রামেক হাসপাতালের সেই স্বাচিপ নেতাকে সরানো হচ্ছে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) ও বিএমএ’র সেই নেতা এবং রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মহিবুল হাসানকে অবশেষে তার কর্মস্থল থেকে সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।



রাজশাহী: স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) ও বিএমএ’র সেই নেতা এবং রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মহিবুল হাসানকে অবশেষে তার কর্মস্থল থেকে সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।
রামেক এ সদ্য সংঘটিত অপ্রীতিকর ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার বিকেলে সিটি মেয়র ও হাসপাতাল পরিচালনা পরিষদের সভাপতির সঙ্গে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ, আইন-শৃংখলা বাহিনী ও বিএমএ এবং স্বাচিপ নেতাদের মতবিনিময় সভায় ডা. মহিবুলকে রাজশাহীর বাইরে বদলি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এ সময় বিএমএ ও স্বাচিপ নেতারা ডা. মহিবুলসহ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবি জানান।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের রাজশাহী জেলা সভাপতি ডা. সৈয়দ সাফিকুল আলম বলেন, স্বাচিপ ও বিএমএ’র নেতাদের সুপারিশের সঙ্গে সিটি মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটনসহ সবাই একমত হয়েছেন। সভায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া, হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুছ ছবুর মিঞা, রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার এম. ওবাইদুল্লাহ ছাড়াও সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে শুক্রবার রাতে মেডিক্যাল কলেজ সভা কক্ষে স্বাচিপ ও বিএমএ’র জরুরি সভায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রীর ছবিসহ যুবলীগ কার্যালয় ভাংচুরের ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ডা. মহিবুলকে রামেক স্বাচিপ শাখার সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিস্কার করা হয়। একই সাথে স্বাচিপ’র যুগ্ম সম্পাদক চিন্ময় কান্তি দাসকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

ওই সভায় বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিস্কার করার জন্য কেন্দ্রীয় কমিটিকে সুপারিশ এবং তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য মেডিকেল কলেজের একাডেমিক কাউন্সিল ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পরিচালনা পরিষদকে সুপারিশ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার রাতে রামেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক এবং স্বাচিপ ও বিএমএ নেতা ডা. মহিবুল হাসান তার নিজস্ব মাইক্রোপ্যাথ ক্লিনিকে লাঞ্ছিত হয়। ঘটনায় জের ধরে তার সমর্থিত রামেক ছাত্রলীগের একাংশের নেতা-কর্মীরা বৃহস্পতিবার রাতেই যুবলীগ কার্যালয় ভাংচুর করে।

এ সময় তারা জাতির জনক বন্ধবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবিও ভাংচুর করে। এছাড়াও তারা পিংকু হোস্টেলের ছাত্রলীগের অপর গ্রুপের দুই নেতার কক্ষে ভাংচুর ও আগুন ধরিয়ে দেয়। এ ঘটনায় মহানগরীর রাজপাড়া থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৩৫০ঘণ্টা, আগস্ট ১৪, ২০১১

৬ বছর পর কোন্দলপূর্ণ শিবগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের সম্মেলন
'লাইটিং দ্য ফায়ার অব ফ্রিডম' দেখলেন প্রধানমন্ত্রী-রেহানা
ইতালিতে করোনা আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যু
ফেনী ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের আলোকচিত্র প্রদর্শনী
মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে প্রবেশকালে আটক ৪ 


জাতীয় হ্যান্ডবল দলের গোলরক্ষক সোহান দুর্ঘটনায় নিহত
গ্রন্থমেলায় মুহাম্মদ আসাদুজ্জামানের ‘ভালোবাসার গল্প’
কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাসে অন্যরকম একুশ
চুনারুঘাট সীমান্তে ভারতীয় মুদ্রাসহ আটক ৫
শহীদদের ‘স্মৃতিচিহ্ন’ এঁকে পুরস্কার পেলো শিশুরা