ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৪ আগস্ট ২০২০, ১৩ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

প্রাকৃতিক মোটা-তাজার পর এবার পরিবেশবান্ধব কোরবানি

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৮-২৭ ০১:০০:২২ পিএম
প্রাকৃতিক মোটা-তাজার পর এবার পরিবেশবান্ধব কোরবানি প্রাকৃতিক মোটা-তাজার পর এবার পরিবেশবান্ধব কোরবানি

নীলফামারী: নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা শহরে কোরবানির জন্য জায়গা পাওয়া বেশ কষ্টকর। যত্র-তত্র পশু জবাইয়ে পরিবেশ দূষণের আশঙ্কায় কড়াকড়ি থাকে পৌরসভারও।

এ সমস্যার সমাধানে নিজেদের খামারে একযোগে ২০০ পশু জবাই ও পরিবেশবান্ধব বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও মাংস কাটার সুবিধা দিচ্ছে উপজেলা শহরের বাঁশবাড়ি এলাকার ইউসুফ ডেইরি ফার্ম। খামারটি এর আগে কোনো ধরনের রাসায়নিক ও স্টোরওয়েড ছাড়াই সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে গরু মোটা-তাজা করে সুনাম কুড়িয়েছে।

 

কোরবানির হাটে তোলার আগেই সরাসরি খামার থেকে সে ধরনের বেশ কিছু গরুও ইতোমধ্যে বিক্রি হয়ে গেছে।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতর জানায়, কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে উপজেলায় নিবন্ধিত ১২০টি ছাড়াও আরও কমপক্ষে ২০০টি গরুর খামারে এবার কমপক্ষে ৩০ হাজার গরু মোটা-তাজা করা হয়েছে। সৈয়দপুর থেকে ঢাকার বিভিন্ন কোরবানির হাটে যাচ্ছে এর অধিকাংশ গরু।

সরেজমিনে শহরের ইউসুফ ডেইরি ফার্মে গেলে স্বত্তাধিকারী জামিল আশরাফ মিন্টু বলেন, ‘ছয়জন কর্মচারীকে নিয়ে নিজেও গরুগুলোর পরিচর্যা করছি। গত বছর কোরবানির ঈদে ৮৬টি গরু বিক্রি করেছিলাম। এবারের লক্ষ্যমাত্রা ২০০টি, যার সিংহভাগই বিক্রি হয়ে গেছে। আমরা গরু মোটা-তাজা করতে কোনো রাসায়নিক ব্যবহার করি না। সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক খাবার দেই গরুগুলোকে’।

খামারে থাকা দেশি, শংকর ও সাহেবান জাতের গরুর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

তরুণ উদ্যোক্তা মিন্টু বলেন, ‘কোবরবানির ঈদ উপলক্ষে এবার আমরা প্যাকেজ ঘোষণা করেছি। এলাকার যারা পশু জবাই করবেন, তাদের সকলকেই এ প্যাকেজ অনুসারে আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, পশু জবাই ও মাংস কাটার যাবতীয় সুবিধা দেওয়া হবে। ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি, পৌরসভা থেকেও আমাদের এ উদ্যোগকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে’।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এনামুল হক বলেন, ইউসুফ ডেইরি ফার্ম গত কয়েক বছর ধরে প্রাকৃতিক উপায়ে গরু মোটা-তাজা করছে। কোরবানির জন্য তাদের গরুর চাহিদা অনেক। খামারটি এখন অনুকরণীয় প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে’।

‘আমাদের বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও খামারটি পরিদর্শন করেছেন। আমরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেছি যে, সেখানে গরু মোটা-তাজা করতে কোনো রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়নি বা হচ্ছে না। ফলে প্রতিটি গরুকেই আমরা সনদ দিয়েছি’।

সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র আমজাদ হোসেন সরকার বলেন, ‘কোরবানির ঈদকে ঘিরে ইউসুফ ডেইরি ফার্মের প্যাকেজ ঘোষণা প্রশংসার দাবি রাখে। আশা করি, পৌর এলাকার সকল খামারই এ ধরনের সুবিধা দেবে। এতে পরিবেশ রক্ষা পাবে, পরিচ্ছন্নতার কাজে পৌরকর্মীদেরও বেগ পেতে হবে না’।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৪০ ঘণ্টা, আগস্ট ২৭, ২০১৭
এএসআর
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa