জার্মানিতে মিয়ানমার-বাংলাদেশ সমুদ্রসীমা বিরোধের শুনানি বৃহস্পতিবার

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

জাতিসংঘে যুক্তি উত্থাপনের পর এবার জার্মানির হামবুর্গে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের সমুদ্রসীমা নিয়ে চলমান বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার ১৭ দিনব্যাপী শুনানি শুরু হচ্ছে।

ঢাকা: জাতিসংঘে যুক্তি উত্থাপনের পর এবার জার্মানির হামবুর্গে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের সমুদ্রসীমা নিয়ে চলমান বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার ১৭ দিনব্যাপী শুনানি শুরু হচ্ছে।

আগামী ৮ সেপ্টেম্বর থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কয়েক দফায় প্রতিবেশী এ দু’দেশের সমুদ্রসীমা বিরোধের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

জার্মানির হামবুর্গভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল ট্রাইবুন্যাল ফর দ্য ল অব দ্য সির (আইটিএলওএস) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সোমবার এ তথ্য জানানো হয়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বহিঃপ্রচার অণুবিভাগের মহাপরিচালক শামীম আহসান বাংলানিউজকে জানান, শুনানিতে অংশ নিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি আগামী ৮ থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর জার্মানি সফর করবেন।

ইন্টারন্যাশনাল ওই ট্রাইব্যুনালের প্রেসিডেন্টের সভাপতিত্বে ৮ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সময় সকাল ১০টা থেকে প্রাথমিক শুনানি শুরু হবে।

দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মাধ্যমে সমুদ্রসীমার বিরোধ নিষ্পত্তির সূত্র না পাওয়ায় দেশ দুটি যৌথ সম্মতিতে ২০০৯ সালের ১৪ ডিসেম্বর আইটিএলওএসে মামলা করে।

২০১০ সালের ১ জুলাই মিয়ানমার ও ১ ডিসেম্বর বাংলাদেশ এ সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত ট্রাইব্যুনালে জমা দেয়।  

আইটিএলওএসের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আন্তর্জাতিক সমুদ্রআইন বিশেষজ্ঞ টমাস মেনসাহ বাংলাদেশের পক্ষে ও অধ্যাপক বার্নার্ড এইচ অক্সম্যান মিয়ানমারের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেবেন।

প্রাথমিক সূচনা বক্তব্যের পর ৮ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের মৌখিক শুনানি শুরু হবে। ১৩  সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ শুনানি চলবে। মাঝে ১১ সেপ্টেম্বর অবশ্য রোববার হওয়ায় সেদিন শুনানি অনুষ্ঠিত হবে না।

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে ১টা পর্যন্ত শুনানি চলবে। তবে ১২ সেপ্টেম্বর বিকেলের সেশনেও ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত হবে শুনানি।

১৫ থেকে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মিয়ানমার ট্রাইব্যুনালে তাদের মৌখিক যুক্তি তুলে ধরবে। মাঝে ১৭ ও ১৮ সেপ্টেম্বর শুনানি হবে না।

মিয়ানমার প্রথম দু’দিন বিকেল ৩টা থেকে ৬টা এবং ১৯ সকাল ১০টা থেকে মাঝে এক ঘণ্টার বিরতি দিয়ে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত ও ২০ সেপ্টেম্বর সকাল দশটা থেকে ১টা পর্যন্ত শুনানি হবে।

এরপর ২১ ও ২২ সেপ্টেম্বর তিনটি সেশনে আবারো বাংলাদেশের পক্ষে যুক্তি-তর্ক তুলে ধরা হবে।

২৪ সেপ্টেম্বর মিয়ানমার সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত তিনটি সেশনে দ্বিতীয় দফায় তাদের তথ্য-যুক্তি তুলে ধরবে।

বঙ্গোপসাগরে মহীসোপানের মালিকানা নিয়ে গত ২৪ আগস্ট জাতিসংঘের সিএলসিএসে যুক্তি উত্থাপন করে বাংলাদেশ।

মহীসোপানে বাংলাদেশ ৩৯০ থেকে ৪৬০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত দাবি করলেও মিয়ানমার তাতে আপত্তি জানিয়ে বলে, বাংলাদেশ মহীসোপান পরিমাপের আন্তর্জাতিক আইন মানেনি।

অপর প্রতিবেশি ভারতও একই আপত্তিতে সিএলসিএসে গত ২০ জুন আপত্তিপত্র জমা দেয়। এর আগে মিয়ানমার অবশ্য ৩১ মার্চ তাদের আপত্তিপত্রের নথি জাতিসংঘের সিএলসিএসে জমা দিয়েছে।

ভারতের যুক্তি, বঙ্গোপসাগরের পশ্চিম অংশের সূচনাবিন্দু পরিমাপে বাংলাদেশ ভুল করেছে।

বাংলাদেশ সময়: ২১৩৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১১

করোনা আতঙ্ক নিয়েই ঘরে ফিরছে মানুষ
সড়কে দায়িত্ব পালনে গর্বিত, আফসোস নেই ট্রাফিক সদস্যদের
দেশবাসীকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা সাজেদা চৌধুরীর
‘চির উন্নত শির...’
আজ ১২১তম নজরুলজয়ন্তী

‘চির উন্নত শির...’

সাবেক এমপি মকবুলের মৃত্যুতে তাপসের শোক


হাসপাতাল কর্মচারীদের জন্য আতিকের ঈদ উপহার
সিলেট আওয়ামী পরিবারে করোনার হানা
হাজি মকবুলের মৃত্যুতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর শোক
কল্যাণপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত
সিলেটে নতুন ১৮সহ ২৮ জনের করোনা পজিটিভ