বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি শ্রমিক ধর্মঘট:

সমঝোতা না হওয়ায় মঙ্গলবার আবার বৈঠক

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি শ্রমিকদের সমস্যা সমাধানে পেট্রোবাংলা, খনি কর্তৃপক্ষ, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ও শ্রমিক নেতাদের মধ্যে অনুষ্ঠিত জরুরি বৈঠক সোমবার রাত সোয়া ৮টায় কোন সমঝোতা ছাড়াই শেষ হয়েছে।

পার্বতীপুর (দিনাজপুর): বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি শ্রমিকদের সমস্যা সমাধানে পেট্রোবাংলা, খনি কর্তৃপক্ষ, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ও শ্রমিক নেতাদের মধ্যে অনুষ্ঠিত জরুরি বৈঠক সোমবার রাত সোয়া ৮টায় কোন সমঝোতা ছাড়াই শেষ হয়েছে।

সোমবার বিকেল ৪টায় জ্বালানি মন্ত্রণালয়ে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ও শ্রমিক নেতারা নিজ নিজ অবস্থানে অনড় থাকায় কোন সমঝোতা হয়নি। মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় আবার বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে, সোমবার কয়লাখনি শ্রমিকদের ধর্মঘটের তৃতীয় দিন অতিবাহিত হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার (অব.) এনামুল হক, ভূমি প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান এমপি, জ্বালানি সচিব মেজবাহ উদ্দীন, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান ড. হোসেন মনছুর, দিনাজপুর জেলা প্রশাসক জামাল উদ্দিন আহম্মেদ, কয়লা খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী কামরুজ্জামান, ব্যবস্থাপক (সেন্ট্রাল মাইনিং) খান মোহাম্মাদ জাফর সাদিক, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সিএমসি’র মিশন চিফ মি. লু উই জং, এক্সএমসি’র সাইট রিপ্রেজেনটেটিভ মি. চিন রং হং, কয়লাখনি শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের উপদেষ্টা মোহসিন আলী, সভাপতি রবিউল ইসলাম, সম্পাদক শরিফুল হক মতিন, সদস্য ওয়াজেদ আলীসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও পেট্রোবাংলার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে উপস্থিত বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সম্পাদক শরিফুল হক মতিন বাংলানিউজকে বলেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান আগের অবস্থান থেকে সরে না আসায় বৈঠকে কোন সমঝোতা হয়নি।

তিনি বলেন, সন্ধ্যা ৬টায় বৈঠক থেকে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী ও ভূমি প্রতিমন্ত্রী কোন সিদ্ধান্ত না দিয়েই উঠে যান।

এক প্রশ্নের জবাবে শরিফুল হক মতিন বলেন, তাদের দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে।

এ বিষয়ে কয়লাখনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী কামরুজ্জামানের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, আজকের বৈঠকে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এক্সএমসি ও শ্রমিকদের মধ্যে কোন সমঝোতা হয়নি। তবে আগামীকাল মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় পুনরায় বৈঠকে বসা হবে।
 
উল্লেখ্য, খনি রক্ষণাবেক্ষণ ও উৎপাদন (এমএন্ডপি) কাজে নিয়োজিত চীনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স এক্সএমসি’র অধীনে কর্মরত বাংলাদেশি এক হাজার ৮৬ জন শ্রমিক দীর্ঘদিন থেকে স্থায়ী নিয়োগ, মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডে কর্মরত শ্রমিকদের সমপরিমাণ বেতন-ভাতা ও পে-স্কেল অনুযায়ী বেতন দেওয়াসহ বিভিন্ন দাবিতে আন্দোলন করে আসছে।

দাবি না মানায় শ্রমিকরা গত ২৩ আগস্ট থেকে ধর্মঘট শুরু করেছে। ২৭ আগস্ট সন্ধ্যা ৭টা থেকে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিরতি দিয়ে তারা আবার ৩ সেপ্টেম্বর সকাল ৬টা থেকে ধর্মঘট পালন শুরু করেছে। এ সময়ের মধ্যে সমস্যা সমাধানে কয়লাখনিতে ৬ দফা বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও কোন সমঝোতা না হওয়ায় জ্বালানি মন্ত্রণালয়ে জরুরি বৈঠক ডাকা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ০১০০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ০৬, ২০১১

না’গঞ্জের তিন এলাকা রেড জোন, লকডাউন ঘোষণা 
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪২ মৃত্যু, শনাক্ত ২৭৪৩
করোনা আতঙ্কে কাছে যায়নি কেউ, মরদেহ উদ্ধার করলো পুলিশ
৪ বছরে তৃতীয়বার অবসরের ঘোষণা দিলেন ম্যাকগ্রেগর
জামিন পাননি ফারমার্স ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার সোহেল


গাজীপুরে কিশোরকে শ্বাসরোধে হত্যা
সেনবাগে করোনায় পৌর অফিস সহকারীর মৃত্যু
আনন্দ নেই পরমানন্দপুরে, আছে শুধু উৎকণ্ঠা আর আতঙ্ক
করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন এসআই একরামুল
জামিন পাননি ডিআইজি মিজানের ভাগ্নে এসআই মাহমুদুল