে আইন মেনে চলার বিকল্প নেই বলে মনে করেন বিআরটিএ চেয়ারম্যান।

বাংলাদেশ সময় : ১৫৫৭ ঘণ্টা, ২৩ আগস্ট, ২০১০।

আশুলিয়ায় বাসচাপায় নির্মাণ শ্রমিক নিহত
সেরেনার হতাশাজনক বিদায়, চতুর্থ রাউন্ডে শীর্ষ বাছাই বার্টি 
রাতের আঁধারে বর্জ্য ফেলা হচ্ছে কীর্তনখোলায়
ঝুঁকিপূর্ণ পারাপার, বাড়ছে দুর্ঘটনা
বাহুবলে বাস উল্টে ৩ জন নিহত


ড্রেজার মেশিন বিকল, বরিশাল নদীবন্দর এলাকায় খনন বন্ধ
দেউলিয়া আ’লীগ বিএন‌পির বিজয় বাধাগ্রস্ত করতে চায়: ফখরুল
শতভাগ দেশি কর্মীর হাতে তৈরি সিম্ফনি মোবাইল, লক্ষ্য রফতানি
লবণ যেভাবে রক্তচাপ বাড়ায় 
দুই মেয়র প্রার্থীসহ কোকোর কবর জিয়ারত করলেন ফখরুল