ঢাকা, রবিবার, ৫ আশ্বিন ১৪২৭, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১ সফর ১৪৪২

জাতীয়

নতুন ফসল না ওঠা পর্যন্ত বন্যার্তদের সহায়তা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬০৪ ঘণ্টা, আগস্ট ২০, ২০১৭
নতুন ফসল না ওঠা পর্যন্ত বন্যার্তদের সহায়তা দিনাজপুরে বন্যার্তদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা- ছবি: বাংলানিউজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

দিনাজপুর: চলতি আমন মৌসুমের নতুন ফসল ঘরে না ওঠা পর্যন্ত বন্যার্তদের সহায়তা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার (২০ আগস্ট) দিনাজপুর জিলা স্কুল আশ্রয়কেন্দ্রে বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ শেষে দেওয়া ভাষণে তিনি এ কথা বলেন।  

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বন্যায় যাদের ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তা মেরামত করে দেওয়া হবে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করে দেশের মানুষকে শান্তিতে রাখতে জানে আওয়ামী লীগ। আপনারা চিন্তা করবেন না। আপনাদের সঙ্গে সরকার আছে। বন্যার্তদের সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।  

তিনি বলেন, যেসব শিক্ষার্থীদের বই-খাতা বন্যার পানিতে ভেসে গেছে তাদের নতুন করে বই দেওয়া হবে।

বন্যার্তদের জন্য সার্বক্ষণিক সহযোগিতা ও খোঁজ-খবর নিতে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বন্যার্তদের উদ্দেশে বলেন, আমি যতদিন আছি আমার বাবার মতোই আপনাদের পাশে থাকবো। বন্যার পানি নেমে গেলেই জেলার সড়ক ও রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার দ্রুত উন্নতি করা হবে। ৫০ লাখ পরিবারকে চাল দিচ্ছি। আপনারা যাতে ১০ টাকা কেজি চাল খেতে পারেন তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন-প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান, খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. কামরুল ইসলাম, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জাল হোসেন চৌধুরী মায়া, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইমাম চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি, শিবলি সাদিক এমপি, জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম, পুলিশ সুপার মো. হামিদুল আলমসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

জিলা স্কুল থেকে প্রধানমন্ত্রী বিরল উপজেলার তেঘরা উচ্চ বিদ্যালয়ে বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন। সেখানে তিনি সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন।  

বিরল থেকে বর্তমানে দিনাজপুর সার্কিট হাউজে অবস্থান করছেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে তিনি দুপুরের নামাজ আদায় ও খাবার খান। এরপর স্থানীয় দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

কিছুক্ষণের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী কুড়িগ্রামের বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করতে হেলিকপ্টারযোগে রওনা হবেন।  

প্রধানমন্ত্রীর দিনাজপুর আগমন উপলক্ষে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। শহরের গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ।  

দিনাজপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. হামিদুল আলম বাংলানিউজকে জানান, প্রধানমন্ত্রীর দিনাজপুর আগমন উপলক্ষে দিনাজপুরে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। নিরাপত্তার কাজে নিয়োজিত রয়েছে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য। সাদা পোশাকের পাশাপাশি র্যাব ও পুলিশ সদস্যরা সার্বক্ষণিক টহল দিচ্ছে।  

**দিনাজপুরে প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ সময়: ১২০১ ঘণ্টা, আগস্ট ২০, ২০১৭/আপডেট: ১৫১৬ ঘণ্টা
বিএস/আরআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa