ঢাকা, রবিবার, ৫ আশ্বিন ১৪২৭, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১ সফর ১৪৪২

জাতীয়

অগ্নি সন্ত্রাসের শিকার ৬ জনকে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০০১ ঘণ্টা, আগস্ট ২২, ২০১৭
অগ্নি সন্ত্রাসের শিকার ৬ জনকে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা অগ্নি সন্ত্রাসে নিহত ও আহতদের সহায়তার চেক তুলে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা:  বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময় অগ্নি সন্ত্রাসে নিহত ও আহত ৬ জনকে আর্থিক সহায়তার ৩০ লাখ টাকার চেক তুলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার (২২ আগস্ট) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যদ ও আহত ব্যক্তিদের হাতে সহায়তার চেক তুলে দেন তিনি।  

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

অগ্নি সন্ত্রাসের শিকার কুমিল্লার সদর দক্ষিণের শামসুল হকের স্ত্রী মোসাম্মৎ শামসুন নাহার, কক্সবাজার চকরিয়ার মৃত মোহাম্মদ ইউসুফ এর স্ত্রী ফরিদা বেগম, মৃত মোহাম্মদ সাইয়্যেদ আহমেদের স্ত্রী সালমা বেগম, মৃত রাশেদুল ইসলামের স্ত্রী সুমি আক্তার, পু্ত্র আব্দুল্লাহ আল ইউসুফ রাফি, আবদুল্লাহ আল সুয়াইম রাহাত প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে চেক গ্রহণ করেন।  

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার নিজ কার্যালয়ে সাক্ষাত করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত মাসাতো ওয়াতানোবে।  

পরে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

বাংলাদেশের উন্নয়নে জাপানের সহায়তা অব্যাহত থাকবে জানিয়ে সাক্ষাতকালে জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য আমাদের সহায়তা অব্যাহত রাখবো। ’ 

জাপান বাংলাদেশের কয়েকটি মেগা প্রকল্পে ৬শ বিলিয়ন ইয়েন ঋণ সুবিধা প্রদান করছে বলে জানান রাষ্ট্রদূত।

বাংলাদেশে বিনিয়োগে জাপানি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, জাপানের বিনিয়োগকারীগণও বাংলাদেশের প্রতি গভীরভাবে নজর রাখছেন।  

মাসাতো ওয়াতানাবে দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। বিদায়ী রাষ্ট্রদূত তার দায়িত্ব পালনকালে সবরকমের সহযোগিতা প্রদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান।

জাপানের প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ সবসময়ই জাপানকে তার বড় বন্ধু মনে করে।

তিনি বলেন, ‘জাপানকে আমরা সবসময়ই আমাদের বড় বন্ধু বলে মনে করি কেননা তারা সবসময়ই বাংলাদেশের উন্নয়নে সহযোগিতা করে আসছে। ’

বাংলাদেশ স্বাধীনের পর থেকেই জাপানের বিভিন্ন সহযেগিতার কথা স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। স্বাধীনতা পরবর্তীকালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জাপান সফরের পরেই বঙ্গবন্ধু সেতুর সম্ভাব্যতা যাচাই করা হয়েছিল বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

চলমান বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যেই এদেশের জনগণের বসবাস।  বন্যা মোকাবেলায়, সেখানকার মানুষের কষ্ট লাঘবে সরকার কাজ করে যাচ্ছে জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, কিভাবে এই দুর্যোগ মোকাবেলা করতে হয় তাও আমরা শিখে গেছি।

জাপানের সঙ্গে ব্যবসা এবং বিনিয়োগের প্রসংগে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে সরকার জাপানী বিনিয়োগকারীদের জন্য ১ হাজার একর জমি বরাদ্দ দিয়েছে। তার সরকার সব রকমের নিরাপত্তাসহ জাপানের প্রকল্পগুলোকে সম্ভাব্য সকল সহযোগিতা প্রদান করবে।

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারীতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনাকে দুঃখজনক উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা শক্তহাতে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সমর্থ হয়েছি।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী দেশের সকল শ্রেণী পেশার নাগরিকদের সঙ্গে নিয়ে তার সরকারের সন্ত্রাস বিরোধী গণসচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগও তুলে ধরেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫৬ ঘণ্টা, আগস্ট ২২, ২০১৭
এমইউএম/বিএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa