ঢাকা, বুধবার, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ১২ আগস্ট ২০২০, ২১ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

নিশ্চিত হয়ে টাকা নিচ্ছেন গরুর ব্যাপারীরা

শেখ জাহাঙ্গীর আলম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৫৪২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৭
নিশ্চিত হয়ে টাকা নিচ্ছেন গরুর ব্যাপারীরা নিশ্চিত হয়ে টাকা নিচ্ছেন গরুর ব্যাপারীরা। ছবি: শাকিল

ঢাকা: ‘টাকা গোনার সময় ভালো করে দেখে নিচ্ছি, হাসিলের কাউন্টারে থাকা মেশিনে চেক করে নিশ্চিত হচ্ছি। জালনোট এখনও পাওয়া যায়নি। তবুও ক্রেতাদের কাছ থেকে দেখেই টাকা নিচ্ছি’- কথাগুলো বলছিলেন ঝিনাইদহ থেকে আসা গরুর ব্যাপারী মো. আমিনুল।

গত মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) রাজধানীর কমলাপুরে কোরবানির পশু হাটে ১২টি গরু নিয়ে এসেছেন তিনি। ইতোমধ্যে তার পাঁচটি গরু বিক্রি হয়ে গেছে, বাকি সাতটি বিক্রির অপেক্ষায়।

আমিনুল বলেন, ‘এ হাটে নিরাপত্তা ভালোই আছে, ক্রেতাও আছেন, কিন্তু আশানুরুপ দাম পাচ্ছি না। ক্রেতারা টাকা দিচ্ছেন, সেগুলো ভালো করে দেখে নিচ্ছি। সন্দেহ হলে ওই হাসিল ঘরে থাকা মেশিনে চেক করছি’।

এখন পর্যন্ত কোনো জালনোট ধরা না পড়লেও হাটের সব বিক্রেতারাই খুব সতর্কতার সঙ্গে ক্রেতাদের কাছ থেকে টাকা বুঝে নিচ্ছেন।

শুক্রবার (০১ সেপ্টেম্বর) সরেজমিনে দেখা গেছে, এ হাটের প্রায় প্রতিটি হাসিল ঘরেই একটি করে জালনোট শনাক্তকরণ মেশিন রয়েছে। পুলিশ কন্ট্রোলরুমে আছে আরও ছয়টি মেশিন। পশু বিক্রির টাকা লেনদেনে খুব সাবধানতা অবলম্বন করতে দেখা গেছে ক্রেতা-বিক্রেতাদের।  

প্রতিটি হাসিল ঘরে রয়েছে টাকা শনাক্তকরণ মেশিন।  ছবি: সুমন শেখপুলিশ বলছে, রাজধানীর প্রতিটি কোরবানির পশুর হাটে এমন ব্যবস্থা রয়েছে। কোনো ব্যবসায়ী যেন প্রতারিত না হন, সেজন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক রয়েছেন। ছিনতাই এড়াতে বেশি অর্থ বহনে মানিস্কটও দিচ্ছে পুলিশ।

তারা জানান, ‘জালনোট চক্রের সদস্যরা বিক্ষিপ্তভাবে থেকেও তাদের তৎপরতা চালানোর চেষ্টা করতে পারেন। সেজন্য পশুর হাটগুলো ছাড়াও বিভিন্ন শপিংমল ও মার্কেটে আমাদের নজরদারি অব্যাহত রয়েছে’।
 
গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, যেকোনো উৎসবকে কেন্দ্র করেই জালনোট তৈরি চক্রের সদস্যরা সক্রিয় হয়ে ওঠেন। একাধিক সিন্ডিকেটে ভাগ হয়ে তৎপরতা চালান তারা। কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে এ তৎপরতা অনেক বেড়ে যায়। কারণ, এ সময় বিভিন্ন পশুর হাট, মার্কেট ও শপিং হলে প্রচুর অর্থের লেনদেন হয়।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বাংলানিউজকে বলেন, রাজধানীর প্রতিটি পশুর হাট, বিভিন্ন মার্কেট ও শপিংমলে জালনোট শনাক্তের মেশিন রয়েছে।

ঈদে রাজধানীর সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।  

বাংলাদেশ সময়: ১১৩০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৭
এসজেএ/এএসআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa