না’গঞ্জে যুবককে পুরুষাঙ্গে ইট বেঁধে নির্যাতন: গ্রেপ্তার ২

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় প্রেম করে বিয়ে করায় বাবু চক্রবর্তী নামের এক সংখ্যালঘু যুবকের পুরুষাঙ্গে ইট বেঁধে অমানবিক নির্যাতনের ঘটনায় রোববার বিকেলে পলাতক দু’জন ইউপি সদস্যকে (মেম্বার) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।



নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় প্রেম করে বিয়ে করায় বাবু চক্রবর্তী নামের এক সংখ্যালঘু যুবকের পুরুষাঙ্গে ইট বেঁধে অমানবিক নির্যাতনের ঘটনায় রোববার বিকেলে পলাতক দু’জন ইউপি সদস্যকে (মেম্বার) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন বন্দর উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) নূরুদ্দিন মিয়া ও ৭ নং ওয়ার্ডের মঞ্জুর হোসেন। তাদের দ’জনের মধ্যে নূরুদ্দিন ওই সংখ্যালঘুকে নির্যাতনে দায়ের করা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। তবে মঞ্জুর মামলার আসামি না হলেও তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ।

উল্লেখ্য, বন্দর উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন (লাঙ্গলবন্দ) মহাত্মা গান্ধী মন্দিরের পূজারী রমেশ চক্রবর্তীর ছেলে বাবু চক্রবর্তীর সঙ্গে মুছাপুর এলাকার ব্রজেন্দ্র দাসের মেয়ে আনিতা রাণীর দীর্ঘদিনের প্রেম ছিল। গত এপ্রিল মাসে তারা দু’জনে বিয়ে করে। মেয়ের বাবা ব্রজেন্দ্র এ বিয়ে মেনে না নিয়ে মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের কাছে বিচার দাবি করেন।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৬ জুলাই বিকালে মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত (২৯ জুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়) চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মন্দিরে বসে এক সালিশে শত শত লোকের উপস্থিতিতে এককভাবে রায় দিয়ে নিজেই গাছের ডাল দিয়ে বাবু চক্রবর্তীকে বেধড়ক মারধর করেন। পরে বাবুর পুরুষাঙ্গে ইট বেঁধে দুই কিলোমিটার এলাকা হাঁটতে বাধ্য করেন। আনোয়ারের এ অপকর্মে অন্যান্য আসামিরা জড়িত ছিল।

একটি বেসরকারি মানবাধিকার সংস্থার পক্ষ থেকে এ ঘটনায় দোষীদের শাস্তি প্রদানের জন্য হাইকোর্টে রিটও করা হয়। কিন্তু গত ২৪ জুলাই এক সড়ক দুর্ঘটনায় চেয়ারম্যান আনোয়ার নিহত হন। আনোয়ার মারা যাওয়ার পর থেকেই আসামিরা পলাতক ছিল। তবে পুলিশ ৬ আসামির মধ্যে গত বুধবার রাতে বিমল বিশ্বাস নামের এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে। সে বাবুল চক্রবর্তীকে নির্যাতনের সময়ে সহযোগিতা করেছিল।


এদিকে, রোববার বিকেলে বন্দর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনের বারান্দা থেকে তাদের দু’জনকে আটক করা হয়। আটকের কিছুক্ষণ আগে তারা মিলনায়তনে শপথ বাক্য পাঠ করেন। ওই অনুষ্ঠানে গত ২৯ জুন অনুষ্ঠিত বন্দর উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের শপথ বাক্য পাঠ করান নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক সামছুর রহমান।

অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রফিকুল ইসলাম ও উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুলসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অভিযোগ রয়েছে, সংখ্যালঘু যুবককে নির্যাতনের অভিযোগ দায়ের মামলার এজাহারভুক্ত অপর ২  আসামি মুছাপুর ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের মেম্বার নবী হোসেন ও ৫ নং ওয়ার্ডের মোতালিব মিয়া রোববার একই সঙ্গে শপথ গ্রহণ করলেও পুলিশ তাদের আটক করেনি।

বন্দর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুন-অর-রশিদ বাংলানিউজকে জানান, সংখ্যালঘু যুবককে নির্যাতনের অভিযোগে এজাহারভুক্ত আসামিসহ মোট ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে নূরুদ্দিন এজাহারভুক্ত আসামি। মামলা দায়েরের পর থেকে সে পলাতক ছিল। এ মামলায় গ্রেপ্তার এক আসামির স্বীকারোক্তি মোতাবেক মঞ্জুর হোসেনকে আটক করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৭ ঘণ্টা, ১৪ আগস্ট, ২০১১

ফেনী ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের আলোকচিত্র প্রদর্শনী
মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে প্রবেশকালে আটক ৪ 
জাতীয় হ্যান্ডবল দলের গোলরক্ষক সোহান দুর্ঘটনায় নিহত
গ্রন্থমেলায় মুহাম্মদ আসাদুজ্জামানের ‘ভালোবাসার গল্প’
কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাসে অন্যরকম একুশ


চুনারুঘাট সীমান্তে ভারতীয় মুদ্রাসহ আটক ৫
শহীদদের ‘স্মৃতিচিহ্ন’ এঁকে পুরস্কার পেলো শিশুরা
অধিনায়কত্বটা এখন উপভোগ করি: মুমিনুল
বাবার প্রতিকৃতির সামনে প্রধানমন্ত্রীর সেলফি
এবার আমিরাতে ১ বাংলাদেশি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত